লালমনিরহাট প্রতিনিধি

  ০৭ জুলাই, ২০২৪

ভাগ্য উন্নয়ন

অভাব ঘুচিয়েছে পাটের বেণি

বছর পাঁচেক আগে লালমনিরহাট জেলার মধুরাম গ্রামের তুলসি রানীর হাত ধরে পাটের বেণি বানানোর এ কাজে যুক্ত হতে শুরু করেন এলাকার অন্য নারীরা। দেখতে অবিকল চুলের বেণির মতো। তৈরি হয় পাট দিয়ে। তাই এর নাম পাটের বেণি। সাধারণ এ পণ্যটিই ভাগ্য বদলে দিয়েছে ৩ হাজার নারীর। এ বেণি তৈরি করেই এখন তাদের সংসারে বাড়তি আয় হচ্ছে। ঘুচেছে অভাব-অনটন। লালমনিরহাট সদর উপজেলার তিস্তা তীরবর্তী তিনটি ইউনিয়ন রাজপুর, খুনিয়াগাছ ও গোকুন্ডার প্রায় ৬০ শতাংশ মানুষ নদীভাঙনের শিকার। বন্যাপ্রবণ এ এলাকার অনেক বাসিন্দা বসতভিটা ও আবাদি জমি হারিয়ে খাসজমি ও বাঁধের ওপর বসবাস করছেন। দরিদ্রতা ছিল তাদের নিত্যসঙ্গী।

জানা গেছে, বছর পাঁচেক আগে মধুরাম গ্রামের তুলসি রানী (২৭) নামে এক নারীর হাত ধরে পাটের বেণি বানানোর এ কাজে যুক্ত হতে শুরু করেন অন্য নারীরা; যে সংখ্যা এখন ৩ হাজারে পৌঁছেছে। এখান থেকে পাট দিয়ে তৈরি বেণি পাঠানো হয় দেশের বিভিন্ন হস্তশিল্প প্রতিষ্ঠানের কাছে। প্রতিষ্ঠানগুলো এ বেণি দিয়েই তৈরি করে ব্যাগ, পাপোশ ও শতরঞ্জির মতো বিভিন্ন পাটজাত পণ্য। তিস্তাপাড়ের নারীরা মোটা, মাঝারি ও চিকন- এ তিন ধরনের বেণি তৈরি করেন। প্রতি কেজি মোটা বেণি তৈরি করে তারা পান ২৪-৩০ টাকা, মাঝারি বেণিতে পান ৫০-৫৫ টাকা আর চিকন বেণির জন্য পান ৮০-৯০ টাকা পর্যন্ত। একেকজন গড়ে প্রতিদিন ৩-৪ কেজি বেণি তৈরি করতে পারেন। আর এর সবকিছু তারা করেন সাংসারিক কাজকর্মের ফাঁকে ফাঁকে।

এ কাজের মূল উদ্যোক্তা তুলসি রানী। পাটের বেণি তৈরির কাজে যুক্ত করল্যা রানী জানান, এ কাজ করে তিনি প্রতিদিন ১০০-১৫০ টাকা আয় করেন, যা তার অভাবের সংসারে বেশ কাজে লাগে। এছাড়া এ আয়ের টাকা জমিয়েই তিনি মেয়ের বিয়ে দিয়েছেন। মিনা রানী নামে আরেক নারী বলেন, এ আয়টুকুর ব্যবস্থা না থাকলে তিনি তার সন্তানদের স্কুলে পাঠাতে পারতেন না। নদীভাঙনে সব হারানো জান্নাতি বেগমও বলেন, এ এলাকায় তাদের অন্য কোনো কাজের সুযোগ নেই। তাই এখানকার বেশিরভাগ নারী পাটের বেণি তৈরির কাজ বেছে নিয়েছেন। কথা হয় এ কাজের উদ্যোক্তা তুলসি রানীর সঙ্গে। জানান, ভাঙনকবলিত দরিদ্র পরিবারগুলোর কথা ভেবেই কাজটি শুরু করেছিলেন তিনি। বলেন, ‘আমি ওজন করে নারীদের পাট সরবরাহ করি। নারীরা তা দিয়ে বেণি বানিয়ে আবার ওজন করে আমার কাছে জমা দেন। আমার মাধ্যমেই সেগুলো বিভিন্ন হস্তশিল্প প্রতিষ্ঠানে যায়।’ এ কাজের কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহৃত পাট ওইসব প্রতিষ্ঠানই সরবরাহ করে বলেও জানান তুলসি রানী।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close