প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

  ১৮ জানুয়ারি, ২০২২

ঝড়ে বিপর্যস্ত যুক্তরাষ্ট্র-কানাডা

যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডার কিছু অংশে বড় ধরনের একটি শীতকালীন ঝড় আঘাত হেনেছে। উপদ্রুত এলাকায় ভারী তুষারপাতের ঘটনা ঘটেছে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আবহাওয়া সতর্কতার আওতায় রয়েছে ৮০ মিলিয়নেরও বেশি মানুষ। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে দুই দেশে হাজার হাজার ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। বিদ্যুৎবিহীন অবস্থায় রয়েছে ১ লাখ ৪৫ হাজারেরও বেশি মানুষ। খবর বিবিসি ও রয়টার্সের।

কিছু এলাকায় এক ফুটেরও বেশি তুষারপাতের আশঙ্কার কথা জানিয়েছে ইউএস ন্যাশনাল ওয়েদার সার্ভিস (এনডব্লিউএস)। তুষারপাতের ফলে বিদ্যুৎ বিভ্রাট এবং গাছপালার ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে লোকজনকে সতর্ক করে দিয়েছে তারা। এ ছাড়া এ সময়ে কোনো যাত্রা বা ভ্রমণ বিপজ্জনক হতে পারে বলেও সতর্ক করেছে সংস্থাটি।

নিউইয়র্ক সিটি এবং কানেকটিকাটের কিছু অংশসহ কিছু এলাকায় সম্ভাব্য উপকূলীয় বন্যার পূর্বাভাস দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এ ছাড়া রাস্তাঘাট ও অবকাঠামোরও ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা করা হচ্ছে। খারাপ আবহাওয়া ও শীতকালীন ঝড়ের কারণে যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে ২ হাজার ৭০০-এর বেশি ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে।

ফ্লাইট ট্র্যাকিং ওয়েবসাইট ফ্লাইটঅ্যাওয়ার ডট কমের তথ্যানুযায়ী, স্থানীয় সময় রবিবার সাড়ে ১২টা পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে ২ হাজার ৭০০-এর বেশি ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। এরমধ্যে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ, বহির্গমন এবং অভ্যন্তরীণ ফ্লাইটও রয়েছে। এ ছাড়া দেড় হাজারের বেশি ফ্লাইট নির্ধারিত শিডিউলের চেয়ে বিলম্বে যাত্রা শুরু করেছে বলেও পরিসংখ্যানে দেখা গেছে।

ফ্লাইটঅ্যাওয়ার ওয়েবসাইটের তথ্য বলছে, সবচেয়ে বেশি ফ্লাইট বাতিল করা এয়ারলাইন্সগুলোর মধ্যে সবার ওপরে রয়েছে আমেরিকান এয়ারলাইন্স। গত রবিবার এয়ারলাইন্সটি তাদের ছয় শতাধিক ফ্লাইট বাতিল করে।

নর্থ ক্যারোলিনার শার্লোট ডগলাস আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরটি আমেরিকান এয়ারলাইন্সের অন্যতম কেন্দ্র বলে পরিচিত। গত রবিবার এই বিমানবন্দরের নির্ধারিত প্রায় ৯৫ শতাংশ ফ্লাইটই বাতিল হয়ে গেছে। অবশ্য খারাপ আবহাওয়ার কারণে ফ্লাইট বাতিল হওয়ায় গ্রাহকদের বিনামূল্যে পুনরায় ফ্লাইট বুকিংয়ের সুযোগ দিচ্ছে আমেরিকান এয়ারলাইন্স।

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের পূর্বাঞ্চলে বড় ধরনের শীতকালীন ঝড়ের আশঙ্কা রয়েছে। এ সময় বেশ ভালো পরিমাণ তুষারপাত হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

শীতকালীন এই ঝড়ের সময় ক্যারোলিনা অঞ্চলে সর্বোচ্চ তুষারপাতের আশঙ্কা করছে মার্কিন আবহাওয়া দপ্তর। এতে করে ওই অঞ্চলে যোগাযোগ ব্যবস্থার ওপর বড় ধরনের প্রভাব পড়তে পারে। এ ছাড়া স্থানীয় সময় শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত প্রায় ৭ কোটি ৪০ লাখ মানুষের ওপর আবহাওয়া সতর্কতাও জারি করেছে সংস্থাটি।

পরে রবিবার দেওয়া এক টুইট বার্তায়, দুর্যোগের পূর্বাভাস রয়েছে এমন এলাকায় অপ্রয়োজনীয় ভ্রমণ এড়িয়ে চলতে জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যের গভর্নর ব্রিয়ান কেম্প। এ ছাড়া ঝড়ের কারণে নিজ নিজ অঙ্গরাজ্যে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছেন জর্জিয়া, ভার্জিনিয়া, নর্থ ক্যারোলিনা এবং সাউথ ক্যারোলিনার গভর্নররা।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close