প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

  ১২ আগস্ট, ২০২২

সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত বহাল

চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, লঘুচাপ ও বায়ুচাপ পার্থক্যের আধিক্যের প্রভাবে উপকূলীয় জেলা সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট, ঝালকাঠি, পিরোজপুর, বরগুনা, পটুয়াখালী, ভোলা, বরিশাল, লক্ষ্মীপুর, চাঁদপুর, নোয়াখালী, ফেনী, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরসমূহের নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ২ থেকে ৪ ফুট অধিক উচ্চতার বায়ুতাড়িত জলোচ্ছাসে প্লাবিত হতে পারে।

উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারগুলোকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে। ভারতের ছত্তীসগড় ও এর আশপাশের এলাকায় অবস্থানরত সুস্পষ্ট লঘুচাপটি পশ্চিম দিকে অগ্রসর ও দুর্বল হয়ে লঘুচাপ আকারে ভারতের মধ্যপ্রদেশ ও এর কাছাকাছি এলাকায় অবস্থান করছে। এর প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় বায়ুচাপ পার্থক্যের আধিক্য বিরাজ করছে। সমুদ্র বন্দরগুলো, উত্তর বঙ্গোপসাগর ও বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের অধিকাংশ জায়গায়, রাজশাহী, ঢাকা ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগের কিছু জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরণের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে ভারী বর্ষণ হতে পারে। পরবর্তী তিন দিনে বৃষ্টিপাতের প্রবণতা অব্যাহত থাকতে পারে।

দৌলতখানে হুমকির মুখে শহর রক্ষা বাঁধ

ভোলা প্রতিনিধি জানায়, ভোলার দৌলতখান পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডে মেঘনার প্রবল পানির চাপে শহর রক্ষা বাঁধ হুমকির মুখে পড়েছে। এরই মধ্যে বাঁধের নদীর পাশের অংশে প্রায় ২০০ মিটারের মতো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং সেখানে থাকা ৭টি বসতঘর ভেঙে যাওয়ায় অর্ধশতাধিক মানুষ খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছেন।

এদিকে ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ সংস্কার করছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। তারা দ্রুত বালির বস্তা দিয়ে আপাতত বাঁধ রক্ষার চেষ্টা করছে।

স্থানীয় বাসিন্দা আবুল কালাম জানান, চলতি পূর্ণিমায় মেঘনা নদীতে অতিরিক্ত জোয়ারের পানি বিপৎসীমার উপর দিয়ে বইছে। গত তিন দিন ধরে জোয়ারের সময় পানির প্রবল চাপ থাকে। এ সময় দৌলতখান পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের রাধাভল্লব গ্রামের শহর রক্ষা বাঁধে পানির আঘাতে প্রায় ২০০ মিটার বাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, যথাসময়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড দায়িত্ব পালন করলে বাঁধ হুমকির মুখে পড়ত না। পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মুহাম্মদ হাসানুজ্জামান বলেন, বঙ্গোপসাগর লঘুচাপ ও পূর্ণিমার আগাম প্রভাবে তিন দিন ধরে মেঘনা-তেঁতুলিয়া নদী উত্তাল রয়েছে। জোয়ারের সময় উপকূলের নদণ্ডনদীতে আগের চেয়ে বেশি পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এতে বেশিরভাগ নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে দৌলতখানের শহর রক্ষা বাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়ছে। ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় জিও ব্যাগ ফেলা হচ্ছে।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close