নিজস্ব প্রতিবেদক

  ২৭ নভেম্বর, ২০২২

জনসংখ্যাই আমাদের শক্তি : পরিকল্পনামন্ত্রী

ফাইল ছবি

বাংলাদেশের নিজস্ব সক্ষমতায় বর্তমান অর্থনীতি অর্ধট্রিলিয়ন ডলারের অর্থনীতিতে পরিণত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। তিনি বলেন, আমাদের দেশের শ্রমিকরা আগের চেয়ে দক্ষ হচ্ছে। আমাদের জনসংখ্যাই আমাদের শক্তি। সবার চেষ্টা থাকলে ও রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা বজায় থাকলে ২০৩০ সালে লক্ষ্য অর্জন সম্ভব।

রবিবার (২৭ নভেম্বর) বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ইউএনসিডিএফ আয়োজিত আর্থিক খাত নিয়ে এক সেমিনারে তিনি এ কথা বলেন।

সেমিনারে অর্থনীতিবিদ ড. রাজ্জাক বলেন, ২০৩০ সালের মধ্যে অর্থনীতির আকার এক ট্রিলিয়ন ডলার হওয়ার প্রত্যাশা করছে বাংলাদেশ। তবে সেজন্য ট্যাক্স ও জিডিপি হার বাড়াতে হবে। জিডিপির ২৩ থেকে ২৪ শতাংশ বিনিয়োগ বেসরকারি খাত থেকে আসে। এটি বেশ ভালো। তবে বাংলাদেশ বিদেশি বিনিয়োগের অবস্থা এখনো খুব একটা ভালো নয়। ২০২১ সালে ২ বিলিয়নের কিছু বেশি বিদেশি বিনিয়োগ এসেছে। তবে চীন, ভারত, ভিয়েতনামসহ এশিয়ার অন্য দেশে এর চেয়ে বেশি বিনিয়োগ এসেছে।

আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য ঘাটতির বিষয়ে তিনি বলেন, রপ্তানি আয় ও রেমিট্যান্সের মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রা আসে। কিন্তু আমাদের পণ্য আমদানিতে অনেক বেশি অর্থ খরচ হয়। যদিও আমাদের রেমিট্যান্স আসার হার ভালো, তবে এর বড় একটি অংশ ব্যাংকিং চ্যানেলের বাইরে আসে। রাজস্ব প্রবৃদ্ধি ১৫ শতাংশ পর্যন্ত বাড়ানো সম্ভব। আসা করি বাংলাদেশ এটি অর্জন করতে সক্ষম হবে।

প্রত্যক্ষ বৈদেশিক বিনিয়োগ ১৫ বিলিয়ন ডলার করা যেতে পারে জানিয়ে তিনি বলেন, এটি বাজেটের ৫ থেকে ৬ শতাংশ হারে বাড়ানো যায়। পাশাপাশি রাজস্বও বাড়ানো যায়। আমাদের কর্মী দক্ষতা ১০ শতাংশ বাড়ালে দেশের অর্থনীতিতে আরো ৬০ বিলিয়ন ডলার যোগ হবে। এভাবে সব মিলিয়ে ২০৩০ সালের মধ্যে অর্থনীতি ১ ট্রিলিয়ন ডলারে পরিণত করা সম্ভব। এ সময় প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়নের ওপর জোর দেন আরেক অর্থনীতিবিদ ড. আবু ইউসুফ।

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
পরিকল্পনামন্ত্রী
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close