নিজস্ব প্রতিবেদক

  ২৬ নভেম্বর, ২০২২

খুব কাছাকাছি দুই শহর  

ঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেল

ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম হয়ে কক্সবাজারের দূরত্ব ৪০ কিলোমিটার ও সময় প্রায় এক ঘণ্টা কমিয়ে আনছে কর্ণফুলী নদীর তলদেশে নির্মিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেল। দুটি টিউব ও চার লেনের সড়কে নদীর তলদেশ দিয়ে পাঁচ মিনিটে চট্টগ্রামের পতেঙ্গা থেকে যাওয়া যাবে আনোয়ারায়।

সেতু বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশেই প্রথম নদীর তলদেশে চলবে যানবাহন। চীনের সাংহাই শহরের আদলে ‘ওয়ান সিটি টু টাউন’ গড়ে তোলার লক্ষ্যে চট্টগ্রামের পতেঙ্গা ও আনোয়ারাকে যুক্ত করবে এ টানেল। এতে নগরের অংশ বাড়বে। সেই সঙ্গে নদীর তলদেশ দিয়ে কম সময়ে যাতায়াত সুবিধা নেবে দুটি আলাদা শহর। অন্যদিকে ঢাকা থেকে কক্সবাজারের দূরত্ব কমে আসবে।

রাজধানী থেকে কক্সবাজারগামী গাড়িগুলো ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ফৌজদারহাট দিয়ে বন্দর টোল রোডের সঙ্গে নির্মিত আউটার রিং রোড-পতেঙ্গা হয়ে কর্ণফুলী টানেল ব্যবহার করলে চট্টগ্রামের দিকে পথ কমবে প্রায় ১৫ কিলোমিটার। এতে করে চট্টগ্রাম শহরে প্রবেশ না করেই সময় বাঁচাতে পারবেন চালকরা। কর্ণফুলী টানেল দিয়ে আনোয়ারা উপজেলার সিইউএফএল ঘাট-চাতরি চৌমুহনী-বাঁশখালী-পেকুয়ার মগনামা হয়ে সরাসরি কক্সবাজার সদরে যুক্ত হলে সৈকত নগরীর দূরত্ব কমবে প্রায় ৩০ কিলোমিটারের মতো।

পদ্মা সেতুর পর সরকারের মেগা প্রজেক্টগুলোর অন্যতম বঙ্গবন্ধু টানেল। ৩ দশমিক ৩২ কিলোমিটার এ টানেল নির্মাণব্যয় ধরা হয়েছে ১০ হাজার ৫৩৭ কোটি টাকা। এক নগরের দুই শহর সংযুক্ত করার ভাবনা থেকেই কর্ণফুলী টানেল নির্মাণের পরিকল্পনা করে সরকার।

সেতু বিভাগ জানায়, উত্তর ও দক্ষিণ নামে দুটি টানেলের দৈর্ঘ্য ৩ দশমিক ৩২ কিলোমিটার। প্রতি টানেলে রয়েছে দুই লেনের প্রশস্ত রাস্তা। এ দুই টিউব তিনটি সংযোগপথের (ক্রস প্যাসেজ) মাধ্যমে যুক্ত থাকবে। বিপদকালে অন্য টিউবে যাওয়ার জন্য ক্রস প্যাসেজগুলো ব্যবহার হবে।

২০১৬ সালের ১৪ অক্টোবর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও চীনের প্রেসিডেন্ট শি চিন পিং টানেল প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। ২০১৯ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রথম টানেল টিউবের বোরিং কাজ উদ্বোধন করেন। ২০২০ সালের ১২ ডিসেম্বর সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের দ্বিতীয় টিউবের বোরিং কাজ উদ্বোধন করেন।

৩ দশমিক ৩২ কিলোমিটার টানেলটি কর্ণফুলী নদীর মোহনার কাছে পশ্চিম প্রান্তে পতেঙ্গা নেভাল একাডেমির কাছ থেকে শুরু হয়ে পূর্ব প্রান্তে চট্টগ্রাম ইউরিয়া সার কারখানা (সিইউএফএল) ও কর্ণফুলী সার কারখানার (কাফকো) মাঝখান দিয়ে আনোয়ারা প্রান্তে পৌঁছেছে।

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব আহমদ কায়কাউস, সেতু বিভাগের সচিব মনজুর হোসেন ও প্রকল্প পরিচালক হারুনর রশীদ বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর) প্রকল্প এলাকা ঘুরে জানুয়ারিতে টানেলের সুফল পাওয়া যাবে বলে জানান।

প্রকল্প পরিচালক বলেন, ২০১৫ সালের নভেম্বরে নির্মাণ শুরু হওয়া টানেল প্রকল্পটি পূর্ণতা পাবে ২০২৩ সালের জানুয়ারিতে। বঙ্গবন্ধু টানেল একদিকে পর্যটনশিল্পে যেমন অবদান রাখবে, তেমনই এর মাধ্যমে জিডিপি প্রবৃদ্ধির সম্ভাবনা রয়েছে দশমিক ১৬ শতাংশ।

আহমদ কায়কাউস জানান, অর্থনৈতিক অর্জনসহ ভ্রমণস্বপ্ন বাস্তবায়ন হবে টানেল নির্মাণের মধ্য দিয়ে। প্রকল্পে সময় একটু বেশি লাগলেও বাস্তবতার নিরিখে এটি বাংলাদেশের জন্য গৌরবের।

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
কক্সবাজার,ঢাকা,শহর
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close