প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

  ০৭ ডিসেম্বর, ২০২২

ইউক্রেনের বিভিন্ন শহরে রুশ ক্ষেপণাস্ত্র হামলা

* মানবিক বিপর্যয়ের আশঙ্কা * অনেক বাড়িঘর ধ্বংস * বহু এলাকা বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন

যুদ্ধবিধ্বস্ত ইউক্রেনের বিভিন্ন শহরে নতুন করে ব্যাপক ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে রাশিয়া। রুশ সামরিক বাহিনীর দুটি বিমানঘাঁটিতে বিস্ফোরণে হতাহতের ঘটনার পর ব্যাপক এই হামলা চালানো হয়। আর এরপরই মানবিক বিপর্যয়ের শঙ্কার কথা জানিয়েছে ইউক্রেন।

মঙ্গলবার (৬ ডিসেম্বর) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স। মূলত সোমবার ইউক্রেনের দক্ষিণপূর্বাঞ্চলে রাশিয়ার এই ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় অন্তত চারজন নিহত ও অনেক বাড়িঘর ধ্বংস হয়ে যায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নতুন করে রুশ ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর দেশের কয়েকটি অঞ্চলে আবারও জরুরি ব্ল্যাকআউট হবে বলে সতর্ক করেছে ইউক্রেন। দেশটির দাবি, রুশ হামলা ইউক্রেনীয়দের বাড়িঘর ধ্বংস করে দিয়েছে এবং বহু এলাকাকে বিদ্যুৎবিহীন করে দিয়েছে। যদিও ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে ওঠার কাজ করছে ইউক্রেন।

রয়টার্স বলছে, ইউক্রেনজুড়ে নতুন করে রুশ ক্ষেপণাস্ত্র হামলার শঙ্কা বেশ কয়েকদিন ধরেই করা হচ্ছিল। আর সোমবারই সেই রুশ হামলা হয়, আর সেটিও ঠিক এমন এক সময়ে যখন আগের রুশ হামলার জের ধরে সৃষ্ট ক্ষতি কাটিয়ে ওঠে ইমারজেন্সি ব্লাকআউট শেষ হওয়ার পথে ছিল।

ইউক্রেনের কিছু অংশে শূন্য ডিগ্রি সেলসিয়াস (৩২ ফারেনহাইট) এর নিচে তাপমাত্রা রয়েছে এবং এই পরিস্থিতিতে সর্বশেষ রুশ এই হামলা ইউক্রেনীয় এলাকাগুলোকে অন্ধকারে নিমজ্জিত করে। এছাড়া এই হামলায় অন্তত চারজন নিহত হয়েছেন বলে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেছেন। তার দাবি, প্রায় ৭০টি ক্ষেপণাস্ত্রের অধিকাংশই গুলি করে ভূপাতিত করা হয়েছে। সোমবার গভীর রাতে দেওয়া এক ভিডিও বার্তায় জেলেনস্কি আরো বলেন, অনেক অঞ্চলে, ইমারজেন্সি ব্ল্যাকআউট হবে। তবে স্থিতিশীলতা পুনরুদ্ধারের জন্য আমরা সবকিছু করব।

সংবাদমাধ্যম বলছে, রাশিয়া সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে ইউক্রেনে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা বাড়িয়েছে। মূলত, ক্রিমিয়া উপদ্বীপের সঙ্গে রাশিয়াকে সংযুক্তকারী ইউরোপের বৃহত্তম রেল ও সড়ক সেতুতে ভয়াবহ বিস্ফোরণ ও অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার প্রতিশোধ হিসেবে গত ৮ অক্টোবর থেকে ইউক্রেনের জ্বালানি নেটওয়ার্ক ও অবকাঠামোগুলোতে আক্রমণ শুরু করে রাশিয়া।

এর মধ্যে গত মাসে অধিকৃত ক্রিমিয়া উপদ্বীপের বৃহত্তম বন্দরনগরী সেভাস্তোপলের কাছে কৃষ্ণ সাগরে রুশ নৌবহরে ড্রোন হামলার ঘটনা ঘটে। এরপর বেশ কয়েক দফায় ইউক্রেনের জ্বালানি স্থাপনা লক্ষ্য করে রাশিয়া কার্যত ক্ষেপণাস্ত্র বৃষ্টি চালায়। মূলত সম্মুখসারির যুদ্ধে ব্যর্থতার পর রাশিয়ার সাম্প্রতিক এসব হামলা একটি বিস্তৃত কৌশলের অংশ এবং শীত শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ইউক্রেনে রুশ এই কৌশলের প্রভাব আরো তীব্রভাবে অনুভূত হতে শুরু করেছে।

রাশিয়ার দুই বিমানঘাঁটিতে বিস্ফোরণ : রাশিয়ায় দেশটির সামরিক বাহিনীর দুটি বিমানঘাঁটিতে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এতে বেশ কয়েকজন হতাহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। আক্রান্ত দুই বিমানঘাঁটির অবস্থান রাশিয়ার ইউক্রেন সীমান্ত থেকে কয়েকশ কিলোমিটার দূরে। তাৎক্ষণিকভাবে এসব বিস্ফোরণের কারণ জানা যায়নি। তবে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে এ সম্পর্কে অবগত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ।

রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, রিয়াজান শহর সংলগ্ন বিমানঘাঁটিতে একটি জ্বালানি ট্যাংকার বিস্ফোরিত হয়েছে। মস্কোর দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় ওই ঘাঁটিতে এই বিস্ফোরণে অন্তত তিনজন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে কমপক্ষে আরো ছয়জন।

সারাতোভ অঞ্চলের এঙ্গেলস বিমানঘাঁটিতে বিস্ফোরণে আরো দুজন আহতের খবর পাওয়া গেছে। মনে করা হয়, এই ঘাঁটিতে মস্কোর কৌশলগত দূরপাল্লার যাবতীয় বোমারু বিমান নোঙ্গর করা আছে।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close