‘আগস্ট মানে হারানোর বেদনা, হায়নাদের অট্টহাসি আর ষড়যন্ত্রের গন্ধ’

প্রকাশ : ০৩ আগস্ট ২০২০, ১৭:৩৪ | আপডেট : ০৩ আগস্ট ২০২০, ২১:০৯

অনলাইন ডেস্ক

চলছে শোকাবহ আগস্ট। এ মাসে আমরা হারিয়েছি পরিবারের সদস্যসহ হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি স্বাধীনতার স্থপতি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানেকে। ষড়যন্ত্রের কুশীলবরা শুধু রূপ পরিবর্তন করে, হারায় না। আগস্ট আসলে তাই আমরা দুশ্চিন্তায় থাকি। আগস্ট মানেই হারানোর বেদনা, হায়নাদের অট্টহাসি আর ষড়যন্ত্রের গন্ধ।

রোববার রাতে যুক্তরাজ্য শাখা আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক স্মরণসভায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের একথা বলেন। সম্প্রতি আওয়ামী লীগের প্রয়াত নেতাদের অকাল মৃত্যুতে এই সভার আয়োজন করা হয়। তিনি তার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে স্মরণসভায় যুক্ত হন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, সেদিন বিদেশে ছিলেন বলে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহেনা প্রাণে বেঁচে গেছেন। যে বুলেট ১৫ আগস্ট রাতের অন্ধকারে হানা দিয়েছিল সেই বুলেট ২১ আগস্ট আরও নির্মম হয়ে হানা দিয়েছিল বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে গ্রেনেড হামলার মধ্য দিয়ে। ১৫ আগস্টের প্রাইম টার্গেট ছিলেন বঙ্গবন্ধু, আর ২১ আগস্টের প্রাইম টার্গেট ছিলেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। ষড়যন্ত্রের কুশীলবরা শুধু রূপ পরিবর্তন করে, হারায় না। আগস্ট আসলে তাই আমরা দুশ্চিন্তায় থাকি। আগস্ট মাসে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা, শেখ রেহেনাসহ পরিবারের বেঁচে থাকা সদস্যরাও দুশ্চিন্তায় পড়ে যান। ষড়যন্ত্রকারীরা এখনো পিছু ছাড়েনি। ষড়যন্ত্রকারীরা আজও চলমান।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ১৫ ও ২১ আগস্টের ষড়যন্ত্রকারীদের অব্যাহত অপচেষ্টা আজও চলমান, সকলকে সতর্ক থাকতে হবে উন্নয়ন-অগ্রযাত্রা বিরোধী এই অপশক্তি সম্পর্কে।

তিনি প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ নাসিম, অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, শেখ আবদুল্লাহ, বদরুদ্দীন আহমেদ কামরানসহ অন্যান্য নেতাদের আত্মার শান্তি কামনা করে বলেন তাদের অবদান দেশ ও জাতি শ্রদ্ধাবনত চিত্তে আজীবন স্মরণ করবেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ হাসিনার সহযোদ্ধা হিসেবে তারা আজীবন নিরলস কাজ করে গেছেন দল ও জাতীর জন্য।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ একটি সম্প্রসারিত পরিবার, দেশ-বিদেশে যেখানেই এ পরিবারের সদস্যগণ অবস্থান করুক- প্রত্যেকের সাথে প্রত্যেকেই বিনিসুতার মালার মত অবিচ্ছেদ্য এক বন্ধনে আবদ্ধ।

সেতুমন্ত্রী বলেন, জাতির আদর্শের ঠিকানা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আর আস্থার বাতিঘর দেশরত্ন শেখ হাসিনা। যে যেখানেই জীবন-জীবিকার প্রয়োজনে অবস্থান করুক না কেন সবাই হৃদয়ের গভীরে লালন করে লাল সবুজের বাংলাদেশ।

ওবায়দুল কাদের বলেন, জাতির চেতনার উৎসমূলে ‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি’, আমাদের স্বপ্নের সোনালী দিগন্ত জুড়ে আলো ছড়ায় বঙ্গবন্ধু কন্যার দেখানো সমৃদ্ধ বাংলাদেশের স্বপ্ন।

তিনি বলেন, আমরা সমৃদ্ধি অর্জনের পথ ধরে হাঁটি আর সে পথ নকশায় বিশ্বাসের অফুরন্ত শক্তি যোগায় ডিজিটাল বাংলাদেশ, যার রূপকার নতুন প্রজন্মের অহংকার সজীব ওয়াজেদ জয়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বাংলাদেশের অনেক সীমাবদ্ধতা স্বত্বেও অসীম সাহসিকতায় মোকাবিলা করছে এ মহামারি। আমরা আমাদের শক্তি ও মনোবল অর্জন করেছি বারবার মৃত্যুর মঞ্চ থেকে ফিরে আসা হিমালয়সম এক সাহসী ও মানবিক নেতৃত্ব থেকে, যার নাম প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, তার দক্ষতা, দূরদর্শিতা এবং সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্তগ্রহণ ও বাস্তবায়নের ফলে বিশেষজ্ঞদের সকল পূর্বাভাস ভুল প্রমাণ করে সংক্রমণ এখন আমাদের নিয়ন্ত্রণে।

ওবায়দুল কাদের যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ নেতাদের ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেন, শেখ হাসিনা সরকারের বিরুদ্ধে যে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে তার বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকুন এবং সরকারের ইতিবাচক অর্জনগুলো তুলে ধরে তা প্রচার করুন।

দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের কঠোর অবস্থানের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, স্বাস্থ্যখাতসহ বিভিন্ন অনিয়মের বিরুদ্ধে নিজেদের দলের লোককেও বা দলীয় পরিচয়ে কাউকে শেখ হাসিনা ছাড় দেননি। শেখ হাসিনা সরকারের অবস্থান অত্যন্ত কঠোর। ইতিমধ্যে এটা স্পষ্টভাবে প্রমাণিত। দলীয় পরিচয়ে কোনো অনিয়মকারীর ঢাল হতে পারে না। এই দলে ইতিমধ্যে প্রমাণিত হয়েছে। সাম্প্রতিক শুদ্ধি অভিযান জনমানুষের মুখে দেশে-বিদেশে ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হয়েছে।

স্মরণসভায় যুক্তরাজ্য শাখা আওয়ামী লীগের সভাপতি সোলতান শরিফ ও সাধারণ সম্পাদক সাজিদুর রহমান ফারুকসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।