আসাদুজ্জামান চয়ন, (ডোমার) নীলফামারী

  ০৯ জুন, ২০২৩

ডোমার বিএডিসি উৎপাদন খামারে আউশ ধান রোপণে ব্যস্ত কৃষক

নীলফামারীর ডোমার উপজেলার ৯নং সোনারায় ইউনিয়নে অবস্থিত বিএডিসি উৎপাদন খামার। উক্ত খামারে আলু উৎপাদনের পাশাপাশি এ বছর ২৬০ একর জমিতে আউশ ধান রোপণে ব্যস্ত সময় পার করছেন উক্ত খামারে নিয়োজিত কৃষান-কৃষানিসহ অত্র দপ্তরের কর্মকর্তা এবং কর্মচারীরা।

খামারের পুরো এলাকা ঘুরে দেখা যায়, আউশ ধান রোপণের কাজ চলছে পুরোদমে, সকাল থেকে শুরু করে বীজ বপন এবং মেশিন দিয়ে চারা রোপণে ব্যস্ত খামারের কৃষান-কৃষানিরা।

শ্রমিকরা জানান, আধুনিক যন্ত্রপাতির মাধ্যমে আমরা খুব সহজেই কাজ করতে পারছি এবং বর্তমানে এই খামারে তিন ফসলি উৎপাদন হচ্ছে।

বিএডিসি খামারে কর্মরত শ্রমিক সর্দার নাসিরুল হক বলেন, বর্তমানে বীজ তৈরি এবং রোয়া লাগানোর কাজে ১টি ব্লকে ১২০ জন পুরুষ এবং মহিলা শ্রমিক কাজ করছে।

বীজ বপনের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রথমে মাটিতে ব্লিচিং পাউডার দিয়ে শোধন করা হয়, তারপর সেই মাটির সঙ্গে রাসায়নিক সার ইউরিয়া, টিএসপি, ড্যাব, জীব, জিংক এবং ম্যাগনেশিয়ামের পাশাপাশি বীজ রক্ষার স্বার্থে কীটনাশক ব্যবহার করা হয়। ৫ থেকে ৭ দিনের মধ্যে নেটিংয়ের মাধ্যমে মাটিকে তৈরি করা হয়। এরপর পানির সাথে প্রভেক্স পাউডার মিশিয়ে ১৬ ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখা হয়। ভিজিয়ে রাখা বীজ পুনরায় ২৪ ঘণ্টা জাগ দিয়ে রেখে ট্রেরের মাধ্যমে বপন করা হয় এবং ১৬-১৮ দিনের মধ্যে রোয়া লাগানোর উপযোগী হয়ে ওঠে। এরপর মেশিনের মাধ্যমে রোয়া লাগানো হয়। বর্তমানে এই খামারে আমার নিয়ন্ত্রণে ৮৫ একর জমি রয়েছে যেটা আমার তদারকিতে কাজ চলছে।

তিনি আরো বলেন, ডোমার বিএডিসি উৎপাদন খামারের উপপরিচালক আবু তালেব মিয়ার দিকনির্দেশনায় মানসম্পন্ন বীজআলু উৎপাদন, সংরক্ষণ এবং কৃষক পর্যায়ে বিতরণ জোরদারকরণ প্রকল্পের অর্থায়নে ট্রান্সপ্লান্টার মেশিন ব্যবহার করে চলতি উৎপাদন মৌসুমে ২৫৫ একর জমিতে আউশ ধান বীজ এবং আমন ধান ৮০ একর জমিতে উৎপাদনের জন্য চারা রোপণ কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। চলতি মৌসুমে আধুনিক যান্ত্রিক উপায়ে কৃষি যন্ত্রপাতির ব্যবহারের মাধ্যমে রোপণের কাজ চলছে। আমরা আধুনিক যন্ত্রপাতির মাধ্যমে খুব সহজেই কাজ করতে পারছি, এতে কষ্ট যেমন কমেছে তেমনি রোপণ কার্যক্রমে সময়ও কম লাগছে।

জানা গেছে বিগত বছরে ২৪০ একর জমিতে আউশ ধান আবাদ করা হয়েছে এবং উৎপাদন হয়েছে ৩৮০ টন বীজ ধান। এর পাশাপাশি ৩৮ একর জমিতে আমন ধান বীজ (ব্রি-ধান-৭৫) চাষ করা হয়েছিল এতে উৎপাদিত হয়েছে ৫৩ টন ধানবীজ। ১৫ একর জমিতে ব্রি-ধান-৩৪ চাষ করা হয় এতে উৎপাদিত হয়েছে ১৮ টন ৩০০ কেজি ধানবীজ।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close