প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

  ১৫ মে, ২০২২

রাশিয়ার সঙ্গে যোগ দিতে

গণভোটে যাচ্ছে দক্ষিণ ওসেটিয়া

রাশিয়ার সঙ্গে যোগ দিতে দক্ষিণ ওসেটিয়া গণভোটের আয়োজন করতে যাচ্ছে। দেশটির প্রেসিডেন্ট আনাতোলি বিবিলভ এ বিষয়ে একটি ডিক্রিতে সই করেছেন। খবর তাস ও গার্ডিয়ানের। ১৭ জুলাই এ গণভোট অনুষ্ঠিত হবে। ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলা শুরুর ৭৯তম দিনে এ ঘোষণা এলো।

ইউক্রেনের দোনেৎস্ক ও লুহানস্কও রাশিয়ার সঙ্গে যোগ দিতে আগ্রহী। শুক্রবার দক্ষিণ ওসেটিয়ার প্রেসিডেন্টের ওয়েবসাইটে ডিক্রিটি পোস্ট করা হয়। এতে বলা হয়, দক্ষিণ ওসেটিয়ার সংবিধান অনুযায়ী আমি সিদ্ধান্ত নিচ্ছি যে, ১৭ জুলাই (রাশিয়ার সঙ্গে যোগ দেওয়ার জন্য) দক্ষিণ ওসেটিয়ায় গণভোট অনুষ্ঠিত হবে। বিবিলভ টেলিগ্রামে লেখেন, আমরা ঘরে ফিরছি। সময় এসেছে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার। দক্ষিণ ওসেটিয়া ও রাশিয়া একসঙ্গে হবে। এটি একটি নতুন বড় গল্পের শুরু।

এর আগে অঞ্চলটির এ প্রেসিডেন্ট ৩০ মার্চ বলেছিলেন, রাশিয়ার সঙ্গে যোগ দেওয়ার জন্য দক্ষিণ ওসেটিয়া আইনগত পদক্ষেপ নেবে। বিবিলভ চলতি মাসে হওয়া নির্বাচনে হেরে গেছেন। রাশিয়ার আশা, নতুন নেতা অ্যালান গাগ্লোভ মস্কোর সঙ্গে সম্পর্কের ‘ধারাবাহিকতা’ বজায় রাখবেন। এর আগে রাশিয়ার সঙ্গে যোগ দিতে দক্ষিণ ওসেটিয়ায় গণভোট আয়োজনের যেকোনো ধরনের পরিকল্পনা ‘অগ্রহণযোগ্য’ বলে নিন্দা জানিয়েছিল জর্জিয়া।

দক্ষিণ ওসেটিয়া ও আবখাজিয়াকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার পর ২০০৮ সালে রাশিয়া ও জর্জিয়ার মধ্যে হওয়া যুদ্ধের কেন্দ্র ছিল দক্ষিণ ওসেটিয়া। ২০০৮ সালের আগস্টে রাশিয়া জর্জিয়ায় হামলা শুরু করে। যদিও ইউরোপীয় ইউনিয়নের মধ্যস্থতায় পাঁচ দিন পর যুদ্ধবিরতি কার্যকর হয়। কিন্তু এরই মধ্যে ৭০০ মানুষের মৃত্যু হয়, বাস্তুচ্যুত হন হাজার হাজার জর্জিয়ান।

সীমান্তের কাছে ন্যাটো এলে জবাব দেবে রাশিয়া

পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটোতে যোগ দিতে শিগগিরই আবেদন করতে যাচ্ছে ইউরোপের দুই দেশ ফিনল্যান্ড ও সুইডেন। এ নিয়ে সতর্ক করে রাশিয়া বলছে, ন্যাটোয় যোগ দিলে ওই অঞ্চলে ব্যাপক ‘সামরিকায়ন’ হবে। রুশ সীমান্তের কাছে ন্যাটো পারমাণবিক অস্ত্র মোতায়েন করলে প্রতিক্রিয়া জানাতে প্রস্তুত মস্কো। শনিবার সংবাদমাধ্যম বিবিসি ও আল জাজিরার প্রতিবেদনে এ খবর জানা গেছে।

রাশিয়ার উপণ্ডপররাষ্ট্রমন্ত্রী আলেক্সেন্ডার গ্রুশকো বলেন, রাশিয়া জানে ন্যাটো তার নাগালের মধ্যে সবকিছু সামরিকায়ন করতে চায়। আর ন্যাটোর সম্প্রসারণ রাশিয়ার মধ্যে রাজনৈতিক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হবে। গ্রুশকো আরো বলেন, মস্কোর প্রতিক্রিয়া আবেগের ওপর ভিত্তিতে হবে না, পরিস্থিতি পর্যালোচনা করেই নেওয়া হবে। ন্যাটোতে যোগ না দিতে সুইডেন ও ফিনল্যান্ডকে সতর্ক করে আসছে রাশিয়া।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close