লোহাগাড়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি

  ০৮ জুলাই, ২০২৪

লোহাগাড়ায় সাঁকো ভেঙে দুর্ভোগে এলাকাবাসী

চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলায় টংকাবতী খালের ওপর নির্মিত একটি কাঠের সাঁকো পানির স্রোতে ভেঙে যাওয়ায় দুর্ভোগে পড়েছেন অন্তত ২০ হাজার মানুষ। দুর্ভোগ থেকে রক্ষা পেতে সেতু নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী। প্রতি বছর বর্ষায় পানিতে ভেঙে যায় উপজেলার আমিরাবাদ ইউনিয়নের ঘোনাপাড়া এলাকার এই সেতুটি। নড়বড়ে কাঠের সাঁকো দিয়ে ঝুঁকি নিয়েই পার হচ্ছেন গ্রামবাসী।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, আমিরাবাদ ইউনিয়নের উত্তর আমিরাবাদ ঘোনাপাড়া স্থানে টংকাবতী খালের ওপর নির্মিত কাঠের সাঁকোটি এখন ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে গেছে। গত কয়েক দিনের বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢল পানির স্রোতে সাঁকোটি বাঁকা হয়ে গেছে। খালের পশ্চিম পাশের ঘোনাপাড়া, রাহাত আলী চৌধুরীপাড়া, আমির খান চৌধুরীপাড়া, নাজির আলী মুন্সিপাড়া, মুহুরিপাড়া এবং খালের পূর্ব পাশে ব্রাহ্মণপাড়া, তালুকদার পাড়া, জলদাশপাড়া এলাকার প্রায় ২০ হাজার মানুষ ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করছেন। এ ছাড়া খালের পশ্চিমপাড়ের শিক্ষার্থীদের সাঁকো পার হয়ে উত্তর আমিরাবাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, উত্তর আমিরাবাদ এমবি উচ্চবিদ্যালয় এবং বার আউলিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে যেতে হয়।

যাওয়া-আসার সময় অভিভাবকরা থাকেন উদ্বিগ্ন। প্রয়োজনের তাগিদে স্থানীয়রা প্রতি বছর বাঁশ, কাঠ ও খুঁটি দিয়ে সাঁকোটি মেরামত করে কোনোরকম যাতায়াতের ব্যবস্থা করেন। বছরের পর বছর মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করলেও আজও সুনজর পড়েনি কর্তৃপক্ষের।

এ ছাড়া এসব এলাকার কৃষকদের চাষ করা ফসলাদিগুলো বাজারে গিয়ে বিক্রি করতে পারছে না। সাঁকো ব্রিজটি ভেঙে যাওয়ার কারণে।

স্থানীয় বাসিন্দা ও উত্তর আমিরাবাদ এমবি উচ্চবিদ্যালয়ের সভাপতি মো. ইসমাইল প্রতিদিনের সংবাদকে বলেন, চলতি বর্ষায় পানির স্রোতে কাঠের সাঁকোটি হেলে পড়েছে। যেকোনো মুহূর্তে কাঠের সাঁকোটি ভেঙে গিয়ে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যেতে পারে। এলাকার মানুষের যাতায়াতের সুবিধা ও প্রয়োজনীয়তার কথা বিবেচনা করে চালতি বর্ষা মৌসুমে মানুষের চলাচলের জন্য সাঁকোটি সংস্কার করা দাবি জানিয়েছেন তিনি।

এলাকার বাসিন্দা আওয়ামী লীগ নেতা মোরশেদ আলম জানান, আমাদের এলাকাবাসীর সহযোগিতা নিয়ে গত বছরে এ সাঁকো ব্রিজটি নির্মাণ করেছিলাম। অতিরিক্ত বৃষ্টিতে টংকাবর্তী খালের পানির তীব্র স্রোতের কারণে সাঁকো ব্রিজটি ভেঙে গেছে। দ্রুত সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

এদিকে, শনিবার বিকেলে এলাকাবাসী ও স্থানীয়দের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে কাঠের সাঁকোটি পরিদর্শনে যান নবনির্বাচিত উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম চৌধুরী। তিনি প্রতিদিনের সংবাদকে বলেন, আপাতত দুই পাশের মানুষের চলাচলের জন্য সাঁকোটি সংস্কার করা হবে। পরে সেখানে যাতে একটি পাকা সেতু নির্মাণ করা যায় এমপি ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে আমি ব্যবস্থা নেব।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close