নিজস্ব প্রতিবেদক

  ০৬ অক্টোবর, ২০২২

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ

এক বছরে আটার দাম বেড়েছে ৬২ শতাংশ 

ছবি : সংগৃহীত

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাব আমদানির ওপর পড়ায় দেশীয় বাজারে শস্যজাতীয় পণ্যের সরবরাহ ও মজুদ কমে গেছে। এতে বাংলাদেশে আটার দাম রেকর্ড পরিমাণ বেড়েছে। গত বছরের সেপ্টেম্বরের তুলনায় এ বছরের একই মাসে আটার দাম ৬২ শতাংশ বেশি ছিল।

খাদ্য ও কৃষি সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, আটার খুচরা মূল্য বেড়ে এ বছরের সেপ্টেম্বরে কেজিপ্রতি ৫০ টাকা ১০ পয়সায় দাঁড়িয়েছে। ৪ অক্টোবর রাজধানীর খুচরা বিক্রেতারা প্রতি কেজি আটা ৫৪-৫৫ টাকা দরে বিক্রি করেন, যা এর আগের মাসের তুলনায় ১০ শতাংশ বেশি এবং এক বছর আগের একই সময়ের চেয়ে ৬২ শতাংশ বেশি।

আমদানিকারক ও প্রক্রিয়াজাতকারীরা বলছেন, গমের প্রধান উৎস ভারত, রাশিয়া ও ইউক্রেন। আন্তর্জাতিক বাজারে গমের মূল্যবৃদ্ধি, টাকার বিপরীতে ডলারের মান বৃদ্ধি এবং মজুদ কমায় বিস্কুট ও বেকারিতে ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত গমের দামও বেড়েছে। এ ছাড়া আমদানি পণ্যের জন্য ঋণপত্র (এলওসি) খোলার ক্ষেত্রেও ব্যবসায়ীরা সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন।

২০২২ সালের মে মাসে ভারত স্থানীয় বাজারে দাম নিয়ন্ত্রণের জন্য শস্যজাতীয় পণ্য রপ্তানি সীমাবদ্ধ করে। যার প্রভাব পড়ে বাংলাদেশি বাজারেও। কারণ ২০২০ সাল থেকেই গমের জন্য বাংলাদেশের প্রধান উৎস ভারত। যুদ্ধের কারণে ফেব্রুয়ারিতে রাশিয়া ও ইউক্রেন থেকে আমদানি বন্ধ হয়ে যায়। এরপর ভারত এ সিদ্ধান্ত নেয়।

২০২১-২২ অর্থবছরে বাংলাদেশের গম আমদানি ৬ বছরের মধ্যে সর্বনিম্নে নেমে এসেছে। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, ২০২১-২২ অর্থবছরে সরকারি ও বেসরকারি আমদানি ২৫ শতাংশ কমে ৪০ লাখ টনে দাঁড়িয়েছে। আর ২০২২-২৩ অর্থবছরের ২৫ আগস্ট পর্যন্ত মোট গম আমদানির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১ দশমিক ৬২ লাখ টনে, যা এর আগের বছরের একই সময়ের ২ দশমিক ৪৮ লাখ টনের তুলনায় ৩৫ শতাংশ কম।

নারায়ণগঞ্জের আটা ও ময়দা মিল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘বাজারে গমের সরবরাহ কম। আমরা যখন সরবরাহ পাই, তখন এর দামও বেশি হয়।’

চট্টগ্রামভিত্তিক পণ্য আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান বিএসএম গ্রুপের চেয়ারম্যান আবুল বাশার চৌধুরী বলেন, ‘মে মাসের পর ভারত থেকে গম আসা বন্ধ হয়ে গেছে। প্রতিবেশী দেশের এ নিষেধাজ্ঞার পর আন্তর্জাতিক বাজারে গমের দাম বেড়েছে। একই সঙ্গে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবও রয়েছে।’

অভ্যন্তরীণ উৎপাদন কম হওয়ায় দেশের মোট বার্ষিক চাহিদার তিন-চতুর্থাংশই আমদানিনির্ভর। ইউক্রেন ও রাশিয়া থেকে আমদানি করা গম ১৫ অক্টোবরের মধ্যে বাংলাদেশে আসবে উল্লেখ করে আবুল বাশার চৌধুরী বলেন, গমের মজুদ, বিশেষ করে বেসরকারি খাতের মজুদ দেশে ইতিহাসে এখন সর্বনিম্নে। ইউক্রেন ও রাশিয়া থেকে আমদানি করা গম এলে সহজলভ্যতা বাড়বে। প্রায় ৫ লাখ টন গম নিয়ে ৬ থেকে ৭টি জাহাজ ইতোমধ্যে রওনা দিয়েছে।

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ,এক বছরে আটার দাম,বেড়েছে ৬২ শতাংশ
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close