প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

  ০২ ডিসেম্বর, ২০২০

কাশ্মীর ইস্যুতে সরব ওআইসি

তীব্র নিন্দা ভারতের

ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীর ইস্যুতে সর্বসম্মতভাবে একটি প্রস্তাব অনুমোদন করেছে ৫৭টি মুসলিম দেশের জোট অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কোঅপারেশন (ওআইসি)। প্রস্তাবে ভারতের সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল করে জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলের নিন্দা ও ওই সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের জন্যও ভারতকে আহ্বান জানানো হয়েছে। একই সঙ্গে কাশ্মীরে মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছে ওআইসির প্রস্তাবে।

জোটভুক্ত দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সাম্প্রতিক এক বৈঠকে এই প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। তবে ওই প্রস্তাবকে ভিত্তিহীন বলে প্রত্যাখ্যান করেছে ভারত। দিল্লির অভিযোগ পাকিস্তানের উসকানিতে জোটটি এই প্রস্তাব অনুমোদন করেছে। খবর বিবিসি ও টাইমস অব ইন্ডিয়ার।

------
নাইজারে গত রবিবার অনুষ্ঠিত হয়েছে ওআইসির পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠক। দুই দিনের এই বৈঠকের মূল সূচিতে কাশ্মীর ইস্যু ছিল না। তবে প্রথম দিনের আলোচনাতে বিষয়টি তুলে আনেন সৌদি আরব, তুরস্ক এবং নাইজারের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা। পরে বৈঠক শেষে যে প্রস্তাব অনুমোদন করা হয় তাতে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের মুসলমানদের প্রতি সর্বসম্মত সমর্থন জানানো হয়।

এছাড়া কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের আহ্বান জানানো হয়।

ভারতশাসিত কাশ্মীরে মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছে ওআইসির প্রস্তাবে। এতে কাশ্মীরে ‘ভুয়া এনকাউন্টার’ করে বিচারবহির্ভূত হত্যা, ‘তল্লাশি ও ঘেরাও’ অভিযান এবং শাস্তির কৌশল হিসেবে কাশ্মীরিদের ঘরবাড়ি এবং ব্যক্তিগত সম্পত্তি গুঁড়িয়ে দেওয়া, সাধারণ মানুষের ওপর ‘পেলেট’ বুলেট ছোড়া এবং ‘ভারতীয় সেনাদের হাতে কাশ্মীরি নারীদের হেনস্তার’ নিন্দা করা হয়েছে।

ভারত যেভাবে কাশ্মীরে ‘আন্তর্জাতিক এবং আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইন লঙ্ঘন করছে, আন্তর্জাতিক প্রস্তাব অগ্রাহ্য করছে’ তার বিবেচনায় ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক ‘পুনর্বিবেচনা’ করতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে ওআইসির প্রস্তাবে।

ওআইসি আবার বলেছে, কাশ্মীর একটি অমীমাংসিত ইস্যু এবং ‘নিজেদের ভাগ্য নির্ধারণে কাশ্মীরিদের অধিকারের বিষয়টি জাতিসংঘের এজেন্ডাতে থাকলেও গত ৭০ বছর ধরে অমীমাংসিত রয়ে গেছে।’

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ওই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে জোরালো বিবৃতি দিয়েছে। ওই বিবৃতিতে বলা হয়েছে, কাশ্মীর ইস্যু একান্তই ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। এইখানে হস্তক্ষেপের অধিকার ওআইসির নেই। ওই বিবৃতিতে কাশ্মীরকে ভারতের অবিভক্ত অংশ বলে দাবি করা হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, দুঃখজনক যে ওআইসি এখনো একটি দেশের জন্য ব্যবহৃত হওয়াকে অনুমোদন করছে। পাকিস্তানকে ইঙ্গিত করে ওই বিবৃতিতে বলা হয়, ‘ওই দেশটির ধর্মীয় সহিষ্ণুতা, উগ্রবাদ এবং সংখ্যালঘু নিপীড়নের এবং ভারতবিরোধী প্রচারণা চালানোর জঘন্য রেকর্ড রয়েছে।’ ভবিষ্যতে এই ধরনের মন্তব্য থেকে ওআইসিকে বিরত থাকতে সতর্ক করে দেয় ভারত।

 

 

"

আরও পড়ুন -
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়