নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে ইসরায়েলিদের বিক্ষোভ

প্রকাশ : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর পদত্যাগের দাবিতে জেরুজালেমে নতুন করে বিক্ষোভ করেছে লাখো মানুষ। করোনাভাইরাসজনিত লকডাউন উপেক্ষা করে গত শনিবার বিক্ষোভ করেন তারা। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে। নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে বেআইনিভাবে দামি উপহার গ্রহণ ও ইতিবাচক মিডিয়া কাভারেজ পেতে অবৈধ বাণিজ্য সুবিধা দেওয়ার অভিযোগে মামলা চলছে। ইসরায়েলের প্রথম ক্ষমতাসীন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে গত বছর তার বিরুদ্ধে তিনটি আলাদা মামলায় জালিয়াতি, বিশ্বাসভঙ্গ ও ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ গঠন করা হয়। মে মাসে শুরু হয় বিচার। এরই মধ্যে আবার নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় ব্যর্থতার অভিযোগ উঠেছে। তার ওপর ১৮ সেপ্টেম্বর ইসরায়েলে দ্বিতীয় দফায় লকডাউন ঘোষণা করায় জনগণের ক্ষোভ বেড়েছে। গত শনিবার বিক্ষোভকারীরা বিভিন্ন ব্রিজ, রাস্তার সংযোগস্থলসহ নেতানিয়াহুর বাসার সামনেও জড়ো হয়। তারা ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে করোনা নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতার অভিযোগ তুলে তার পদত্যাগ দাবি করে। লকডাউনের সময় জনসমাগম নিষিদ্ধ করা হলেও তা উপেক্ষা করে বিক্ষোভকারীরা। আয়োজকদের উদ্ধৃত করে আল জাজিরা জানিয়েছে, এদিন ১৬ হাজার বিক্ষোভকারী সশরীরে বিক্ষোভ করেছে। অনলাইনে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে আরো হাজার হাজার বিক্ষোভকারী। নেতানিয়াহু লকডাউনের পক্ষে সাফাই গেয়ে বলেছেন, ‘জনগণের জীবন রক্ষার জন্যই আমরা লকডাউন দিতে বাধ্য হয়েছি। আমরা করোনা আক্রান্ত হয়ে মানুষকে মরতে দিতে পারি না।’

নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে এক বছরের বেশি সময় ধরে দেশটির রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা চলছিল। তবে ইসরায়েলের ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘমেয়াদে ক্ষমতায় থাকা প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু এ বছর টানা চতুর্থ মেয়াদে শপথ নিয়েছেন। সেখানকার আইন অনুযায়ী, ক্ষমতাসীন কোনো প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে অপরাধ প্রমাণিত হলে তবেই তাকে পদত্যাগ করতে হবে। নেতানিয়াহুর ক্ষেত্রে এমনটা ঘটতে কয়েক বছর পর্যন্ত লেগে যেতে পারে। এর আগে ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর সর্বশেষ জোট সরকারের মেয়াদ শেষ হয়ে যায়। এক বছরের মধ্যে তিন দফা সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলেও কোনো পক্ষই সরকার গঠন করতে পারেনি।

 

 

"