খুলনা ব্যুরো

  ০৫ ডিসেম্বর, ২০২১

শিক্ষক মৃত্যুর জের

কুয়েটে ছাত্রলীগ নেতাসহ ৯ শিক্ষার্থী বহিষ্কার

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) অধ্যাপক ড. মো. সেলিম হোসেনের অস্বাভাবিক মৃত্যুর জের ধরে ৯ শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। বহিষ্কার হওয়াদের একজন ছাত্রলীগ বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক। শৃঙ্খলা ও আচরণবিধি লঙ্ঘনের দায়ে তাদের বহিষ্কার করা হয়েছে।

গতকাল শনিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ ও তথ্য শাখা থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বহিষ্কৃতদের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদমান নাহিয়ান সেজানও রয়েছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী মো. আনিছুর রহমান ভুঞা।

বহিষ্কৃত অন্যরা হলেন সিই বিভাগের শিক্ষার্থী তাহামিদুল হক ইশরাক, একই বিভাগের শিক্ষার্থী মাহমুদুল হাসান, এলই বিভাগের শিক্ষার্থী সাদমান সাকিব, একই বিভাগের শিক্ষার্থী আ স ম রাগিব আহসান মুন্না, এমই বিভাগের শিক্ষার্থী মোহাম্মাদ কামরুজ্জামান, একই বিভাগের শিক্ষার্থী ফয়সাল আহমেদ রিফাত, সিএসই বিভাগের শিক্ষার্থী রিয়াজ খান নিলয় ও এমএসই বিভাগের শিক্ষার্থী নাইমুর রহমান অন্তু।

ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার বলেন, গত ২ ও ৩ ডিসেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেটের ৭৬তম জরুরি সভায় তাদের বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত হয়। সভায় উত্থাপন করা সিসিটিভির ফুটেজ ও অন্যান্য তথ্যাদি পর্যালোচনা করা হয়। অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শৃঙ্খলা ও আচরণবিধি লঙ্ঘনের দায়ে নয় শিক্ষার্থীকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়।

গত ৩০ নভেম্বর দুপুরে কুয়েটের ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক সেলিমের মৃত্যু হয়। শিক্ষার্থীদের মানসিক নির্যাতনে ওই শিক্ষকের মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ ওঠে।

এদিকে, অধ্যাপক সেলিমের মৃত্যুর ঘটনার প্রতিবাদে দোষীদের চিহ্নিত করে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কারসহ চার দফা দাবিতে অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম বর্জন করেছে শিক্ষক সমিতি। বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রতিবাদ সমাবেশ থেকে কুয়েট ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধের দাবি জানান শিক্ষকরা।

শিক্ষক সেলিমের স্ত্রী সাবিনা খাতুন রিক্তা বলেছেন, ‘সেদিন বাসায় ফিরে বলল, ছাত্ররা ধরে নিয়ে গেছে। দায়িত্বই ছেড়ে দেব। আমার স্বামীকে হত্যা করা হয়েছে। আমি স্বামী হত্যার বিচার চাই।’

এ ঘটনা তদন্তে পাঁচ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। ৭৬তম জরুরি সিন্ডিকেট সভায় শুক্রবার এ কমিটি গঠন করা হয়। কমিটিকে অপরাধীদের শনাক্ত ও সংশ্লিষ্ট আনুষঙ্গিক বিষয়াদি পর্যালোচনা করে সুপারিশসহ রিপোর্ট তৈরির নির্দেশনা দেওয়া হয়। সেই সঙ্গে কমিটিকে আগামী ১০ দিনের মধ্যে সুপারিশসহ তদন্ত প্রতিবেদন ভাইস চ্যান্সেলর বরাবর দাখিল করতে বলা হয়।

একই ঘটনায় ১৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। শুক্রবার বিকাল ৪টার মধ্যে আবাসিক শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সেলিমের মৃত্যু নিয়ে সৃষ্ট পরিস্থিতির কারণে ৭৬তম সিন্ডিকেট সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close