৩২ শূন্যপদ পূরণ হয়নি ১০ মাসেও

প্রকাশ : ২৩ অক্টোবর ২০২০, ১১:৫০

জিয়াউদ্দিন রাজু

ক্ষমতাসীন দলের ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন ছাত্রলীগের বর্তমান কমিটির মেয়াদ শেষ হয়ে গেলেও বণ্টন হয়নি সাংগঠনিক দায়িত্ব। বর্তমান সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পূর্ণ দায়িত্ব পাওয়ার পর ১০ মাস পার হলেও পূরণ করা হয়নি ৩২টি শূন্যপদ। উল্টো আরো কয়েকজন নেতা পদত্যাগ করেছেন। নানা কারণে নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েছেন বেশ কয়েকজন। তাদের মধ্যে কেউ কেউ বিয়ে করে সংসার পেতেছেন, কারো বয়স উত্তীর্ণ হয়ে গেছে।

গঠনতন্ত্র অনুযায়ী গত মে মাসেই মেয়াদোত্তীর্ণ হয় ছাত্রলীগের বর্তমান কেন্দ্রীয় কমিটির। সংগঠনের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মীর দাবি, সভাপতি পদে আল নাহিয়ান খান জয় এবং সাধারণ সম্পাদক পদে লেখক ভট্টাচার্য দায়িত্ব পাওয়ার পর মহামারি ও বন্যার মধ্যে কিছু মানবিক কার্যক্রম চালালেও সাংগঠনিক কার্যক্রমে গতি আনতে পারেননি। দিবসভিত্তিক কিছু কার্যক্রমে অংশ নিলেও সংগঠনের কার্যকরী কমিটির সভা করতে পারেননি তারা।

সংগঠন সূত্রে জানা গেছে, গত সম্মেলনের পর দুই বছরেও সাংগঠনিক দায়িত্ব বণ্টন না করায় বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। সংগঠনের যেকোনো বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক। অন্যদিক সারা দেশে সংগঠনের ১১১টি ইউনিটের মধ্যে ১০৮টির-ই মেয়াদোত্তীর্ণ। সেগুলোর সম্মেলন করার উদ্যোগ নেই।

এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহসভাপতি আরিফ খান প্রতিদিনের সংবাদকে বলেন, ‘এক বছর যাবত শুনছি সাংগঠনিক দায়িত্ব বণ্টন হবে, কিন্তু এখন পর্যন্ত তা দৃশ্যমান হলো না। আমি নিজেও বেশ কয়েকবার সংগঠনের কার্যক্রমের বিষয়ে শীর্ষ দুই নেতাকে জানিয়েছি। যত দিন গড়াচ্ছে নিয়ম অনুযায়ী সম্মেলনের কথা উঠবে স্বাভাবিক। বিশেষ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় খুললেই কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সম্মেলনের বিষয়ে আলোচনা শুরু হবে।’

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সোহানুর রহমান সোহান প্রতিদিনের সংবাদকে বলেন, ‘বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাংগঠনিক কার্যক্রমে আরো গতি আনা প্রয়োজন। সারা দেশেই আমাদের বেশির ভাগ ইউনিট মেয়াদোত্তীর্ণ।’

ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় প্রতিদিনের সংবাদকে বলেন, ‘শূন্য পদগুলো পূরণ করার যখনই সিদ্ধান্ত নিয়েছি এবং এজন্য কার্যক্রম শুরু করেছি; ঠিক তখনই দেশে করোনাভাইরাস মহামারি দেখা দিয়েছে। এরপরই আবার বন্যার কারণে আমরা সেদিকে তৎপর হতে পারেনি। তবে এখন পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হওয়ায় আমরা এ বিষয়ে নজর দিয়েছি। সংগঠনের নেতাকর্মীদের সঙ্গে সমন্বয় রেখে আমরা বিষয়টি সমাধান করার চেষ্টা করছি।’

মেয়াদোত্তীর্ণ ইউনিটগুলোর বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের এখন প্রধান টার্গেট বছরের পর বছর ধরে যেসব ইউনিটের সম্মেলন হয়নি; সেগুলোতে কমিটি দেওয়া। এরপর পর্যায়ক্রমে মেয়াদোত্তীর্ণ সব ইউনিটের সম্মেলন করে কমিটি দেওয়া হবে।’

পিডিএসও/হেলাল