নিজস্ব প্রতিবেদক

  ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২

জানতে চায় প্রতিযোগিতা কমিশন

কোন ধানে কোন চাল? 

মিনিকেট চাল কীভাবে হয়? ধান থেকে চাল বানিয়ে কী নাম দিচ্ছেন? একই ভ্যারাইটির ধান থেকে কয় ধরনের চাল করা হয়? চাল প্রস্তুতকারক ‘এরফান ব্র্যান্ড’-এর প্রতিনিধির কাছে এমন সব প্রশ্নের উত্তর চেয়েছিল প্রতিযোগিতা কমিশন। জবাবে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, মিনিকেট চালের নামে প্রতিবন্ধকতা আছে। দিনাজপুর ও নওগাঁ অঞ্চল থেকে জিরাশাইল ধান সংগ্রহ করে তা থেকে তৈরি করা হয় মিনিকেট চাল।

রাজধানীতে প্রতিযোগিতা কমিশন কার্যালয়ে এক মামলার শুনানিতে মিনিকেট চাল ছাড়াও বিভিন্ন ইস্যু উঠে আসে। চাল-আটাসহ বিভিন্ন পণ্য বাজারজাতকারী কয়েকটি কোম্পানির প্রতিনিধিরা সকাল থেকে মামলার শুনানিতে হাজির হয়ে তাদের যুক্তি তুলে ধরেন। আলোচনার বড় অংশজুড়েই ছিল চাল ইস্যু। ভোক্তা-ক্রেতার নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যটি নানা প্রশ্ন তুলে সেসবের বিষয়ে উৎপাদকদের কাছে জানতে চায় কমিশন।

তবে সব কোম্পানিই প্রয়োজনীয় তথ্য সরবরাহ না করে আইনজীবীর মাধ্যমে সময় বৃদ্ধির আবেদন করে। কমিশন পরে শুনানির পরবর্তী দিন ধার্য করে।

প্রতিযোগিতা কমিশনের চেয়ারপারসন মফিজুল ইসলাম এবং সদস্য জিএম সালেহ উদ্দিন, এ এফ এম মনজুর কাদির ও নাসরিন বেগম কয়েকটি কোম্পানির বিরুদ্ধে অভিযোগের বিষয়ে শুনানি গ্রহণ করেন।

বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) ছয়টি প্রতিষ্ঠানের আটটি মামলার ওপর শুনানির দিন নির্ধারিণ করা ছিল। তবে নওগাঁর মজুমদার অটো রাইস মিলের স্বত্বাধিকারী ব্রজেন মজুমদার শুনানির জন্য কোনো প্রতিনিধি পাঠাননি। আর চালের জন্য স্কয়ার ফুড অ্যান্ড বেভারেজ ও এরফান গ্রুপ, চাল ও আটা-ময়দার জন্য বসুন্ধরা গ্রুপের বিরুদ্ধে অভিযোগের শুনানি হয়েছে।

এছাড়া ডিমের বাজারে অস্থিরতার জন্য ডায়মন্ড এগ লিমিটেড, মুরগির দামে অস্থিরতার জন্য নারিশ পোলট্রি ও হ্যাচারি লিমিটেড এবং টয়লেট্রিজের জন্য স্কয়ার টয়লেট্রিজকে শুনানিতে ডাকা হয়।

এরফান গ্রুপ : শুনানিতে এরফান গ্রুপের পক্ষে লিগ্যাল অফিসার মো. কামরুজ্জামান ও আইনজীবী মো. জহিরুল ইসলাম বলেন, ‘তারা বাজারে চিনিগুঁড়া, নাজিরশাইল ও মিনিকেট চাল বিক্রি করেন।’

মিনিকেট চাল কিভাবে হয় এমন প্রশ্নের জবাবে তারা বলেন, ‘মিনিকেট আমাদের না। নাজিরশাইল, কাজললতা, পাইজাম এমন নানা ধরনের চাল আছে।’

বিআর-২৮, বিআর-২৯ বাজারজাত করেন কিনা এ প্রশ্নের জবাবে এরফান গ্রুপের একজন প্রতিনিধি বলেন, ‘বিআর-২৮, বিআর-২৯ চাল আমরা বাজারজাত করি না।’

কমিশন জানায়, ‘কোন জাতকে কোন নামে কোন ব্র্যান্ডে বিক্রি করছেন তার সুনির্দিষ্ট তথ্য দিতে হবে। একই ভ্যারাইটির ধান থেকে উৎপাদিত চাল ভিন্ন ভিন্ন ব্র্যান্ড নাম দিয়ে ভিন্ন ভিন্ন দামে বিক্রি করছেন কিনা সে বিষয়েও বিস্তারিত তথ্য লাগবে।’

শুনানিতে প্রতিনিধিরা জানান, তাদের ব্র্যান্ডের নাম এরফান। চালের মিল চাঁপাইনবাবগঞ্জে। অন্য কোথাও আর কোনো গুদাম নেই। ঢাকায় তাদের অফিস আছে।

কমিশন পরবর্তী শুনানিতে সব ধরনের ধান ও কোন জাত থেকে কোন নামে চাল করা হচ্ছে সেসবের এক কেজি করে নমুনা নিয়ে আসতে বলে দেয়। সব প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ১৬ অক্টোবর পর্যন্ত তাদের সময় দিয়েছে কমিশন।

স্কয়ার টয়লেট্রিজ লিমিটেড : চাল এবং সাবান, গুঁড়া সাবান ও সুগন্ধী সাবানের দুটি মামলার শুনানির জন্য স্কয়ার টয়লেট্রিজের পক্ষে তাদের দুজন আইনজীবী ব্যারিস্টার বিভূতি তরফদার ও মুহাম্মদ আল ইমরান শুনানিতে অংশ নেন।

প্রতিনিধিরা জানান, তারা সুগন্ধী চাল প্যাকেজাত করে বাজারজাত করেন। তাদের ব্র্যান্ডের নাম চাষী। সুগন্ধীর কোন ভ্যারাইটি বিক্রি করেন জানতে চাইলে তারা চিনিগুঁড়া চালের কথা জানান।

চিনিগুঁড়া সুগন্ধী কোনো ভ্যারাইটি কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে তারা বলেন, ‘এটা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সার্কুলারে আছে। সারা দেশে এই চাল বিক্রি করা হয়। এটা মূলত রপ্তানির জন্য করা হয়। আগে ৪০টি দেশে রপ্তানি করা হতো। বর্তমানে সরকারি নির্দেশে চাল রপ্তানি বন্ধ রয়েছে।’

ভ্যারাইটি বলতে কোন ধান থেকে চিনিগুঁড়া হয় এমন প্রশ্নের জবাব দিতে স্কয়ারের প্রতিনিধিরা সময় চান।

কমিশন পরবর্তী শুনানিতে সব ধরনের ধান ও কোন জাত থেকে কোন নামে চাল করা হচ্ছে, প্রতিটির এক কেজি করে নমুনা নিয়ে আসতে বলে দেয়। চাল খাতে কোম্পানির গত তিন বছরের আয়-ব্যয়ের তথ্যও চেয়েছে কমিশন। সব প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ২৬ অক্টোবর পর্যন্ত তাদের সময় দিয়েছে কমিশন।

ডায়মন্ড এগ লিমিটেড : কমিশনের শুনানিতে ডায়মন্ড এগ লিমিটেডের কোম্পানির পক্ষে মহাব্যবস্থাপক মো. আসাদুজ্জামান ও আইনজীবী এস এম শিহাব উদ্দীন অংশ নেন।

তারা জানান, গাজীপুরের কাপাসিয়াসহ একাধিক স্থানে তাদের চারটি ফার্ম আছে। তাদের ফার্মে প্রতিদিন ৯ লাখ ডিম উৎপাদন হয়। অন্য জায়গা থেকে কিনে বিক্রি করা হয় না। তাদের কোনো অর্গানিক ডিম নেই।

দাম নির্ধারণের পদ্ধতি সম্পর্কে জানতে চাইলে তারা জানান, খোলা বাজারে ডিলারদের মাধ্যমে বিক্রি করা হয়। সারা দেশে তাদের ৪০ জন ডিলার আছেন। তারা জেলার বিভিন্ন পাইকারি বাজার থেকে তথ্য সংগ্রহ করে তাদের জানান। তারপর ডিমের উৎপাদন থেকে সার্বিক মূল্য অ্যাভারেজ করে দাম নির্ধারণ করা হয়। এই পর্যায়ে কমিশন মন্তব্য করে, পণ্য উৎপাদন করব আমি, আর দাম ঠিক করবে অন্যজন ব্যাপারটা এমন।

এ সময় ডায়মন্ডের প্রতিনিধিরা জানান, দেশের বাজারে অনেক বড় জোন আছে। সেখান থেকে দরের তথ্য নেওয়া হয়।

মুরগির বাজারে অস্থিরতা সম্পর্কিত প্রশ্নের জবাবে নারিশ পোলট্রি ও হ্যাচারি লিমিটেডের প্রতিনিধি শুনানিতে জানান, ‘তারা মুরগি বিক্রি করেন না। তাদেরই আরেকটি কোম্পানি নরেশ এগ্রো এটা করে।’

অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি, বাজারে কৃত্রিম সংকট তৈরিসহ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে চাল, আটা-ময়দা, ডিম-মুরগি, সাবান ও ডিটারজেন্ট পাউডার বাজারজাতকারী এবং পাইকারি ব্যবসার সঙ্গে জড়িত বিভিন্ন কোম্পানির বিরুদ্ধে সম্প্রতি ৪৪টি মামলা করে প্রতিযোগিতা কমিশন। সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) থেকে সেসব মামলার ওপর ধারাবাহিক শুনানি চলছে।

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
প্রতিযোগিতা কমিশন,কোন ধানে কোন চাল
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close