বাংলাদেশের শ্রীলঙ্কা সফর

ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীও বললেন অসম্ভব

‘১৪ দিন হোটেল রুমে আটকে থাকা অসম্ভব। এতে কোনোভাবেই আমাদের খেলোয়াড়দের ফিটনেস ঠিক থাকবে না’ জাহিদ আহসান রাসেল , ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশ | ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক

আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়রশিপের মতো গুরুত্বপূর্ণ সিরিজের আগে বাংলাদেশ দল ১৪ দিন হোটেলবন্দি থাকবে- এটা কোনোভাবেই মেনে নিতে পারেননি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। সঙ্গত কারণেই তিনি দ্ব্যর্থহীন কণ্ঠে জানিয়ে দিয়েছিলেন, এই শর্ত মেনে বাংলাদেশ সিরিজটি খেলবে না। বিসিবি সভাপতির সেই সুরের সঙ্গে এবার সুর মেলালেন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেলও। সাফ জানিয়ে দিলেন, এটা কোনোভাবেই সম্ভব নয়।

এই বক্তব্যের স্বপক্ষে তার যুক্তি হলো- একটা সিরিজের আগে ক্রিকেটাররা ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইন করলে তাদের ন্যূনতম ফিটনেসও থাকবে না। তবে যদি এমন হতো, কোয়ারেন্টাইনে থাকাকালীন তারা ফিটনেস ও স্কিল অনুশীলন করতে পারতেন তাহলে হয়তো বিষয়টি নিয়ে আপত্তি করত না সফরকারী বাংলাদেশ। কেননা, আখেরে সিরিজটি কোনো সাধারণ দ্বিপাক্ষিক সিরিজ নয়, টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ বলে কথা।

গতকাল রাজধানীর একটি হোটেলে ‘জয়তু শেখ হাসিনা ইন্টারন্যাশনাল অনলাইন চেস’-এর সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী একথা বলেন। তার ভাষ্য, ‘১৪ দিন রুমের মধ্যে আটকে থাকা অসম্ভব। একটা খেলোয়াড়ের ফিটনেস বড় বিষয়। রুমের মধ্যে বন্দি থাকলে কখনোই একজন খেলোয়াড়ের ফিটনেস ঠিক থাকবে না। আমরা বলেছি, হোটেলে আমরা থাকতে পারি, কিন্তু কোয়ারেন্টাইনের সময়টা একটু কমিয়ে দেওয়া হোক। আর জিম থেকে শুরু করে সুইমিংসহ হোটেলের সব সুযোগ-সুবিধা যেন আমাদের খেলোয়াড়দের দেওয়া হয়। এই বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্য বলেছি আমরা। আশা করছি শিগগিরই আমরা একটা ভালো সিদ্ধান্ত পাবো। আমরা চাই এই সিরিজটায় অংশগ্রহণ করতে।’

মূলত এ কারণেই স্বাগতিক শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সফরকারী বাংলাদেশের তিন ম্যাচ সিরিজের টেস্ট এখনো ঝুলে আছে। কোয়ারেন্টাইনের সময় কমানো ও কোয়ারেন্টাইনকালীন অনুশীলেনের ইস্যুতে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের দাবি-দাওয়া এখনো মেনে নেয়নি দেশটির কোভিড-১৯ নিয়ন্ত্রণ টাস্কফোর্স। ফলে অনেকেই ২৪ অক্টোবর থেকে অনুষ্ঠেয় সিরিজটির সলিল সমাধি দেখে ফেলেছিলেন। তবে পরশু বিসিবির ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের চেয়ারম্যান আকরাম খান যা জানালেন, তাতে সিরিজটির আশা এখনো বেঁচে আছে।

তিনি বলেছেন, ‘যেহেতু সফর পেছাচ্ছে, আমাদের যে তারিখে যাওয়ার কথা ছিল সেটা হচ্ছে না। ওরা চেষ্টা করছে। ওরা চাচ্ছে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব সিরিজটা করতে। আমার মনে হয় ওরা ইতিবাচক আছে। শনি-রবিবার ওদের বন্ধ। আশা করছি সোমবার বা মঙ্গলবার চূড়ান্ত কিছু চলে আসবে। যদি ইতিবাচক হয় আমরা আগামী মাসের ৭-১০ তারিখের মধ্যে যেতে পারি। ওদের যে শ্রীলঙ্কান টি-টোয়েন্টি লিগ হওয়ার কথা ছিল, সেটা এখনো নিশ্চিত না।’

 

 

"