প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

  ১৭ জানুয়ারি, ২০২১

শান্তিপূর্ণ পৌর ভোটে বিচ্ছিন্ন সহিংসতা

কোথাও কোথাও ভোট প্রদানে বাধার অভিযোগ, ভোট বর্জন, বিচ্ছিন্নভাবে সহিংসতার ঘটনা সত্ত্বেও দ্বিতীয় ধাপের ৬০ পৌরসভার ভোট গ্রহণ শান্তিপূর্ণভাবে সংঘটিত হয়েছে। এ ছাড়া নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বসুরহাট পৌর নির্বাচন নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন আওয়ামী লীগের মেয়র পদপ্রার্থী আবদুল কাদের মির্জা এবং বিএনপির মেয়র পদপ্রার্থী কামাল উদ্দিন চৌধুরী। অন্যদিকে দু-একটি নগণ্য ঘটনা ছাড়া ভোট সুষ্ঠু ও সুন্দর হয়েছে বলে জানিয়েছেন ইসি সচিব আলমগীর। তিনি গতকাল সন্ধ্যায় নির্বাচন ভবনে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘সার্বিক পরিস্থিতি অত্যন্ত ভালো ছিল। প্রচুর ভোটার উপস্থিতি ছিল। দু-একটি জায়গায় দুষ্কৃতকারীরা অপচেষ্টা করেছে, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে; এটা খুবই নগণ্য ঘটনা।

গতকাল বসুরহাটের এস এম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে আবদুল কাদের মির্জা সাংবাদিকদের বলেন, ‘অত্যন্ত সুন্দর পরিবেশে ভোট গ্রহণ চলছে। জয়ের ব্যাপারে আমি শতভাগ আশাবাদী। সুষ্ঠু নির্বাচন নিশ্চিত করার শপথ নিয়েছিলাম আমি। সেজন্য মাঠে আছি।’ শুরু থেকে তিনি পৌরসভা নির্বাচন নিয়ে নানা আশঙ্কার কথা বলে আসছিলেন।

------
অপরদিকে, বিএনপি প্রার্থী কামাল উদ্দিন চৌধুরী ৯ নম্বর মওদুদ আহমদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে সাংবাদিকদের বলেন, ‘সম্প্রীতির নির্বাচন হচ্ছে। আমি বিজয়ের বিষয়ে শতভাগ আশাবাদী।’ তিনি নির্বাচনের পরিবেশ নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

বিপুল ভোটে আবদুল কাদের মির্জার জয় : বসুরহাটে সত্যবচনে আলোচিত আওয়ামী লীগের আবদুল কাদের মির্জা বেসরকারিভাবে মেয়র পদে বিজয়ী হয়েছেন। জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ রবিউল আলম জানান, আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আবদুল কাদের মির্জা ১০ হাজার ৭৩৮ ভোট পেয়ে বেসরকারি ফলাফলে নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বিএনপির মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী কামাল উদ্দিন চৌধুরী ১ হাজার ৭৭৮ ভোট পেয়েছেন। প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের নির্বাচনী এলাকা হওয়ায় সব সময় আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে ছিল বসুরহাট পৌরসভা।

সান্তাহারে তৃতীয়বারের মতো বিজয়ী তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টু : বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহার পৌরসভায় বিএনপি মেয়র প্রার্থী তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টু তৃতীয়বারের মতো বিজয়ী হয়েছেন। তিনি ভোট পেয়েছেন ৭৭৭৮ তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের আশরাফুল ইসলাম মন্টু পেয়েছেন ৭৪০২ ভোট। আদমদীঘি উপজেলা সহকারী রিটার্নিং অফিসার বেসরকারিভাবে এই ফল ঘোষণা করেন। ভোটারা শান্তিপূর্ণভাবে ভোট প্রদান করেন। এই নির্বাচনে কোনো কেন্দ্রে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

মাহবুব তালুকদার বললেন, এ নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক বলা যায় না : দ্বিতীয় ধাপে দেশের ৬০ পৌরসভায় ভোট চলাকালে সাভারের তিনটি কেন্দ্র পরিদর্শন করে একে ‘অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন’ বলা যায় না বলে অভিমত দিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার। গতকাল বিকালে আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে সাংবাদিকদের কাছে ‘লিখিত বক্তব্যে’ এ কথা বলেন তিনি। পৌর নির্বাচনে সহিংসতা বেড়ে যাওয়া নিয়েও উদ্বেগ জানিয়েছেন তিনি।

মাহবুব তালুকদার বলেন, ‘পৌরসভার নির্বাচনে ক্রমাগত সহিংসতা বেড়ে চলেছে। সহিংসতা ও নির্বাচন একসঙ্গে চলতে পারে না। নির্বাচন প্রক্রিয়ার পরিবর্তন না হলে এই সহিংসতা বন্ধ করা সম্ভব নয়। এ বিষয়ে সবার ঐকমত্য আবশ্যক। যেকোনো নির্বাচনের চেয়ে মানুষের জীবন অনেক বেশি মূল্যবান।’

‘তিনটি বুথে আমি তিনজন বিরোধীদলীয় প্রার্থীর পোলিং এজেন্ট দেখতে পাই, কিন্তু অন্য কোথাও এজেন্ট ছিলেন না। এ ছাড়া সাভার পৌর এলাকায় আমি বিরোধীদলীয় প্রার্থীর কোনো পোস্টার দেখতে পাইনি। এমতাবস্থায় এই নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক বলা যায় না। যেকোনো নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক না হলে তা শুদ্ধ হয় না।’

সাভার পৌর কেন্দ্রে নেই বিএনপির এজেন্ট : সাভার প্রতিনিধি জানান, ঢাকার সাভার পৌরসভা নির্বাচনে বেশির ভাগ কেন্দ্রে বিএনপির কোনো এজেন্ট দেখা যায়নি। এ নিয়ে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মেয়র প্রার্থী বলছেন ভিন্ন কথা। আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আবদুল গণি বলেন, ‘বিএনপির এজেন্ট না থাকলে আমি কী করব? বাড়ি থেকে ধরে এনে তো এজেন্ট দিতে পারব না। বিএনপির এজেন্ট কেউ হতে চান না।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপির প্রার্থী তার নিজের এলাকার কেন্দ্রগুলোও আমি ঘুরেছি। সেখানেও তারা কোনো এজেন্ট দিতে পারেননি।’ তবে বিএনপির মেয়র প্রার্থী রেফাত উল্লাহর দাবি, ‘সব কেন্দ্রেই তিনি এজেন্ট দিয়েছেন কিন্তু ভয়ে কেউ কেন্দ্রে আসেননি।’ কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার ইসহাক হোসেন বলেন, ‘তার কেন্দ্রে বিএনপির কোনো এজেন্ট নেই। কোনো এজেন্ট পরিচয়পত্রও নিতে আসেনি।’

‘শতবর্ষী’ বৃদ্ধার ইচ্ছাপূরণ : ফরিদপুর প্রতিনিধি জানান, মৃত্যুর আগে ‘শতবর্ষী’ এক বৃদ্ধা ফরিদপুরের বোয়ালমারী পৌরসভা নির্বাচনে ভোট দিতে পেরে তার ইচ্ছা পূরণ হয়েছে বলে জানালেন তিনি। গতকাল শনিবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে গুনবহা মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নবিরন নেছা নামের এই প্রবীণজন নাতিকে সঙ্গে করে ভোট দিতে আসেন।

তারা বলছেন, নবিরন নেছার বয়স ১১০ বছর। তিনি পৌর এলাকার প্রয়াত জলিল শেখের স্ত্রী। জলিল মারা গেছেন অনেক আগে। তাদের দুই ছেলেও বেঁচে নেই। এ নাতিই তার দেখাশোনা করেন। ভাঙা ভাঙা গলায় নবিরন নেছা বলেন, ‘বহুত দিন ভোট দেইনি, নাতিরে কইলাম, আমারে লইয়া চল, মরণের আগে একটা ভোট দিমু আমি।’

দাগনভূঁঞায় হাতবোমা বিস্ফোরণে আনসার সদস্য আহত : ফেনী প্রতিনিধি জানান, দাগনভূঁঞা পৌরসভা নির্বাচনে একটি কেন্দ্রে হাতবোমার বিস্ফোরণে এক আনসার সদস্য আহত হয়েছেন। শনিবার সকাল ১০টার দিকে পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের গণিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। দাগনভূঁঞা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) পার্থপ্রতিম দেব এ তথ্য নিশ্চিত করেন। ঘটনার পর পুলিশের পাশাপাশি বিজিবি ও র?্যাব পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে বলে জানান তিনি।

গণিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার মো. ইসমাইল জানান, কেন্দ্রের বাইরে বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটলেও ভেতরে ভোটগ্রহণ চলছে।

ঈশ্বরদীতে সরে দাঁড়িয়েছেন বিএনপি প্রার্থী : পাবনা প্রতিনিধি জানান, ঈশ্বরদীতে মারধর, কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া এবং জোর করে নৌকায় সিল মারাসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ তুলে পৌর নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপি প্রার্থী। শনিবার দুপুর সোয়া ১টার দিকে তার বাসার সামনে গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে এ ঘোষণা দেন বিএনপির প্রার্থী রফিকুল ইসলাম নয়ন। অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘সকালে ইসলামিয়া মাদরাসা কেন্দ্রে ভোট দিতে গেলে নৌকার সমর্থকরা পুলিশের সামনে তাকে মারধর করে। পরে আমার কয়েকজন কর্মীকে মারধর করে একটি মোটরসাইকেল ছিনিয়ে নিয়েছে তারা।’

এ ছাড়া বুথ দখল করে সেখানে নৌকার এজেন্টরা ভোটারদের নৌকায় সিল মারতে বাধ্য করছে। তাই এ অনিয়মতান্ত্রিক ভোট তিনি বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন বলে জানান তিনি।

ভবানীগঞ্জে বিএনপি প্রার্থীর ভোট বর্জন : বাগমারা (রাজশাহী) প্রতিনিধি জানান, রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার ভবানীগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচনে ভোট বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপি প্রার্থী আবদুর রাজ্জাক। ভোট দিতে কেন্দ্রে যেতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ তুলে তিনি ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন।

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, সকাল ১০টার দিকে কয়েকজন সমর্থক নিয়ে তিনি শহীদ সেকেন্দার মেমোরিয়াল উচ্চবিদ্যালয়ে ভোট দিতে যাচ্ছিলেন। এ সময় আওয়ামী লীগ প্রার্থী সমর্থকরা তাকে কেন্দ্রে যেতে বাধা দেয় এবং লাঞ্ছিত করে। পরে ভোট না দিয়ে সেখান থেকে ফিরে আসতে হয়েছে। বিষয়টি সঙ্গে সঙ্গে রিটার্নিং অফিসারকে জানানো হলেও কোনো পদক্ষেপ নেয়নি বলে অভিযোগ করেন তিনি।

রাজশাহী জেলা প্রশাসক ভোটকেন্দ্রে পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের বলেন, পৌরসভার সব কেন্দ্রে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট হয়েছে। কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার অভিযোগ পাইনি। ফলে ভোট বর্জনের কোনো পরিস্থিতি তৈরি হয়নি।

বিএনপির দাবি, ‘গায়ের জোরে’ ভোট : পৌর নির্বাচনের ভোটকেন্দ্রগুলোয় ধানের শীষের সমর্থক এমনকি প্রার্থীদের ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। শনিবার ঢাকায় সাংবাদিকদের কাছে এই অভিযোগ করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন। তিনি বলেন, ‘আমরা যতটুকু খবর পেয়েছি, আজকের পৌরসভার নির্বাচনে ক্ষমতাসীনরা সকাল থেকেই আমাদের এজেন্টদের সেন্টারে যেতে দেয়নি, অনেক জায়গায় বের করে দিয়েছে, বিএনপি সমর্থকদের ভোটকেন্দ্রের কাছেও যেতে দিচ্ছে না।’

খন্দকার মোশাররফ বলেন, ‘তারা গায়ের জোরে ভোটকেন্দ্র দখল করেছে। জাতীয় নির্বাচনের মতো পৌরসভা নির্বাচনেও তারা একই ধরনের কাজ করছে।’

তিনি বলেন, ‘ভোটকেন্দ্রের অবস্থা যে কী, তা আওয়ামী লীগের নেতারা কিছু কিছু মুখ খুলতে শুরু করেছে। আমি আর বলতে চাই না।’

ইভিএমে ভোটগ্রহণের বিরোধিতা করে খন্দকার মোশাররফ বলেন, ‘এমনিতেই মানুষ ভোট দিতে পারে না, এখন আবার মেশিনে ভোট। এই মেশিনে ভোটে দূরভিসন্ধি আছে।’

গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে মুক্তিযুদ্ধের রজতজয়ন্তী উদ্যাপন উপলক্ষে গঠিত সম্মাননাবিষয়ক উপকমিটির বৈঠকের পর সাংবাদিকদের সামনে আসেন মোশাররফ।

মোংলায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী জয়ী : মোংলা পোর্ট পৌরসভায় আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের মেয়র প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আবদুর রহমান ১১ হাজার ৫৮৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ধানের শীষ নিয়ে নির্বাচন করা বিএনপির জুলফিকার আলী পেয়েছেন ৫৮২ ভোট।

মনোহরদীতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী নর্বাচিত : নরসিংদীর মনোহরদী পৌরসভায় আওয়ামী লীগের আমিনুর রশিদ সুজন বেসরকারিভাবে মেয়র পদে নির্বাচিত হয়েছেন। শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ হয়েছে বলে দাবি করেছেন কর্মকর্তারা।

ঝিনাইদহের শৈলকুপায় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী বিজয়ী : ঝিনাইদহের শৈলকুপা পৌরসভা নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আশরাফুল আজম ১০,৮৮৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম স্বতন্ত্র প্রার্থী (বিদ্রোহী আওয়ামী লীগ) মো. তৈয়বুর রহমান খান জগ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৭,২৮১ ভোট।

সিরাজগঞ্জে দুই পৌরসভায় ভোট বর্জন : সিরাজগঞ্জে ৫টি পৌরসভায় সুষ্ঠুভাবে ভোট গ্রহণ শুরু হলেও অনিয়মের অভিযোগে উল্লাপাড়ায় ভোট বর্জন করেন বিএনপি প্রার্থী আজাদ হোসেন। এ ছাড়া সিরাজগঞ্জ সদরে বুথের বাইরে মেয়র পদে প্রকাশে নৌকায় সিল দিয়ে ভোট নেওয়ার অভিযোগ করেন বিএনপি প্রার্থী সাইদুর রহমান বাচ্চু। বিকাল সাড়ে ৪টায় জেলা বিএনপি কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি নির্বাচন বর্জন করেন।

কাকনহাটে মেয়র নির্বাচিত আ.লীগের আতাউর রহমান খান : রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার কাকনহাট পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের এ কে এম আতাউর রহমান খান। তিনি ৪৬৩ ভোট বেশি পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হন।

গাংনী পৌরসভায় আ.লীগের আহম্মেদ আলী বিজয়ী : মেহেরপুরের গাংনী পৌরসভায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আহম্মেদ আলী (নৌকা) ৯ হাজার ৪৬০ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র মেয়র আশরাফুল ইসলাম ভেন্ডার (জগ) পেয়েছেন ২ হাজার ৬৫১ ভোট।

কমলগঞ্জে আ.লীগের প্রার্থী বিজয়ী : মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. জুয়েল আহমদ (নৌকা) আবার নির্বাচিত হয়েছেন। কমলগঞ্জ পৌরসভায় ৫ হাজার ২৫৭টি ভোট পেয়ে দ্বিতীয়বারের মতো মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী জুয়েল আহমেদ। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী মো. হেলাল মিয়া ভোট পেয়েছেন ২ হাজার ৮০৬টি।

ভবানীগঞ্জে আ.লীগ প্রার্থী বিজয়ী : রাজশাহীর বাগমারার ভবানীগঞ্জ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী আবদুল মালেক ম-ল বেসরকারিভাবে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। বেসরকারিভাবে ফলাফলে তিনি প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর চেয়ে ৪ হাজার ৭০০ ভোট বেশি পেয়ে মেয়র নির্বাচিত হন।

এ ছাড়া খাগড়াছড়িতে নৌকার প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্মলেন্দু চৌধুরী বেসরকারিভাবে ৯ হাজার ৩২ ভোট পেয়ে জয়লাভ করেছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিদ্রোহী প্রার্থী মোবাইল প্রতীক নিয়ে মো. রফিকুল আলম পেয়েছেন ৮ হাজার ৭৪৯ ভোট এবং হবিগঞ্জের মাধবপুর পৌরসভায় বিএনপির হাবিবুর রহমান মানিক বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি আওয়ামী লীগের (নৌকা) প্রার্থীর চেয়ে আট গুণের বেশি ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন।

 

 

"

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close