মো. মনির হোসেন, বেনাপোল (যশোর)

  ২৬ জানুয়ারি, ২০২৩

বিমানে যাওয়ার পরামর্শ

সাইকেল চালিয়ে সড়ক পথে পবিত্র হজে যেতে পারলেন না থাই নাগরিক ইসা আবদুস সালাম (৬৪)। বেনাপোলের বিপরীতে ভারতের পেট্রাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশ তাকে ফিরিয়ে দিয়ে বিমান পথে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছে। অথচ তার ই-ভিসা আছে এবং এই ভিসায় তিনি সড়ক বা আকাশ পথে যাওয়ার এখতিয়ার পান।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশনের ওসি আবুল কালাম আজাদ। তিনি বলেন, সাইকেল চালিয়ে পবিত্র হজ পালনের উদ্দেশ্যে সৌদি আরব যাওয়ার পথে থাই নাগরিক ইসা আবদুস সালাম (পাসপোর্ট নম্বর-এসি-৪০৯৪৮০০) সাইকেল চালিয়ে ঢাকা থেকে রওনা হন। পথিমধ্যে কয়েকটি স্থানে বিরতির পর বুধবার (২৫ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ৯টায় ইমিগ্রেশন ও কাস্টমসের কাগজপত্রের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করে সীমান্ত অতিক্রম করে ভারতে প্রবেশ করেন। কিন্তু বেনাপোলের বিপরীতে ভারতের পেট্রাপোল ইমিগ্রেশন তাকে সড়ক পথে যাওয়া যাবে না বলে বিমান পথে যাওয়ার পরামর্শ দিয়ে আবার বাংলাদেশে ফেরত পাঠিয়ে দেয়। পরে তিনি দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সাইকেল চালিয়ে ঢাকার উদ্দেশে বেনাপোল ত্যাগ করেন।

এর আগে তিনি ঢাকা থেকে সাইকেল চালিয়ে মাগুরা শহরে যান। সেখানে পারনুন্দুয়ালী বেপারিপাড়ায় গত শনিবার (২১ জানুয়ারি) মাগরিবের নামাজ আদায় করেন। এরপর সেখান থেকে মঙ্গলবার যশোর অবস্থান করে বুধবার সকালে বেনাপোলের উদ্দেশে রওনা হয়ে বেনাপোল চেকপোস্টে পৌঁছান। তবে তিনি থাইল্যান্ড থেকে ঢাকায় আসেন উড়োজাহাজে করে। তার ইচ্ছা ছিল বাংলাদেশ থেকে ভারত হয়ে সৌদি আরবে পবিত্র হজ করতে যাবেন সাইকেল চালিয়ে।

এ থাই নাগরিকের এমন পরিকল্পনা দেখে বিস্মিত হয়েছেন বেনাপোলের স্থানীয় বাসিন্দারা। তার এই মহৎ উদ্দেশ্যের জন্য সাধুবাদ জানান অনেকে। কিন্তু ভারতের চেকপোস্ট থেকে ফেরত আসার পর অনেকে বিস্মিত হয়েছেন।

জানা গেছে, থাইল্যান্ডের বাসিন্দা ইসা আবদুস সালাম (গৎ.ইড়ড়হহড়স চঁহুড়ুধর) সে দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক। বাড়ি থাইল্যান্ডের উত্তরাঞ্চলীয় সিয়াং রাই প্রদেশে। সেখানে সস্ত্রীক বসবাস করেন। এ দম্পতির কোনো সন্তানাদি নেই। সৌদি আরবে হজ করতে যাওয়ার উদ্দেশ্যে ১৫ জানুয়ারি বাড়ি ছাড়েন তিনি। প্রথমে সিয়াং রাই থেকে বিমানে ব্যাংককে আসেন। সেখান থেকে ১৭ জানুয়ারি ঢাকায় পৌঁছান।

আগে দুবার পবিত্র হজ পালন করলেও এবার সাইকেল চালিয়ে মক্কায় যেতে চান জানিয়ে ইসা আবদুস সালাম বলেন, তার বাড়ি মিয়ানমার সীমান্ত এলাকায় হলেও সেখানে অস্থিতিশীলতার কারণে সরাসরি বিমানে বাংলাদেশে এসেছেন। তার সাইকেলও ঢাকায় এনেছেন বিমানে। সাইকেলে গত পাঁচ দিনে মানিকগঞ্জ, রাজবাড়ী, ফরিদপুর হয়ে শনিবার সন্ধ্যায় পৌঁছান মাগুরায়। এরপর যশোর হয়ে বুধবার সকালে বেনাপোল চেকপোস্টে পৌঁছান। বেনাপোল হয়ে তিনি প্রবেশ করতে চেয়েছিলেন ভারতে। সেখান থেকে পাকিস্তান, ইরান, কুয়েত হয়ে পৌঁছাতে চান সৌদি আরবের মক্কায়। ইসার পরিকল্পনা অনুযায়ী, দীর্ঘ এই পথ পাড়ি দিতে তার সময় লাগবে ছয় মাস। কিন্তু তাকে পেট্রাপোল ইমিগ্রেশন ফেরত দিয়েছে। বলেছেন, সড়ক পথে যাওয়া যাবে না। তাই ঢাকায় ফিরে যাচ্ছি।

তিনি বলেন, ঢাকা থেকে যাত্রা শুরুর পর পথে বিভিন্ন জায়গায় থেমে স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে ছবি তুলেছেন। বাংলাদেশিদের আতিথেয়তারও প্রশংসা করেছেন। তিনি ২৫ বছর বয়সে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন।

ঘুরতে পছন্দ করেন জানিয়ে ইসা আবদুস সালাম বলেন, এবার সাইকেল চালিয়ে হজ পালন ও এশিয়ার কয়েকটি দেশ ঘুরে দেখার পরিকল্পনা নিয়ে বের হয়েছেন।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close