প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

  ২৮ নভেম্বর, ২০২১

করোনাভাইরাস নতুন ধরন ‘ওমিক্রন’

নভেল করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) উদ্বেগ সৃষ্টিকারী নতুন ভ্যারিয়েন্টের নাম ওমিক্রন বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। এ ধরনটিতে বিপুলসংখ্যক মিউটেশন রয়েছে এবং প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, এটি পুনঃসংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে।

প্রথমবার ২৪ নভেম্বর দক্ষিণ আফ্রিকায় এ ধরন শনাক্ত হওয়ার খবর জানতে পারে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। পরে বতসোয়ানা, ইসরায়েল, বেলজিয়াম ও হংকংয়েও এর উপস্থিতি পাওয়া যায়। এই ধরনের সংক্রমণ ঠেকাতে আফ্রিকার দক্ষিণাঞ্চলের কয়েকটি দেশে যাওয়া এবং সেসব দেশ থেকে প্রবেশের ওপর কড়াকড়ি ও নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে বেশ কয়েকটি দেশ।

যুক্তরাজ্যে বসবাসকারী, আইরিশ বা ব্রিটিশ নাগরিক ছাড়া দক্ষিণ আফ্রিকা, নামিবিয়া, জিম্বাবুয়ে, বতসোয়ানা, লেসোথো ও এসওয়াতিনি থেকে ভ্রমণ করে আসা ব্যক্তিদের জন্য যুক্তরাজ্যে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, এই ছয়টি দেশের সঙ্গে মোজাম্বিক এবং মালাউই থেকেও সব ফ্লাইট বন্ধ করা হয়েছে। কাল সোমবার থেকে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করা হবে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, নতুন ভ্যারিয়েন্টের প্রভাব ভালোভাবে বুঝতে আরো কয়েক সপ্তাহ লাগবে। এটি কতটা সংক্রামক, তা নির্ধারণ করতে বৈজ্ঞানিকরা এখনো পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাচ্ছেন।

যুক্তরাজ্যের এক শীর্ষ স্বাস্থ্য কর্মকর্তা সতর্ক করেছেন যে, এই নতুন ভ্যারিয়েন্টের বিরুদ্ধে ভ্যাকসিন ‘প্রায় নিশ্চিতভাবে’ কম কার্যকর হবে।

তবে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের স্ট্রাকচারাল বায়োলজিস্ট জেমস নেইস্মিথ মন্তব্য করেছেন, এটি খারাপ খবর বটে, কিন্তু এটিই পৃথিবীর শেষ নয়। তার মতে, এ ধরনের মিউটেশনগুলো দেখে মনে হতে পারে যে, এগুলো হয়তো দ্রুত ছড়ায়, কিন্তু এর সংক্রমণের সক্ষমতা বেশি, তা হয়তো এখনই বলা সম্ভব না।

প্রফেসর নেইস্মিথ মনে করেন, এই ভ্যারিয়েন্ট যদি দ্রুততার সঙ্গে ছড়িয়ে পড়ার সক্ষমতা থাকত, তাহলে এত দিনে এটি যুক্তরাজ্যে নিশ্চিতভাবে প্রবেশ করত।

অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের সংক্রামক রোগ বিভাগের প্রধান অ্যান্থনি ফাউচি মন্তব্য করেছেন যে, নতুন ভ্যারিয়েন্ট নিয়ে পাওয়া রিপোর্ট এটি সম্পর্কে সতর্ক করলেও তীব্র মাত্রায় অসুস্থতা ঠেকাতে ভ্যাকসিন কার্যকর হতে পারে।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ফাউচি বলেন, ‘যথাযথভাবে পরীক্ষিত না হওয়া পর্যন্ত আমরা নিশ্চিতভাবে বলতে পারব না এটি ভাইরাসবিরোধী অ্যান্টিবডিকে পাশ কাটাতে পারে কি না।’

এদিকে, ইউরোপিয়ান কমিশন প্রধান আরসালা ফর ডার লেয়েন বলেছেন, পুরো ইউরোপের দ্রুততার সঙ্গে এবং একত্রিতভাবে সিদ্ধান্ত নেওয়া জরুরি।

জাপান জানিয়েছে, শনিবার থেকে আফ্রিকার দক্ষিণাঞ্চল থেকে আসা অধিকাংশ দেশের নাগরিকদের ১০ দিন কোয়ারেন্টাইন করতে হবে এবং এ সময়ের মধ্যে তাদের মোট চারবার পরীক্ষা করাতে হবে।

দক্ষিণ আফ্রিকা, বতসোয়ানা ও হংকং থেকে আসা ভ্রমণকারীদের আরো কঠোরভাবে পর্যবেক্ষণ এবং পরীক্ষা করবে ভারত- এমন খবর প্রকাশ করেছে দেশটির স্থানীয় গণমাধ্যম। আর ইরানও দক্ষিণ আফ্রিকা অঞ্চলের ছয় দেশ থেকে আসা ভ্রমণকারীদের তাদের দেশে প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছে।

ইরানের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের খবর অনুযায়ী, ওই অঞ্চল থেকে আসা ইরানি নাগরিকরা দুবার পরীক্ষার পর নেগেটিভ ফল এলে দেশে প্রবেশ করতে পারবে।

দক্ষিণ আফ্রিকার স্বাস্থ্যমন্ত্রী জো ফাহলা সাংবাদিকদের বলেছেন, ফ্লাইটে নিষেধাজ্ঞা জারি করা ‘অন্যায়’। ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞাসহ নানা ধরনের কঠোর পদক্ষেপ নিয়ে কয়েকটি দেশ যেমন প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে, তা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশিত বিধির সম্পূর্ণ বিরুদ্ধে। আমরা এখনো জানি না যে, এটি আসলেই দ্রুত ছড়ায় কি না, ভ্যাকসিন বা অন্যান্য ওষুধের কার্যকারিতা কমায় কি না বা এটি পরে আরো জটিল রোগের কারণ হয় কি না। কাজেই আগামী কয়েক সপ্তাহে আমরা এই ওমিক্রন নিয়ে নানা ধরনের আলোচনা চালিয়ে যাব, তা নিশ্চিতভাবে বলা যায়।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close