নিজস্ব প্রতিবেদক

  ০২ অক্টোবর, ২০২২

ছড়িয়ে পড়ছে চোখ ওঠা রোগ

চক্ষু হাসপাতালে বাড়ছে ভিড়

আবহাওয়া পরিবর্তন, মানুষের স্বাস্থ্যবিধি না মেনে চলার প্রবণতা এবং বাইরে ঘোরাফেরা বেড়ে যাওয়ায় বেড়েছে চোখ ওঠা রোগ। রোগটি অতি সংক্রামক। এ কারণে পরিবারে কারো হলে বাকিরাও আক্রান্ত হচ্ছে। স্কুলে একজনের হলে সবার মধ্যে ছড়াচ্ছে।

এদিকে কয়েক দিন ধরে ঢাকার আগারগাঁওয়ে জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে চোখ ওঠা রোগী বাড়ছে। এ অবস্থায় রোগটির বিস্তার ঠেকাতে আক্রান্ত ব্যক্তিকে আইসোলশনে রাখার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে দেখা গেছে, আদাবরের বাসিন্দা শামীম আহমেদকে, সঙ্গে স্কুলপড়ুয়া মেয়ে। তাদের সমস্যা চোখ ওঠা।

শামীম বলেন, গত সপ্তাহে আমার স্ত্রীর চোখে সমস্যা দেখা দেয়। দুদিন পর আমার মেয়েরও। আর আমার শুক্রবার চোখ উঠেছে। চোখ লাল হয়ে গেছে, জ্বলে। এজন্য হাসপাতালে এসেছি।

মিরপুরের শেওড়াপাড়া থেকে তাহমিনা সুলতানারও একই সমস্যা। তার পরিবারেরও সবার চোখ উঠেছে। তিনি বলেন, ‘হঠাৎ চোখে খসখস করতে শুরু করে, কেমন যেন খোঁচা লাগছিল। আর চোখ দিয়ে পানি পড়া, ব্যথা করা করা তো আছেই। আমার চোখ বেশ ফুলে উঠেছে। এজন্য হাসপাতালে এসেছি।’

এই হাসপাতালের বহির্বিভাগের সিনিয়র স্টাফ নার্স অঞ্জনা পাল জানান, কয়েক দিন ধরে চোখ ওঠার অনেক রোগী পাচ্ছেন তারা। তিনি বলেন, ‘আমাদের আউটডোর রেজিস্ট্রারে কে কী সমস্যা নিয়ে এসেছে, তা আলাদা করে রাখি না। এজন্য এক দিনে ঠিক কতজন এসেছেন চোখ ওঠা নিয়ে, তা সঠিকভাবে বলতে পারব না। তবে ১০-১৫ দিন ধরে আউটডোরে যত রোগী আসছেন, তার প্রায় অর্ধেকই এ সমস্যা নিয়ে। চোখ ওঠা মূলত ভাইরাসজনিত রোগ কনজাঙ্কটিভাইটিস। সাধারণের কাছে তা চোখ ওঠা রোগ নামে পরিচিত। এটি অতি সংক্রামক। এই রোগে আক্রান্ত হলে চোখ লাল হয়ে ওঠে, অনেকের চোখ ফুলে যায়, চোখে অস্বস্তি হয়, চোখ জ্বালাপোড়া করে, চোখ থেকে পানি পড়ে, আলো বা রোদে তাকাতে কষ্ট হয়। তবে চিকিৎসকরা বলছেন, চোখ ওঠা নিয়ে ভয়ের কিছু নেই। তবে অতি সংক্রামক এই রোগ থেকে বাঁচতে আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে দূরে থাকতে হবে। হাসপাতালের মতো চিকিৎসকদের ব্যক্তিগত চেম্বারেও চোখ ওঠা রোগীর সংখ্যা বেড়েছে।’

জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের কর্নিয়া বিভাগের অধ্যাপক ডা. মো. আবদুল কাদের প্রতিদিন নিজের চেম্বারে ২০ জনের মতো রোগী দেখেন। সেখানে এখন দৈনিক গড়ে ৬ জন রোগী কনজাঙ্কটিভাইটিসের রোগী বলে তিনি জানান। যেখানে আগে সপ্তাহে একজন রোগী মিলত।

চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে বাড়িতে আছেন, এমনই একজন গ্রিনরোডের বাসিন্দা নাজমুন নাহার। তিনি বলেন, ‘২০ সেপ্টেম্বর তার ছেলের প্রথমে চোখ ওঠে। এর দুদিন পর তার স্বামী, মেয়ের চোখ ওঠার পরদিন তারও একই সমস্যা দেখা দেয়। আমার ছোট বোন ডাক্তার, তার পরামর্শে বাড়িতে থেকেই চিকিৎসা নিচ্ছি। আমাদের বাসার নিচতলায় আরেক বোন থাকে। তার দুই বাচ্চারও এই অবস্থা।’

অধ্যাপক কাদের বলছেন, আবহাওয়া পরিবর্তন, মানুষের স্বাস্থ্যবিধি না মেনে চলার প্রবণতা এবং বাইরে ঘোরাফেরা বেড়ে যাওয়া- মূলত এই তিন কারণে অতি সংক্রামক এই রোগ এ বছর বেড়েছে। তিনি বলেন, ‘সে কারো সঙ্গে দেখা করবে না, কাউকে স্পর্শ করবে না, কারো জিনিস ব্যবহার করবে না। শিক্ষার্থী হলে স্কুলে যাবে না। চাকরীজীবী হলে অফিসে যাবে না, পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে আলাদা থাকবে। তার ব্যবহৃত জিনিসপত্র কেউ ব্যবহার করবে না।’

কনজাঙ্কটিভাইটিসের প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় গত মঙ্গলবার বিদেশগামী যাত্রীদের জন্য একটি নির্দেশনা দেয় হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। তাতে চোখ ওঠার সমস্যা থাকলে বিমানযাত্রায় নিরুৎসাহিত করা হয়।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close