শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি

  ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২১

শিবচরে পানিতে তলিয়ে ১৪০০ হেক্টর ফসল

কয়েক দিন ধরে পদ্মার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় আড়িয়াল খাঁ নদের পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার ফসলি জমি, বাগান, বসতবাড়ি ভাঙনে বিলীন হয়ে গেছে। গত এক মাসের ভাঙনে এলাকার কমপক্ষে ৭০ বিঘা ফসলি জমি ও ১০৪টি পরিবার ভাঙনের শিকার হয়েছে। তবে বন্যাকবলিত এলাকায় বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে প্রান্তিক কৃষকরা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার মাদবরেরচর, সন্ন্যাসীর চর, পাচ্চর, কাঁঠালবাড়ী, চরজানাজাত ও বন্দরখোলা শিরুয়াইল, নিলখী, বহেরাতলা দক্ষিণ ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা পানিতে তলিয়ে গেছে। এর মধ্যে কোথাও ধানের পাতা ও শিষ দেখা যাচ্ছে। কোথাও আবার পুরোপুরি তলিয়ে গেছে।

উপজেলা কৃষি অফিসের তথ্যানুযায়ী, উপজেলায় ৩ হাজার ৫৯০ হেক্টর জমিতে রোপা আমন, ৬ হাজার ১১৫ হেক্টর জমিতে বোনা আমন ও ৪৮০ হেক্টর জমিতে শাক সবজি চাষ করা হয়েছে। এরমধ্যে ৬৪৯ হেক্টর জমির রোপা আমন, ৬৯৩ হেক্টর জমির বোনা আমন ও ৫৩ হেক্টর জমির শাকসবজি পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড জানায়, পদ্মার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় উপজেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। গতকাল থেকে পানি কমতে শুরু করায় আড়িয়াল খাঁ নদের পানি বিপৎসীমার দেড় ফুট ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বন্যায় ঘরবাড়ি, ফসলি জমিসহ অনেক গ্রামীণ সড়ক নষ্ট হয়ে গেছে।

সন্ন্যাসীরচর এলাকার কৃষক রব মাদবর জানান, চার বিঘা জমিতে ধান চাষ করেন তিনি। কিন্তু আড়িয়াল খাঁ নদীর পানি বেড়ে যাওয়ায় তার জমির ধান তলিয়ে গেছে। ধানের জমি তলিয়ে যাওয়ায় ব্যাপক ক্ষতির মধ্যে পড়েছেন বলে জানান তিনি। কুমেরপাড় এলাকার কৃষক হুমায়ুন মৃধা জানান, হঠাৎ পানি আসায় দুই বিঘা জমির লালশাক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সারা বছর এই জমির উৎপাদিত ফসল বিক্রি করে তার সংসার চলে।

পাচ্চর এলাকার কৃষক রওসন ঘরামী জানান, কৃষি অফিসের পরামর্শে তিন বিঘা জমিতে হাইব্রিড শাহী জাতের পেঁপের চারা রোপণ করেন। ফল আসতে শুরু করেছে কিন্তু এরই মধ্যে বন্যার পানি ঢুকতে শুরু হওয়ায় ফলন নিয়ে শঙ্কায় পড়েছেন তিনি।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ অনুপম রায় জানান, বন্যার পানিতে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন প্রান্তিক কৃষক। উপজেলায় প্রায় ১ হাজার ৪০০ হেক্টর জমির ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে। এরমধ্যে চরাঞ্চলের বিভিন্ন ইউনিয়নে বেশি ক্ষতি হয়েছে। এসব এলাকায় রোপা ও বোনা আমনসহ শাকসবজির জমি পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে।

ইউএনও মো. আসাদুজ্জামান জানান, বন্যায় ফসলি জমি ক্ষয়ক্ষতির পাশাপাশি রান্তাঘাটসহ ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বন্যাকবলিত এলাকায় উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে খাদ্য সহায়তা দেওয়া হয়েছে।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close