মৌলভীবাজার প্রতিনিধি

  ১৫ জুন, ২০২৪

সড়কে খানাখন্দ ঝুঁকি নিয়ে চলাচল

মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়ন এবং কমলগঞ্জ উপজেলার পতনউষার ইউনিয়ন। এই দুই ইউনিয়নের মাঝ দিয়ে গেছে আঁতুড়ঘর (চৈত্রঘাট)-শহীদনগর বাজার শীরিষ ওরতল রাস্তা। রাস্তাটির দৈর্ঘ্য সাড়ে ৭ কিলোমিটার। পুরো রাস্তাটি মোটামুটি ভালো। শুধু কুলাউড়া উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়ন অংশে মাত্র অর্ধকিলোমিটার রাস্তায় বিভিন্ন স্থানে খানাখন্দ ও গর্ত। এমনকি খানাখন্দে ভরা। যানবাহন চলাচলে এটি এখন চরম ঝুঁকিপূর্ণ। রাস্তাটির এই অংশে প্রতিদিন মোটর সাইকেল, গাড়ি, অটোরিকশা ব্যবহারকারী এবং পথচারীদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

গতকাল শুক্রবার বিকেলে সরজমিন ওই রাস্তা দিয়ে আসার সময় দেখা যায়, রাস্তাটির ওই অংশে বিশাল বিশাল গর্ত। ভারী বর্ষণে গর্তে জমেছে পানি জমেছে। এতে চরম ঝুঁকি নিয়ে চলছে বিভিন্ন যানবাহন। এ এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা মিনার মিয়া, সুয়েল আহমেদ, আতিকুর রহমানসহ লোকজন জানান, মৌলভীবাজার জেলা সদর থেকে কুলাউড়া উপজেলার হাজীপুর, টিলাগাঁও, কর্মধারা ও পৃথিমপাশা ইউনিয়নের লোকজন যাতায়াত করতে এই সড়কটি ব্যবহার করে থাকেন। হালকা ও ভারী যানবাহন চলাচল করে থাকে। এ ছাড়া আশপাশের এলাকার মানুষ হাজীপুর ইউনিয়নের পীরের বাজার কটারকোনা বাজার এবং নছিরগঞ্জ বাজারে যাতায়াতের জন্য সড়কটি ব্যবহার করে থাকেন। সব মিলিয়ে ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত অন্তত শত শত লোক এই সড়কে যাতায়াত করে থাকেন।

জানা যায়, দুই বছর আগে ওই রাস্তায় কাজ হলেও শহীদ নগর বাজার থেকে কুলাউড়া উপজেলার ব্রাহ্মণবাজার-শমসেরনগর সড়কে ওঠার আগের অর্ধ কিলোমিটার সড়ক তখন ফেলে রাখা হয়। ফলে এই অর্ধ লক্ষাধিক লোক এখন চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। এ বিহার জানতে চাইলে কমগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী জাহিদুল ইসলাম প্রতিদিনের সংবাদকে জানান, রাস্তার বাকি অংশ ২০২১-২২ এবং ২০২২-২৩ এই সড়কের বাকি অংশে মেরামত কাজ হয়েছে। ওই অংশ এ বছর কাজ হবে।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close