বাবুগঞ্জ (বরিশাল) প্রতিনিধি

  ২২ মে, ২০২২

রেণু পোনা নিধন নদীতে কমছে মাছ

বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন নদীতে অবৈধ নেটজাল দিয়ে রেণু পোনা নিধন চলছে। এলাকার নদী থেকে বিভিন্ন মাছের রেণু নিধনের কারণে নদীগুলো মাছশূন্য হওয়ার আশঙ্কা বিরাজ করছে। উপজেলার তিনটি সন্ধ্যা, সুগন্ধা ও আড়িয়াল খাঁ নদীর বিভিন্ন স্থানে নদীর ভাটা শুরু হলে রেণু সংগ্রহ করার দৃশ্য দেখা যায়।

জানা গেছে, এসব রেণু সংগ্রহকারীরা সাতক্ষীরা থেকে বাবুগঞ্জে এসে স্থানীয়দের ছত্রছায়ায় থেকে রেণু শিকার করে। নদীতে অবৈধ মশারির জাল ফেলে হাজার হাজার ভাটা ও চিংড়ি মাছের রেণু শিকার করেন তারা। পরে স্থানীয় পুকুরে সংরক্ষণ করে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাচার করা হয় এসব রেণু। জানা গেছে, জোয়ারের সময় উজানে বাগদা চিংড়ির পোনা ও রেণু উঠে আসে। পরে ভাটার টানে উঠে আসা পোনা নদীর তীর ঘেষে নিচের দিকে নামার চেষ্টাকালে নদীতে পুঁতে রাখা পানির এক ফুট নিচে খুঁটির সঙ্গে অবৈধ নেটে বাধাপ্রাপ্ত হয়ে রেণু পোনা আটকে যায়। এছাড়া নৌকা নিয়ে চর এলাকায় ঘুরে ঘুরে রেণু নিধন করা হয়। আটকে যাওয়া এসব (মাছের বাচ্চা) রেণুর সঙ্গে দেশীয় মাছের পোনা ও ছোট কাঁকড়াও উঠে আসে। নদী থেকে নেট উপরে (ডাঙ্গায়) তুলে আনার পর রেণুগুলো বাছাই করে নেওয়া হয়। এ সময় জালে আটকে থাকা ছোট ছোট মাছ ও কাঁকড়া মরে যায় বা ফেলে দিয়ে নিধন করা হয়। এতে করে নদীতে দেশীয় মাছ ও কাঁকড়া দিনে দিনে কমে যাচ্ছে বা উধাও হয়ে যাচ্ছে। দেহেরগতি ইউনিয়নের রাকুদিয়া গ্রামের বশিরের নেতৃত্বে সাতক্ষীরা তালা থানার মাছিয়ারা গ্রাম থেকে রেণু শিকারে আসা আলমগীর ও হান্নান বিশ্বাস বলেন, আমার ৫ থেকে ৬ বছর যাবৎ সুগন্ধা নদী থেকে রেণু শিকার করে সাতক্ষীরাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের ঘেরে বিক্রি করি। এটা আমরা বৈধ বলে মনে করি। অপরিকল্পিতভাবে নদীতে রেণু ধরার নামে সব ধরনের মাছ নিধনের কারণে এলাকার নদীতে এখন ১২ মাস আর মাছের সন্ধান মেলে না। জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান জানান, এরই মধ্যে জেলার নেতৃত্বে বাবুগঞ্জে একটি অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। আবার অতি দ্রুত অভিযান পরিচালনা করা হবে। বিভিন্ন মাছের পোনা সংরক্ষণে অবৈধ নেট জাল ব্যবহার করা দণ্ডনীয় অপরাধ। এ ব্যাপারে কোনো ছাড় দেওয়া হবে না।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close