reporterঅনলাইন ডেস্ক
  ০৪ ডিসেম্বর, ২০২২

কোয়ার্টারে যেতে দক্ষিণ কোরিয়ার সামনে বাঁধা ব্রাজিল

প্রতীকী ছবি।

কাতার বিশ্বকাপে আগামীকাল সোমবার স্টেডিয়াম ৯৭৪’এ শেষ ষোলোর ম্যাচে পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিলের প্রতিপক্ষ উজ্জীবিত দক্ষিণ কোরিয়া। আরো একটি অঘটনের জন্ম দিয়ে সন হেয়াং-মিনের নেতত্বাধীন এশিয়ান পরাশক্তিরা এবার ব্রাজিল বাঁধা পেরুতে চায়। সেটি সম্ভব হলে এবারও ‘সিক্স হেক্সা’-এর স্বপ্নভঙ্গ হবে নেইমারদের।

অন্যদিকে গোল ব্যবধানে সুইজারল্যান্ডকে পেছনে ফেলে গ্রুপ-‘জি’-এর চ্যাম্পিয়ন হিসেবেই সোমবার মাঠে নামতে যাচ্ছে সেলেসাওরা। আবার শেষ ম্যাচে পর্তুগালকে হতবাক করে দিয়ে গ্রুপ-‘এইচ’-এর রানার্স-আপ পজিশন নিশ্চিত করে দক্ষিণ কোরিয়া। ক্যামেরুনের বিরুদ্ধে গত শুক্রবার পরাজিত হওয়া গ্রুপের শেষ ম্যাচে একের পর এক সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেনি পরিবর্তিত ব্রাজিল। নক আউট পর্বের কথা মাথায় রেখে ইতোমধ্যেই গ্রুপ পর্বের বাঁধা পেরুনো ব্রাজিল মূল একাদশেনর নয়জন খেলোয়াড়কে বদলী বেঞ্চে রেখে দল সাজিয়েছিলেন কোচ তিতে।

ক্যামেরুনের গোলরক্ষক ডেভিস ইপাসির দুর্দান্ত ফর্মের কাছে টিকতে পারেনি তিতের দ্বিতীয় দলটি। ৯২ মিনিটে ভিনসেন্ট আবুবকরের গোলে আফ্রিকার অদম্য সিংহদের ঐতিহাসিক জয় নিশ্চিত হয়। বিশ্বকাপে কোনো আফ্রিকার দলের কাছে এটাই ছিল ব্রাজিলের প্রথম পরাজয়। যদিও এই জয়ে গ্রুপ পজিশনের কোনো হেরফের হয়নি। শীর্ষ দল হিসেবেই ব্রাজিল পরের রাউন্ডে উঠেছে। আর ঐতিহাসিক জয়কে সঙ্গী করে কাতার থেকে বাড়ি পথ ধরে ক্যামেরুন।

টানা নয় ম্যাচে জয়ের ধারা থেকে ছিটকে পড়া ব্রাজিলকে এখন উজ্জীবিত দক্ষিণ কোরিয়াকে নিয়ে নতুন করে ভাবতেই হচ্ছে। জায়ান্ট কিলার দক্ষিণ কোরিয়ার মুখোমুখি হবার আগে গ্রুপ পর্বে এশিয়ান পরাশক্তির ম্যাচগুলোর খোঁজ খবরও নিচ্ছেন তিতে। সার্বিয়া ও সুইজার‌্যান্ডের বিপক্ষে ব্রাজিল প্রথম দুই ম্যাচে জয়ী হলেও প্রত্যাশানুযায়ী দলের আক্রমণভাগ পারফর্ম করেনি। ভয়টা এখানেই। কারণ কাউন্টার এ্যাটাক থেকে দক্ষিণ কোরিয়া যেভাবে ইতোমধ্যেই নিজেদের গতিময় ফুটবলের প্রমাণ দিয়েছে, তাতে তাদেরকে আটকাতে তিতেকে নতুক ছক কষতে হচ্ছে।

এনিয়ে বিশ্বকাপে টানা পাঁচ ম্যাচে প্রথমার্ধে কোনো গোল পায়নি ব্রাজিল। নিজেদের ফেবারিট তকমাকে শক্তিশালী করতে হলে এই ধারা থেকে অবশ্যই সেলেসাওদের বেরিয়ে আসতে হবে।

এনিয়ে টানা নবমবারের মতো নক আউট পর্বে খেলতে যাচ্ছে ব্রাজিল। ৩২ বছর আগে শেষ ষোলো থেকে বিদায় নিয়েছিল পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। ক্লদিও ক্যানেজিয়ার একমাত্র গোলে আর্জেন্টিনার কাছে ১-০ ব্যবধানে পরাজিত হবার সেই ম্যাচটি এখনো অনেকেই মনে গেঁথে আছে।

দক্ষিণ কোরিয়ার সামনে এখন ঐতিহাসিক অল-এশিয়ান কোয়ার্টার ফাইনালে খেলার হাতছানি। ব্রাজিলের বিপক্ষে দক্ষিণ কোরিয়া মাঠে নামার আগে দিনের শুরুতে আরেক ম্যাচে ক্রোয়েশিয়ার মোকাবেলা করবে জাপান। গত শুক্রবার গ্রুপে নিজেদের শেষ ম্যাচে রিকাডো হোর্টার পাঁচ মিনিটের গোলে এগিয়ে গিয়েছিল পর্তুগাল। কিন্তু এরপর দুই গোল দিয়ে ২০১৬ ইউরোপীয় চ্যাম্পিয়নদের হতাশ করে জয় ছিনিয়ে নেয় কোরিয়ানরা।

নিষেধাজ্ঞার কারণে দলের দুর্দান্ত এই জয় স্ট্যান্ডে বসে দেখতে হয়েছে কোচ পাওলা বেনটোকে। এর আগে গ্রুপের আরেক শীর্ষ দল উরুগুয়ের সাথে গোলশুন্য ড্র করে টুর্নামেন্ট শুরু করেছিল দক্ষিণ কোরিয়া। শেষ পর্যন্ত ঘানাকে ২-০ গোলে পরাজিত করে গ্রুপ পর্ব শেষ করেও গোল ব্যবধানে পিছিয়ে পড়ে বিদায় নিতে হয়েছে উরুগুয়েকে।

এর আগে একবারই শেষ ষোলোর পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিল এশিয়ান টাইগার্সরা। ২০০২ সালে ঘরের মাঠের বিশ্বকাপে সেমিফাইনালে খেলেছিল দক্ষিণ কোরিয়া। সম্প্রতি লাতিন আমেরিকার অন্যতম সেরা ব্রাজিলের সাথে বিশ্বকাপের প্রস্তুতি ম্যাচে ৫-১ গোলে বিধ্বস্ত হয়েছে।

কাতারে সংক্ষিপ্ত সময়ের মধ্যেই ব্রাজিলের দলীয় চিকিৎসকরা বেশ ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। সেলেসাও চিকিৎসক রডরিগো লাসমার অবশ্য নেইমার প্রসঙ্গে ইতিবাচক আপটেড দিয়েছেন। গোঁড়ালির ইনজুরি কাটিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ার বিপক্ষে শুরু থেকেই নেইমারের খেলার সম্ভাবনা রয়েছে।

ইনজুরি সমস্যা এদিকে ক্যামেরুনের বিপক্ষে ম্যাচে হাঁটুর সমস্যায় পড়া গাব্রিয়েল জেসুস ও এ্যালেক্স টেলেসকে বিশ্বকাপে আর পাওয়া যাচ্ছে না বলে অনেকটাই নিশ্চিত করেছেন তিতে। যদিও টেলেস রিচারলিসনের কারণে সবসময়ই দলের বাইরেই থাকেন। টেলেসের ইনজুরি ও এ্যালেক্স সান্দ্রোর কোমরের সমস্যার কারণে লেফট-ব্যাক পজিশন নিয়ে দুঃশ্চিন্তায় রয়েছেন তিতে। তবে গোঁড়ালির সমস্যা অনেকটাই কাটিয়ে উঠেছেন ডানিলো। এডার মিলিটাও রাইট-ব্যাক পজিশনেই থাকছেন।

দক্ষিণ কোরিয়ান শিবিরেও ইনজুরি সমস্যা রয়েছে। হুয়াং হি-চ্যান পুরো টুর্ণামেন্টেই হ্যামস্ট্রিং ইনজুরিতে ভুগছেন। আগের ম্যাচেও বদলী বেঞ্চ থেকে উঠে এসে তিনি গোল করেছিলেন। তাকে আবারো মূল দলে পাওয়া না গেছে লি জায়ে-সুংই তার স্থানে খেলবেন। কাফ পেশীর সমস্যার কারণে পর্তুগালের সাথে মূল একাদশে ছিলেন না কিম মিন-জায়ে। নক আউট পর্বের ম্যাচে তার মূল দলে ফেরার আশা রয়েছে।

লি কাং-ইন ও কিম ইয়ং-গুনও হালকা ইনজুরি সমস্যায় রয়েছেন। দলের তারকা স্ট্রাইকার সন হেয়াং-মিনের উপর আরো একবার ভরসা করতে চাইছে দক্ষিণ কোরিয়া। অবশ্য এবারের আসরে তিনি এখনো কোনো গোল করতে পারেননি। সূত্র : বাসস এইচএস

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
ব্রাজিল,দক্ষিণ কোরিয়া,কাতার বিশ্বকাপ
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close