নিজস্ব প্রতিবেদক

  ২৫ জুন, ২০২৪

খালেদা জিয়া সিসিইউ থেকে কেবিনে

হৃদযন্ত্রে সফলভাবে পেসমেকার বসানোর প্রায় ২৪ ঘণ্টা পর রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালের সিসিইউ থেকে কেবিনে নেওয়া হয়েছে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে। গতকাল সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে তাকে কেবিনে নেওয়া হয়।

বিএনপি চেয়ারপারসনের ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক এ জেড এম জাহিদ হোসেন জানান, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি হওয়ায় মেডিকেল বোর্ডের সুপারিশে তাকে সিসিইউ সুবিধাসম্বলিত কেবিনে নেওয়া হয়েছে। আপাতত এই হাসপাতালেই আমেরিকা ও যুক্তরাজ্যের চিকিৎসকদের পরামর্শে তার চিকিৎসা চলবে।

সকালে সচিবালয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের এক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক জানান, পেসমেকার বসানোর পর খালেদা জিয়া এখন সুস্থ আছেন। আইনমন্ত্রী বলেন, খালেদা জিয়ার যে চিকিৎসা প্রয়োজন, তা দেশে সংশ্লিষ্ট হাসপাতালে পাচ্ছেন। এজন্য এখন পর্যন্ত সুস্থ আছেন তিনি। যে অসুখগুলো আছে, এর অনেকটা নিরাময়যোগ্য না। ওষুধ দিয়ে নিয়ন্ত্রণে রাখা হয়েছে। এর আগে বিদেশ থেকে চিকিৎসক আনার অনুমতি দিতেও সরকার কার্পণ্য করেনি। সরকারের আন্তরিকতার অভাব থাকলে সেটা সম্ভব ছিল না।

গত শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে ৩টার দিকে এভারকেয়ার হাসপাতালের সিসিইউতে নেওয়া হয় খালেদা জিয়াকে। সেখানে তাকে চিকিৎসকদের নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়। বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইং কর্মকর্তা শামসুদ্দিন দিদার জানান, রাত দেড়টার দিকে হঠাৎই অসুস্থ হয়ে পড়েন বেগম খালেদা জিয়া। শরীরে ইলেক্ট্রলাইটের ভারসাম্যহীনতা দেখা দেয়।

পরদিন এভারকেয়ার হাসপাতালে খালেদা জিয়ার হৃদযন্ত্রে পেসমেকার বসানোর কাজ শুরু করেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দল। খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক এ জেড এম জাহিদ হোসেন সে সময় বলেন, ম্যাডামের (খালেদা জিয়া) হৃদরোগের সমস্যা পূর্ব থেকেই ছিল। সেজন্য হার্টে ব্লক ছিল, একটা স্টেনটিংও করা ছিল। সব কিছু পর্যালোচনা করে এখন মেডিকেলে বোর্ড ম্যাডামের হার্টে পেসমেকার বসানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

পেসমেকার হৃদযন্ত্রকে নিয়মিত ছন্দে চলতে সাহায্য করে। হৃদযন্ত্রের স্পন্দন ঠিকমতো চলছে কি না, সেটাও এই যন্ত্র তদারকি করে।

চিকিৎসকরা জানান, হৃৎপিণ্ডের ডান অ্যাট্রিয়াম প্রাচীরের ওপর দিকে অবস্থিত বিশেষায়িত কার্ডিয়াক পেশিগুচ্ছে গঠিত ও স্বয়ংক্রিয় স্নায়ুতন্ত্রে নিয়ন্ত্রিত একটি ছোট অংশ, যা বৈদ্যুতিক তরঙ্গপ্রবাহ ছড়িয়ে দিয়ে হৃৎস্পন্দন সৃষ্টি করে এবং স্পন্দনের ছন্দময়তা বজায় রাখে এই পেসমেকার।

৭৯ বছর বয়সি সাবেক এ প্রধানমন্ত্রী ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, ফুসফুস, লিভার, কিডনিজটিলতাসহ বিভিন্ন শারীরিক সমস্যায় ভুগছেন।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close