প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

  ১০ অক্টোবর, ২০২১

তালেবান-যুক্তরাষ্ট্র বৈঠক দোহায়

আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের পর প্রথমবারের মতো তালেবানের নতুন সরকারের সঙ্গে বৈঠকে বসেছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধিদল। কাতারের দোহায় স্থানীয় সময় শনিবার বৈঠক শুরু হয়। রবিবার পর্যন্ত চলবে মুখোমুখি এ বৈঠক। যুক্তরাষ্ট্রের দুই শীর্ষ কর্মকর্তা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। খবর রয়টার্সের।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধিদের মধ্যে রয়েছেন স্টেট ডিপার্টমেন্টের সহকারী বিশেষ প্রতিনিধি টম ওয়েস্ট, ইউএসএআইডির শীর্ষ মানবাধিকার কর্মকর্তা সারাহ চার্লস। অন্যদিকে তালেবানের পক্ষ থেকে বৈঠকে অংশ নিচ্ছেন কেবিনেট সদস্যরা। দলের নেতৃত্বে রয়েছেন তালেবান সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোল্লা আমির মোত্তাকি। যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষ প্রতিনিধি জালমেই খালিলজাদ, যিনি যুক্তরাষ্ট্র ও তালেবানের মধ্যে শান্তিচুক্তি করার প্রক্রিয়ায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন, তিনি এই প্রতিনিধিদলে নেই।

যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্টের কর্মকর্তা, ইউএসএআইডি এবং গোয়েন্দা কর্মকর্তারা বৈঠকে আফগানিস্তানে মার্কিন নাগরিকসহ দোভাষীদের নিরাপত্তার ইস্যুটি উত্থাপন করবেন। যুক্তরাষ্ট্রের অপহৃত নাগরিক মার্ক ফ্রেরিচসকে মুক্তি দেওয়ার ব্যাপারেও কথা বলবেন তারা। বৈঠকে আরো প্রাধান্য পাবে আল কায়েদাকে আশ্রয় না দেওয়ার বিষয়টিও। আফগানিস্তানের বর্তমান অর্থনৈতিক পরিস্থিতিও পর্যালোচনা করা হবে।

দোহায় অবস্থানরত তালেবান মুখপাত্র সুহাইল শাহিন বলেন, আলোচনায় ২০২০ সালে স্বাক্ষরিত তালেবান-ওয়াশিংটন শান্তিচুক্তি পুনর্বিবেচনা হবে। ওই চুক্তিই মার্কিন বাহিনীর আফগানিস্তান ত্যাগের পথ সুগম করে।

তিনি বলেন, বৈঠকে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক এবং দোহা চুক্তির বাস্তবায়নসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে।

আরেকজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বৈঠকে সন্ত্রাসবাদ নিয়েও আলোচনা হবে। তবে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলার দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি না হওয়ায় তিনি নাম প্রকাশে রাজি হননি।

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল গত ১৫ আগস্ট দখল করে নেয় তালেবান। পালিয়ে দেশ ছাড়েন প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি। একপর্যায়ে তালেবানের সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে আফগানিস্তান ছাড়ে মার্কিন বাহিনী। ২০ বছরের আফগানযুদ্ধের অবসান ঘটিয়ে গত ৩১ আগস্ট দেশটি থেকে সেনা প্রত্যাহার সমাপ্তি ঘোষণা করে যুক্তরাষ্ট্র। আফগানিস্তান থেকে সরিয়ে নেওয়া হয় ১ লাখ ২৪ হাজার আমেরিকান এবং আফগান দোভাষীকে। কিন্তু সময়মতো লোকজন সরাতে না পেরে ঝুঁকির মধ্যে পড়েন আফগান দোভাষীরা, যারা গত ২০ বছর ধরে আমেরিকা ও তাদের মিত্রদের সহযোগিতা করেছেন। দেশটি থেকে যুক্তরাষ্ট্রের সেনা প্রত্যাহারের পর তালেবানের সঙ্গে মার্কিন কর্মকর্তাদের এটিই প্রথম আনুষ্ঠানিক বৈঠক।

এমন সময়ে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হচ্ছে যখন অরাজনৈতিক পরিস্থিতির মধ্যে দেশটির অর্থনীতিতে ধস নেমে এসেছে। বন্ধ হয়ে যায় বিদেশি সহায়তা। খাবারের সংকটে পড়ে আফগানরা তোশক-বালিশও বিক্রি করেছেন এমন খবরও পাওয়া গেছে। তালেবানের নতুন সরকারের প্রায় দুই মাস হতে চললেও আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পাওয়ার বিষয়টি এখনো প্রশ্নবিদ্ধ। ফলে নানা ধরনের সংকট আর ভয়-ভীতির মধ্য দিয়ে দিন কাটাচ্ছেন আফগানরা। এরই মধ্যে আফগানিস্তানে আইএসের হামলা বেড়ে গেছে। তারা তালেবানকে শত্রু হিসেবে বিবেচনা করে থাকে। এর আগে তালেবানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন হামলার দায় স্বীকার করেছে আইএস। সর্বশেষ গত শুক্রবার কুন্দুজ প্রদেশের শিয়া মসজিদে আত্মঘাতী বোমা হামলার দায় স্বীকার করেছে আইএস। ওই বিস্ফোরণে অন্তত ৫০ জন নিহত হন। এসব নিয়ে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে তালেবান।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close