প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

  ০১ আগস্ট, ২০২১

আরো ভয়াবহ ধরন ছড়িয়ে পড়ার শঙ্কা

মহামারি শুরুর পর থেকে করোনাভাইরাসের ধরনগুলোর মধ্যে ডেল্টা সবচেয়ে ক্ষতিকর প্রভাব ফেলেছে। এটি আগের যেকোনো ধরনের চেয়ে অনেক বেশি সংক্রামক বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। এ পর্যন্ত বিশ্বের ১৩২ দেশে ছড়িয়ে পড়েছে ভারতে প্রথম শনাক্ত হওয়া এ ধরন। এই পরিস্থিতিতে নতুন কোনো ধরন আসার আগেই করোনার সংক্রমণ দ্রুত নিয়ন্ত্রণে আনার তাগিদ দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। সংস্থাটি বলছে, করোনার ডেল্টা ধরন একটি সতর্কবার্তা। এই ধরনের ভয়াবহতা থেকে বোঝা যায়, সামনের দিনগুলোয় করোনার আরো ভয়াবহ ধরন ছড়িয়ে পড়তে পারে। খবর এএফপির। গত শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার জরুরি বিভাগের প্রধান মাইকেল রায়ান বলেন, ‘ডেল্টা একটা সতর্কবার্তা। আরো ভয়াবহ ধরন আসার আগে আমাদের এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য এটি একটি ইশারাও।’

ডেল্টা ধরনের ভয়াবহতা অনেক বেশি হলেও তা নিয়ন্ত্রণে সামাজিক দূরত্ব, মাস্ক পরিধান ও বারবার হাত ধোয়ার মতো বিষয়গুলো এখনো কার্যকর বলে জানিয়েছেন মাইকেল রায়ান। তিনি বলেন, ‘এই সুরক্ষা ব্যবস্থাগুলো ডেল্টা ধরনের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। টিকা নেওয়া থাকলে এগুলো আরো কার্যকর হচ্ছে।’

মাইকেল রায়ান আরো বলেন, করোনা নিয়ন্ত্রণে নেওয়া আগের পদক্ষেপগুলো এখনো কার্যকর আছে। তবে এখন সেগুলো আরো দক্ষতার সঙ্গে বাস্তবায়ন করতে হবে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক তেদরোস আধানোম গেব্রেয়াসুস বলেছেন, গত চার সপ্তাহে সংক্রমণ ৮০ শতাংশ বেড়েছে। তিনি আরো বলেন, ‘এখন পর্যন্ত করোনার চারটি ধরন ছড়িয়েছে। আরো নতুন নতুন ধরন আসবে।’

করোনা নিয়ন্ত্রণে আগামী সেপ্টেম্বরের মধ্যে বিশ্বের সব দেশে কমপক্ষে ১০ শতাংশ মানুষকে টিকাদানের আওতায় আনতে চাচ্ছে ডব্লিউএইচও। এ বছরেই দেশগুলোতে ৪০ শতাংশ এবং ২০২২ সালের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে ৭০ মানুষকে টিকা দেওয়ার আশা করছে সংস্থাটি। তবে এই লক্ষ্যমাত্রা থেকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বেশ দূরে আছে বলে উল্লেখ করেছেন তেদরোস আধানোম গেব্রেয়াসুস।

এএফপির দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বে এখন পর্যন্ত ৪০০ কোটির বেশি ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে। তবে এর বেশির ভাগই পেয়েছে উচ্চ আয়ের দেশগুলো। উন্নত এ দেশগুলোতে প্রতি ১০০ জনে ৯৮ ডোজ টিকা পেয়েছেন। অন্যদিকে, নিম্ন আয়ের ২৯টি দেশে প্রতি ১০০ জনের মধ্যে মাত্র ১ দশমিক ৬ ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে। আয়ের ভিত্তিতে দেশগুলোর শ্রেণিবিভাগ করেছে বিশ্ব ব্যাংক। দেশগুলোর মধ্যে টিকাদানের এই অসমতাকে ‘নৈতিক অনাচার’ বলে উল্লেখ করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close