নিজস্ব প্রতিবেদক

  ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২১

মাসে ২ কোটি ডোজ দেওয়ার পরিকল্পনা

করোনাভাইরাস প্রতিরোধী চলমান টিকাদান কর্মসূচি এগিয়ে নেওয়ার লক্ষ্যে প্রতি মাসে ২ কোটি ডোজ টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা করছে সরকার। সরকার এ বছরের শেষ নাগাদ প্রায় ২০ কোটি ডোজ টিকা পাওয়ার আশা করছে ।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, প্রাথমিকভাবে আমরা প্রতি মাসে ২ কোটি সিনোফার্মের টিকা দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছি। যদি আমরা প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী সেগুলো পাই।

জুন মাসে সরকার চীন থেকে দেড় কোটি সিনোফার্মের টিকা কেনার পর টিকা কর্মসূচি কিছুটা গতি পায়। এ ছাড়া, কোভ্যাক্স থেকে বাংলাদেশ গত তিন মাসে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের প্রায় ১ কোটি ডোজ টিকা পেয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশিদ আলম বলেন, সরবরাহ এখন বেশ ভালো। আমরা অক্টোবর থেকে প্রতি মাসে ২ কোটি ডোজ টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা করছি।

স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা বলছেন, সেপ্টেম্বর থেকে নভেম্বরের মধ্যে বাংলাদেশ আরো ছয় কোটি ডোজ সিনোফার্মের টিকা পাওয়ার কথা। এ ছাড়া, কোভ্যাক্সের আওয়তায় সাড়ে ১০ কোটি সিনোফার্ম ও সিনোভ্যাকের টিকা পাওয়ার কথা রয়েছে বাংলাদেশের। আগামী মাস থেকেই এগুলো আসতে শুরু করবে বলে আশা করছেন স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা এরই মধ্যে কোভ্যাক্স থেকে সাড়ে ১০ কোটি টিকা (সিনোফার্ম ও সিনোভ্যাক) যুক্তিসঙ্গত মূল্যে কিনতে রাজি হয়েছি। এগুলো চলতি বছরের শেষ প্রান্তিকে দেশে পৌঁছাবে।

এ দিকে, আগামী ডিসেম্বরের মধ্যেই দেশের ১০ কোটি মানুষকে টিকা দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব লোকমান হোসেন মিয়া।

গতকাল শনিবার ঢাকার শেরেবাংলা নগরে জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য হাসপাতালে এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের তিনি জানান, কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের প্রায় ২০ কোটি ডোজ এ বছরের মধ্যে দেশে পৌঁছে যাবে এবং আমরা ১০ কোটি মানুষকে টিকা দিতে পারব। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কোভিড-১৯ টিকা ব্যবস্থাপনা টাস্কফোর্স কমিটির সদস্য সচিব ডা. শামসুল হক বলেন, আমরা প্রতি মাসে ২ কোটি ডোজ দিয়ে টিকা ক্যাম্পেইন পরিকল্পনা প্রস্তুত করছি। স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা শহর ও গ্রামাঞ্চলে টিকা প্রদানের বৈষম্য কমাতে কাজ করছেন।

টিকা কর্মসূচিতে যুক্ত স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, আমরা গ্রামীণ জনগোষ্ঠীকে টিকা দেওয়ার ওপর আরো গুরুত্ব দেব। গত মাসের বিশেষ টিকা কর্মসূচিতে আমরা যে ত্রুটি পেয়েছি, সেগুলো এরই মধ্যে সমাধান করা হয়েছে। আগামী মাস থেকে ২ কোটি মানুষকে টিকা দেওয়া শুরু হলে ভোগান্তির অবসান ঘটবে।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close