reporterঅনলাইন ডেস্ক
  ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১

কেমন চলছে অনলাইন বিতর্ক চর্চা

করোনা মহামারিতে থমকে ছিল গোটা পৃথিবী। ব্যতিক্রম নয় বাংলাদেশও। করোনা মহামারির কারণে দেড় বছরেরও বেশি সময় ধরে বন্ধ দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। তবুও বন্ধ নেই বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর বিতর্ক চর্চা। বিতার্কিকরা অনলাইন প্ল্যাটফরমে নিয়মিত চালিয়ে যাচ্ছেন তাদের বিতর্কচর্চা। বিস্তারিত জানাচ্ছেন নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মো. ফাহাদ হোসেন

বিতর্ক এখন অনলাইন অ্যাপে

জাহাঙ্গীরনগর ইউনিভার্সিটি ডিবেট অর্গানাইজেশন (জেইউডিও)-এর সদস্যরা একত্রিত হয়ে মস্তিষ্কের সুস্থ পরিচর্যার হাতিয়ার ‘বিতর্ক’ চর্চায় তাদের বিকেলগুলো অতিবাহিত হতো; ঠিক সেই বিকেলগুলোই ভার্চুয়ালি অনলাইন অ্যাপ ‘ডিসকোর্ড’-এর মাধ্যমে ফিরে এসেছে। তবে অনলাইন বিতর্কের মৌলিক কিছু চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হচ্ছে। তৃতীয় বিশ্বের উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে বসবাস করায় মফস্বল বা প্রত্যন্ত অঞ্চলে ইন্টারনেটের গতিজনিত চ্যালেঞ্জটি মোকাবিলা করা অন্যতম কঠিন কাজ ছিল।

উচ্চ গতির ইন্টারনেট সুবিধা থাকলেও অনেকের হয়তো ডিসকর্ডের মতো অ্যাপগুলোতে এসে বিতর্ক করার ডিভাইস সীমাবদ্ধতা ছিল। বিতর্কে প্রতিপক্ষের চোখে চোখ রেখে যুক্তি দেওয়ার যে স্বাদ, সেটি অনলাইনে না থাকায় অনেক সিনিয়র বিতার্কিক সংশ্লিষ্টতা থেকে দূরে থাকার সিদ্ধান্ত নেয় যা পুরো বিতর্ক পরিবারকেই আদর্শ বিতর্ক বিচারকের সংকটের সম্মুখীন করে তোলে। তবে এই কিছু মৌলিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে জেইউডিও’র সদস্যরা অভূতপূর্ব সাড়া প্রদান করে।

ফারহান আনজুম করিম

সাধারণ সম্পাদক, জাহাঙ্গীরনগর ইউনিভার্সিটি ডিবেট অর্গানাইজেশন (জেইউডিও)।

 

বিতর্ক বিপ্লবের ছোঁয়া এনেছে অনলাইন বিতর্ক

অ্যাকাডেমিক পড়াশোনা কিংবা ভার্সিটি জীবনের প্রাণচাঞ্চল্য থমকে গিয়ে দমবন্ধ পরিস্থিতিতে বিতর্কের জগতে স্বস্তির ছোঁয়া এনে দেয় অনলাইন বিতর্ক চর্চা। যদিও ডায়াসে দাঁড়িয়ে হাত নাড়িয়ে কিংবা বিচিত্র শারীরিক অভিব্যক্তি প্রয়োগে প্রতিপক্ষের মনে ভয় ধরিয়ে দেওয়া, বিতর্কের সুবাদে দেশের আনাচে কানাচে ঘুরে বেড়ানোর সুযোগ হয়তো এই অনলাইন দেয় না, তারপরও সে ‘অন্ধের যষ্ঠি’ হয়ে উঠে। বাংলাদেশে বিতর্ক বিপ্লবের যে ছোঁয়া এই অনলাইন মাধ্যম এনে দিয়েছে তা চলতে থাকুক, বিতর্ক পৌঁছে যাক দেশের আনাচে কানাচে, হয়ে উঠুক গণমুক্তির তলোয়ার।

সৈয়দ মুমতাহিম মান্নান সিয়াম

সভাপতি, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটি।

 

বিতর্ক চর্চার আয়োজন থেমে নেই

প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটি ডিবেটিং সোসাইটির হয়ে গত সাড়ে তিন বছরের বিতর্ক জীবনে অফলাইন-অনলাইন দুই প্ল্যাটফর্মেই বিতর্ক করার সৌভাগ্য হয়েছে আমার। ট্রফি, যুক্তির বাণ এসবের চেয়েও বর্তমান সময়ে অফলাইনে বিতার্কিকদের যে প্রাণোচ্ছল পদচারণা, সেটা বেশ মিস করি। এখন অনলাইনের অসহনীয় যুগে সেই আনন্দের সুযোগ কই! তবুও যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে প্রিমিয়ার ডিবেটিং সোসাইটি বেশ কিছু ঘরোয়া আয়োজন সম্পন্ন করেছে। বিতর্ক কর্মশালার মাধ্যমে উঠিয়ে এনেছে তরুণ বিতার্কিকদের। ভবিষ্যতে দেশসেরা হিসেবে গড়ে তোলার মানসে তাদের প্রতিনিয়ত গ্রুমিং করা হচ্ছে।

আততিহারুল কবির তিহার

সাধারণ সম্পাদক, প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটি ডিবেটিং সোসাইটি।

 

প্রান্তিক অঞ্চলে বিতর্ক চর্চার সুযোগ বৃদ্ধি করেছে

করোনা মহামারিতে একের পর এক লকডাউন, মানসিক স্বাস্থ্যের অবস্থা ভীষণ নি¤œমুখী হতে শুরু করলো। সে সময়ই অনলাইন বিতর্ক সময়টাকে আরো উপযোগী করে কাটানোর খুব বড় নিয়ামক হয়ে দেখা দিলো। সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে দেশের নানা প্রান্তের অনেক প্রান্তিক অঞ্চলের বিতার্কিকদের সঙ্গেও মোবাইল ডাটার সুবাদেই বিতর্ক করা সম্ভব হয়েছে। শেখার, জানার, চর্চার পরিধি বেড়েছে। আশা করি, খুব দ্রুতই ভ্যাকসিনেটেড হয়ে আমরা সবাই ডায়াসে দাঁড়িয়ে বিতর্ক করতে পারবো চিরাচরিত প্রাণবন্ত নিয়মে।

শারমিন সুলতানা নিশি

বিতার্কিক, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটি।

 

সবাইকে একসঙ্গে নিয়ে আসার বড় সুযোগ

অনলাইন বিতর্ক কার্যক্রমে সবচেয়ে চমৎকার দিকটি হলো দেশের সব জায়গায় বিতার্কিকদের একই প্ল্যাটফরমে নিয়ে আসা। যা অফলাইন বিতর্কে সহজে ভাবা যেত না। প্রতিনিয়ত নতুন নতুন বিতার্কিকদের সঙ্গে প্রবীণ বিতার্কিকদের নিয়মিত টুর্নামেন্টে বিতর্ক চর্চা, বিতর্ক নিয়ে আলোচনা ও বিচারকার্য সুযোগটি অনলাইন বিতর্ক কার্যক্রমে সম্ভব হচ্ছে। এর মাধ্যমে প্রবীণ বিতার্কিকদের সান্নিধ্য সহজেই পাচ্ছে নবীন বিতার্কিকরা। যা আগে অফলাইনে খুবই সীমিত পরিসরে হওয়া সম্ভব ছিল। এছাড়াও অনলাইন বিতর্ক প্ল্যাটফরমে নতুন বিতার্কিকদের শেখার ও বিতর্ক চর্চার সুযোগকে বৃদ্ধি করেছে।

সাইফুদ্দিন রিফাত

সভাপতি, পিএডিএফ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close