করোনাভাইরাস

বিশ্বে মৃত্যু সোয়া ৭ লাখ ছাড়াল

প্রকাশ : ১০ আগস্ট ২০২০, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

কিছুতেই বাগে আসছে না প্রাণঘাতি নভেল করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯)। প্রতিদিনই বাড়ছে মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা। বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসে মৃত্যু সোয়া সাত লাখ ছাড়িয়ে গেছে। আর আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে দুই কোটি। করোনাভাইরাসের সর্বশেষ পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্যানুযায়ী, গতকাল রোববার রাত সাড়ে ৯টা পর্যন্ত বিশ্বে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ কোটি ৫ লাখ ৬ হাজার ৬১৫ জনে। এদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৭ লাখ ২৯ হাজার ৪৯৬ জনের। আর এ পর্যন্ত সুস্থ্য হয়ে উঠেছেন ১ কোটি ৩৫ লাখ ৮৭ হাজার ৬৬৫ জন।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা সবচেয়ে বেশি যুক্তরাষ্ট্রে। রোববার (বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ৯টা) পর্যন্ত দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ৫৫ লাখ ৮৯ হাজার ৩৯৮ জন। মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৬৯ হাজার ২৮৪ জনের। এদিকে, একদল বিশেষজ্ঞ দাবি করেছেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যদি বেপরোয়া পথে হাঁটেন তাহলে আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে দেশটিতে অন্তত তিন লক্ষ মানুষ প্রাণ হারাবেন!

‘ইন্সটিটিউট ফর হেল্?থ মেট্রিক্স অ্যান্ড ইভ্যালুয়েশনের’ (আইএইচএমই) রিপোর্ট বলছে, ডিসেম্বরের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রে ২ লাখ ৯৫ হাজার ১১ জনের মৃত্যুর আশঙ্কা রয়েছে।

আইএইচএমই-র প্রধান ক্রিস্টোফার মুরি বলেন, ‘এই ধারণা যে সত্যি প্রমাণ হবে, সেটা নয়। তবে এ ক্ষেত্রে, মানুষের দৈনন্দিন ব্যবহারের উপরে করোনা সংক্রমণ নির্ভর করে। আর এই সংক্রমণ থেকে মৃত্যুর হার বেরিয়ে আসবে।’

সংস্থার একটি বিবৃতিতে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের ৯৫ শতাংশ মানুষও যদি এখন মাস্ক পরেন, সেখানে মৃতের সংখ্যা কমে ২ লাখ ২৮ হাজার ২৭১ জনে দাঁড়াবে। অর্থাৎ ৯৫ শতাংশ মানুষ মাস্ক পরলে ৬৬ হাজার মানুষের জীবন বেঁচে যাবে।

যুক্তরাষ্ট্রের ‘সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন’ বলেছে, তারা অনুমান করছে ২৯ আগস্টের মধ্যে দেশে মৃতের সংখ্যা ১ লাখ ৮১ হাজার ৩১ জনে পৌঁছাবে।

তাদের সাইটে বলা হয়েছে, ‘সব প্রদেশের পরিস্থিতি বিশেষভাবে খতিয়ে দেখা গেছে, এখন প্রতি সপ্তাহে যা মৃত্যুহার আছে, তার থেকে আগামী চার সপ্তাহে আরো বেশি বাড়তে পারে হাওয়াই এবং পুয়ের্তো রিকোয় অঞ্চলে। এদিকে বলা হয়েছে সাপ্তাহিক মৃত্যুহার কমতে পারে ফ্লরিডা, মিসিসিপি, নিউ মেক্সিকো, নর্দার্ন মারিয়ানা আইল্যান্ডস, ওহায়ো, টেক্সাস, ভারমন্ট এবং ভার্জিন আইল্যান্ডে অঞ্চলে।’

যুক্তরাষ্ট্রের পর করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ হচ্ছে ব্রাজিল। আক্রান্ত ও উভয় মৃত্যু- উভয় বিবেচনায় দ্বিতীয় স্থানে থাকা লাতিন আমেরিকার দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছে ৩০ লাখ ২৮ হাজার ৪২৮ জন এবং মৃত্যু হয়েছে এক লাখ ৭২৬ জনের।

মৃত্যু বিবেচনায় তৃতীয় স্থানে উঠে এসেছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেশী মেক্সিকো, তবে আক্রান্ত বিবেচনায় দেশটির অবস্থান ছয় নম্বরে। দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছে সাড়ে ৪ লাখের বেশি মানুষ। আর মৃত্যু হয়েছে ৫৫ হাজার ১১৪ জনের।

ইউরোপের দেশ যুক্তরাজ্য মৃত্যু বিবেচনায় রয়েছে চতুর্থ স্থানে, তবে আক্রান্তের দিক থেকে দেশটির অবস্থান ১২তম। দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ৩১ লাখ ৬ হাজার ৬৭৯ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৪৯ হাজার ৯৬১ জনের।

বিশ্বে আক্রান্ত বিবেচনায় তৃতীয় স্থানে থাকা ভারত মৃত্যু বিবেচনায় উঠে এসেছে পঞ্চম স্থানে। দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ২২ লাখ ৭১ হাজার ৪৪ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৪৫ হাজার ৮৫৮ জনের।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীন থেকে সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর বিশ্বব্যাপী এ পর্যন্ত ২১৫ টি দেশে ছড়িয়েছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। গত ১১ মার্চ করোনাভাইরাস সংকটকে মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

 

"