নিজস্ব প্রতিবেদক

  ১৭ আগস্ট, ২০২২

বিআরটি প্রকল্পের কাজ বন্ধ

* তদন্তসাপেক্ষে কয়েকটি কোম্পানিকে কালো তালিকাভুক্ত করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর * মৃতদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর, আহাজারিতে মর্গ এলাকায় হৃদয়বিদারক দৃশ্য

রাজধানীতে বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট (বিআরটি) প্রকল্পের সব কাজ আপাতত বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পরবর্তী সময়ে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সাপেক্ষে তা আবার চালু করার অনুমতি দেওয়া হবে।

এ দুর্ঘটনার বিষয়ে তদন্ত সাপেক্ষে কয়েকটি কোম্পানিকে কালো তালিকাভুক্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় এ নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী। সভা শেষে পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম গণমাধ্যমকে এ কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, একনেক বৈঠকে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব উত্তরার দুর্ঘটনার প্রাথমিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছেন। প্রাথমিক প্রতিবেদনে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের গাফিলতির তথ্য জানা গেছে। প্রধানমন্ত্রী এ ঘটনা খুব মন দিয়ে শুনেছেন এবং আবেগতাড়িত হয়ে গিয়েছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা দিয়ে বলেছেন, এ ঘটনার সঙ্গে যারা যারা জড়িত এবং যেই কোম্পানি জড়িত তাদের সবার বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নিতে হবে। এ ছাড়া যেসব কোম্পানি কাজে অবহেলা ও দায়িত্বজ্ঞানহীনের পরিচয় দেয় সেগুলোকে কালো তালিকাভুক্ত করার জন্য বলেছেন।

রাজধানীর উত্তরায় প্রাইভেট কারের ওপর গার্ডার পড়ে নিহত পাঁচজনের মরদেহ ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের মর্গ থেকে তাদের মরদেহ নিয়ে যান স্বজনরা। তাদের মধ্যে ফাহিমা আক্তার (৩৮), তার বোন ঝরনা আক্তার (২৭) এবং ঝরনার দুই সন্তান জান্নাতুল (৬) ও জাকারিয়ার (৪) মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় তাদের গ্রামের বাড়ি জামালপুরের মেলান্দহে। আর আর আইয়ুব আলী হোসেনের (রুবেল) (৫৫) মরদেহ গ্রহণ করেন তার স্ত্রী সাহিদা খানম। তার মরদেহ প্রথমে মানিকগঞ্জের সিংগাইরে ও পরে মেহেরপুর সদরের ঘোড়ামারা রাজনগরে নিয়ে যাওয়া হয়। এই দুর্ঘটনায় ‘অবহেলাজনিত মৃত্যুর’ অভিযোগ এনে মামলা হয়েছে ঠিকাদার কোম্পানি, ক্রেনচালক এবং প্রকল্পের নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিতদের বিরুদ্ধে। নিহত ফাহিমা আক্তার ও ঝরনা আক্তারের ভাই মো. আফরান মণ্ডল বাবু সোমবার রাতে উত্তরা পশ্চিম থানায় এ মামলা করেন। উত্তরা পশ্চিম থানার ওসি মোহাম্মদ মোহসীন বলেন, মামলায় অবহেলার কারণে প্রাণহানির অভিযোগ করা হয়েছে। ক্রেনচালকের পাশাপাশি প্রকল্পের ঠিকাদার চায়না গ্যাঝুবা গ্রুপ করপোরেশনের (সিজিজিসি) সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি এবং নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে দায়িত্বপ্রাপ্ত অজ্ঞাত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে এই মামলা করা হয়েছে। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম মঙ্গলবার দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত প্রকল্পকাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন। তিনি বলেন, ‘দীর্ঘদিন থেকে চলা এ প্রকল্পকাজ পরিচালনায় ন্যূনতম নিরাপত্তাব্যবস্থা নেই। কিছুদিন পরপরই দুর্ঘটনা ঘটছে। জনদুর্ভোগ বাড়ছে। এভাবে উন্নয়নকাজ চলতে দেওয়া যাবে না। আগে নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।’

মেয়র আরো বলেন, ‘ঢাকায় বিআরটি, মেট্রোরেলসহ বেশ কটি প্রকল্পের কাজ চলমান। সব প্রকল্পের পরিচালকদের বৃহস্পতিবার (১৮ আগস্ট) নগর ভবনে ডাকা হয়েছে। তারা নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত করলেই আবার কাজ শুরু করতে পারবেন।’

ঢাকা বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড (বিআরটি) এই প্রকল্পের ঠিকাদারদের কাছ থেকে কোনোভাবেই নিরাপত্তাব্যবস্থা পাচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক সফিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, এখানে দুটি প্রতিষ্ঠান কাজ করছে। দুটিই চীনা প্রতিষ্ঠান। আমরা এর আগেও জেনেছি, তারা লোকবল কম রেখে, ইকুইপমেন্ট কম ব্যবহার করে কাজটা শুধু রানিং রাখে। কিন্তু ওই রকম স্পিড থাকে না। কমপ্লায়েন্সের ক্ষেত্রেও একই কথা। মঙ্গলবার গার্ডার দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শনকালে তিনি সাংবাদিকদের কাছে এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, শুধু আমরা না, সিটি করপোরেশন, মিনিস্ট্রি ও এডিবি যার যতটুকু ক্ষমতা আছে সবাই কমপ্লায়েন্সের বিষয়ে প্রেশার দিয়ে যাচ্ছে। দুঃখের বিষয় হলেও মেয়র বলেছেন, আমাদের কাজে খামখেয়ালিপনা হচ্ছে। সেটা আমরা ঠিকাদারদের কাছ থেকে পেয়েছি। কোনোভাবেই তাদের কাছ থেকে কমপ্লায়েন্স পাচ্ছি না। একই সময় ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম ঢাকায় বিআরটি প্রকল্পের কাজ বন্ধ রাখার ঘোষণা দেন।

উল্লেখ্য, উত্তরা জসীম উদ্দীন এলাকায় আড়ঙের সামনে সোমবার (১৫ আগস্ট) বিকালে ক্রেন দিয়ে একটি গার্ডার ওপরে ওঠানো হচ্ছিল। এ সময় ক্রেন উল্টে সেটি প্রাইভেট কারের ওপর পড়ে। গার্ডারের চাপা পড়ে প্রাইভেট কার চ্যাপ্টা হয়ে যায়। এতে প্রাইভেট কারের ভেতরে থাকা সাতজনের মধ্যে পাঁচজন নিহত হন। তারা হলেন রুবেল, ফাহিমা, ঝরনা, জান্নাত ও জাকারিয়া (২)।

বেঁচে যাওয়া দুজন হচ্ছেন নবদম্পতি। গত শনিবার তাদের বিয়ে হয়। মঙ্গলবার রাজধানীর শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বাইরে মৃতদেহ গ্রহণ করার জন্য অপেক্ষা করছিলেন নবদম্পতি হৃদয় ও রিয়া মনি। বাকরুদ্ধ রিয়া মনিকে দেখা যায় স্বামী হৃদয়ের হাত ধরে বসে থাকতে। স্বজনদের আহাজারিতে ভারী হয়ে ওঠে পুরো মর্গ এলাকা।

হৃদয় সাংবাদিকদের বলেন, আমি আর আমার বাবা সামনে ছিলাম। পেছনে আমার স্ত্রী ও অন্যরা ছিলেন। এয়ারপোর্ট রোডে ক্রেনে একটা বক্স গার্ডার ঝুলছিল। আমরা দূর থেকে এটা দেখেছি। একের পর এক গাড়ি এর নিচ দিয়ে চলে যাচ্ছিল। ভাবলাম, আমরাও যেতে পারব। যখনই পার হতে গেলাম তখনই গার্ডারটা গাড়ির ওপর পড়ল। আমি বাবার বামপাশে ছিলাম, আমার স্ত্রী পেছনের সিটে বামপাশে ছিলেন। আমার বাবাসহ বাকিরা ডানপাশে ছিলেন। তারা সবাই ঘটনাস্থলেই মারা যান।

তিনি বলেন, স্থানীয়দের সহায়তায় আমাকে উদ্ধার করা হয়। আমার পা আটকে ছিল। আমার স্ত্রী পুরোপুরি আটকে ছিল। গাড়ির কাচ ভেঙে আমাকে ১০ মিনিটে বের করে আনেন। আমার স্ত্রীকে বের করতে আধঘণ্টার মতো সময় লাগে। এ ঘটনায় আমরা মামলা করেছি, এর বিচার চাই।

এই দুর্ঘটনা হাইকোর্টের নজরে এনেছেন তিন আইনজীবী। আদালত আইনজীবীদের এ বিষয়ে রিট আবেদন করার পরামর্শ দিয়েছেন। মঙ্গলবার বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ পরামর্শ দেন। দুর্ঘটনাটি নিয়ে পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন নজরে আনেন আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ মাহসিব হোসাইন, অ্যাডভোকেট জামিউল হক ফয়সাল ও অ্যাডভোকেট মো. শাহিনুজ্জামান। তারা আদালতের কাছে সুয়োমোটো আদেশ প্রার্থনা করেন। তখন আদালত বলে, আপনারা রিট আবেদন নিয়ে আসেন। তখন আমরা শুনব।

রাজধানীর উত্তরায় বিআরটি প্রকল্পের গর্ডার দুর্ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তারে অভিযানে নেমেছেন র‌্যাব সদস্যরা। মঙ্গলবার দুপুরে কারওয়ান বাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানান র‌্যাব-১-এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আবদুল্লাহ আল মোমেন।

তিনি বলেন, উত্তরায় নির্মাণাধীন বিআরটি প্রকল্পের ক্রেন প্রাইভেট কারের ওপর পড়ে পাঁচজনের মৃত্যুর ঘটনা মর্মান্তিক। এ ঘটনার পর থেকেই র‌্যাব ছায়া তদন্ত শুরু করেছে। সোমবার রাতে মামলার পর জড়িতদের গ্রেপ্তারে অভিযান শুরু করা হয়েছে। এ ঘটনায় যারাই জড়িত থাকুক তাদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হবে।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close