কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

  ১২ অক্টোবর, ২০২১

কুমারখালী শিক্ষা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কয়েক কোটি টাকার আজানা আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও দখলে রাখার অভিযোগে মামলা করেছে সমন্বিত জেলা দুর্নীতি দমন কমিশন (সজেকা) কুষ্টিয়া। গতকাল সোমবার বেলা ১১টায় কুষ্টিয়া জেলা দায়রা জজ বিশেষ আদালতের বিচারক শেখ আবু তাহেরের আদালতে সমন্বিত জেলা দুর্নীতি দমন কমিশন কুষ্টিয়ার উপসহকারী পরিচালক নীল কমল পালের করা এজাহারটি আমলে নেয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দুদকের কৌঁসুলি অ্যাডভোকেট আল মুজাহিদ হোসেন মিঠু।

এজাহারভুক্ত আসামি হলেন কুমারখালী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আবদুর রশীদ (৫৬)। তিনি রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার নারায়ণপুর গ্রামের মৃত রওশন আলীর ছেলে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ২০১০-১১ সাল থেকে ২০২০-২১ সাল পর্যন্ত কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পান করেন আবদুর রশীদ। এ সময় তিনি এখতিয়ার বহির্ভূত রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার অপব্যবহার করে অবৈধ পন্থায় আর্থিক সুবিধা নিয়ে বিপুল পরিমাণ অর্থ বিত্তের অধিকারী হন। দুদক কর্তৃক পর্যবেক্ষণাধীন সম্পদের পরিমাণ কয়েক কোটি টাকা মূল্যের। প্রাথমিকভাবে তার বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয় বহির্ভূত ৩৩ লাখ ৯৫ হাজার ৩২৬ টাকার সম্পদ অর্জনের গরমিল পাওয়া গেছে।

সমন্বিত জেলা দুর্নীতি দমন কমিশন সজেকা কুষ্টিয়ার কৌঁসুলি অ্যাডভোকেট আল মুজাহিদ হোসেন মিঠু মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, দুদকের সব মামলাই চূড়ান্তভাবে আদালতে দাখিলের আগে নিবিড় পর্যবেক্ষণ ও বিচক্ষণতার সঙ্গে তদন্তকারী কর্মকর্তারা তদন্ত করেন। শুধু যেসব ক্ষেত্রে তদন্তে সত্যতা আছে বলে প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হয়, সেগুলোই চূড়ান্ত মামলা হিসেবে রেকর্ডপূর্বক তা আদালতে দাখিল করা হয়। সোমবার বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়েছে।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত কুমারখালী মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুর রশিদের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করলে তা বন্ধ পাওয়া যায়।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close