reporterঅনলাইন ডেস্ক
  ০৫ ডিসেম্বর, ২০২১

মেয়রের উন্নয়ন ভাবনা

সুখে-দুঃখে পাশে থাকব

এলাকার মানুষ আমাকে ভোট দিয়ে মেয়র বানিয়েছে। দায়িত্ব নেওয়ার পর পৌরবাসীর ভালোবাসা আর কাউন্সিলরদের ঐকান্তিক সহযোগিতা নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি। এরই মধ্যে একের পর এক উন্নয়নের চিত্র ফুটে উঠেছে পৌরসভায়। আগামী এক বছরের মধ্যে পৌরসভাকে একটি মডেল পৌরসভায় রূপান্তর করব ইনশাআল্লাহ। মাস্টারপ্ল্যান অনুযায়ী কাজ করা হচ্ছে। পুরো শহর আমরা সিসি ক্যামেরার আওতায় আনতে সক্ষম হয়েছি; যা এর আগে ছিল না। যত দিন মেয়র হিসেবে দায়িত্বে থাকব, তত দিন পৌরবাসীর সুখে-দুঃখে পাশে থেকে কাজ করে যাব। প্রতিদিনের সংবাদের সঙ্গে আলাপে এমন কথা জানালেন বদরগঞ্জ পৌর মেয়র আহসানুল হক চৌধুরী টুটুল। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন রংপুর ব্যুরো প্রধান আবদুর রহমান রাসেল।

সাবেক যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী আনিছুল হক চৌধুরীর হাত ধরে ২৫ মে ১৯৯৯ সালে বদরগঞ্জ পৌরসভা গঠিত হয়। এর জনসংখ্যা ২৫,২৮৬ জন। ওয়ার্ড ৯টি। ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর উত্তম কুমার সাহা নৌকা প্রতীকে মেয়র নির্বাচিত হন। সবশেষ নির্বাচন হয়েছে গত বছরের ২৮ ডিসেম্বর। এতে জয়ী হন আওয়ামী লীগের আহসানুল হক চৌধুরী টুটুল।

মেয়র আহসানুল হক চৌধুরী টুটুল বলেন, আমার বাবার হাত ধরে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে পৌরসভা গঠিত হয়েছে। আগের মেয়রের সময় পৌরবাসীর স্বপ্ন বাস্তবায়িত হয়নি। আনিছুল হক চৌধুরী শিশুপার্ক দৃষ্টিনন্দন করার লক্ষ্যে কাজ করছি। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরাল নির্মাণকাজের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এলাকাবাসীর সহযোগিতা পেলে আগামী ১ বছরের মধ্যে একটি মডেল পৌরসভা হিসেবে রূপান্তরিত করব। এক সময় পৌর এলাকায় মানুষ জলাবদ্ধতার কারণে চলাচল করতে পারত না। সেই জলাবদ্ধতা নিরসন করেছি। পনি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করেছি। হাট-বাজারের বেহাল দশা ছিল। সেটিও ঠিক করেছি। এখন মানুষ ভালোভাবে হাট-বাজারে বেচা-কেনা করতে পারে।

মেয়র বলেন, করোনাকালীন ১৭ হাজার পরিবারের মধ্যে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেছি। পাশাপাশি মানুষকে সচেতন করতে লিফলেট বিতরণ করেছি। প্রতিবন্ধী ভাতা, বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা নিশ্চিত করেছি। শিশু জন্মগ্রহণের পর ডিজিটাল জন্মনিবন্ধনের মাধ্যমে শিশুদের অধিকার নিশ্চিত করার জন্য কাজ করছি। পৌর প্রতিবন্ধী স্কুলের লেখাপড়ার মান উন্নত করার উদ্যোগ নিয়েছি।

মেয়র আরো বলেন, পৌর এলাকার শিশুদের নিয়ে কাজ চলছে। পৌরসভার ময়লা-আবর্জনা ফেলার স্থান ডাম্পিং স্টেশন নির্মাণের জন্য জমি অধিগ্রহণ করার প্রক্রিয়া প্রায় চূড়ান্ত পর্যায়ে নেওয়া হয়েছে। মানসম্পন্ন স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। পৌরসভার সব ওয়ার্ডের সড়ক আলোকিত করা হয়েছে। রাস্তাঘাট, ড্রেন, ব্রিজ কালভার্ট নির্মাণ করা হয়েছে।

মেয়র আহসানুল হক চৌধুরী টুটুল বলেন, জনগণ আমাকে ভোট দিয়ে মেয়র নির্বাচিত করেছে। আমি তাদের সম্মান রক্ষা করব কাজের মধ্যে দিয়ে।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close