reporterঅনলাইন ডেস্ক
  ২৭ মে, ২০২২

সোনা চোরাচালানের সঙ্গে বিমানের লোকজন জড়িত : বিমান প্রতিমন্ত্রী

ছবি : সংগৃহীত

সোনা চোরাচালানের সঙ্গে বিমানের লোক জড়িত বলে মন্তব্য করেছেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী। তিনি বলেন, শাহজালাল বিমানবন্দরে সবশেষ সোনা চোরাচালানের সঙ্গে বিমান বাংলাদেশের আরও অনেকে যুক্ত রয়েছেন।

কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ‘সোনাগুলো যার কাছ থেকে পাওয়া গেছে সে বিমানেরও কেউ না, ক্যারিয়ারেরও না। সে ভেতরে কর্মরত। সুতরাং এখানে অন্য কেউ জড়িত।’

বৃহস্পতিবার (২৬ মে) বিকালে বিমানবন্দরের বিমানের ফ্লাইট ক্যাটারিং সেন্টার (বিএফসিসি) পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

বিমান প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘সোনা চোরাচালান সিন্ডিকেটে যারাই জড়িত, তাদের কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। তাদেরকে শক্তভাবে ধরা হবে। যে ধরা পড়েছে, তারও স্বীকারোক্তি নেওয়া হবে। এই প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত একজনও ছাড় পাবে না। সেই সঙ্গে ভবিষ্যতেও যেন এই ধরনের ঘটনা না ঘটে, তার জন্য যে গেট দিয়ে তারা যাতায়াত করে ওই গেটটিও রিপ্লেসমেন্ট করা হবে। এখানে একটি স্ক্যানার মেশিন স্থাপনের জন্য দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

বারবার কেন বিমানে স্বর্ণ চোরাচালানের ঘটনা ধরা পড়ছে এমন প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, “শুধু বিমান নয়, বেসরকারি প্লেনে অনেক সময় এই ধরনের চোরাচালান ধরা পড়ে।”

এ সময় বিমান প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোকাম্মেল হোসেন, বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (সিভিল অ্যাভিয়েশন) চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান, বাংলাদেশ বিমানের উপ-মহাব্যবস্থাপক তাহেরা খন্দকারসহ অন্যান্য কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বুধবার একটি অনাকাঙ্ক্ষিত ও দুঃখজনক ঘটনা ঘটেছে। এটি শোনামাত্রই আমরা এখানে এসেছি। কে কোন দিক দিয়ে যায়, কার ডিউটি, কীভাবে পাস হয়, এয়ারক্রাফটে খাবারগুলো কীভাবে যায়, কার দায়িত্বে যায়, কে সুপারভাইজ করে এবং ফ্লাইট আসার পর এয়ারক্রাফট থেকে খাবারগুলো কীভাবে কে নিয়ে আসে, এ সমস্ত দায়দায়িত্ব কার ওপরে, কোথায় থেকে মেইনট্যানেন্স হয় এই জিনিসগুলো আমরা দেখলাম।’

বুধবার আব্দুল আজিজ নামের একজনের কাছ থেকে সোনাগুলো উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানান তিনি। বিমান ফ্লাইট ক্যাটারিং সেন্টার (বিএফসিসি) থেকে আব্দুল আজিজকে আটকে রাখার খবর জানতে পারেন প্রতিমন্ত্রী। তারা আব্দুল আজিজকে একটি কক্ষে আটকে রেখে পরবর্তীতে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে।

প্রতিমন্ত্রী জানান, এ ঘটনায় আব্দুল আজিজকে বরখাস্ত করা হয়েছে। এ ছাড়া বিমান থেকে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। অপরদিকে মন্ত্রণালয় থেকে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। সেহেতু এটি বিমানবন্দরের ঘটনা, সেহেতু বিমানবন্দরের সিকিউরিটির সঙ্গে জড়িত—এমন একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং বিমানের কর্মকর্তা নিয়ে একটি তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। এতে মন্ত্রণালয়ের একজন অতিরিক্ত সচিবও থাকবেন।

মো. মাহবুব আলী বলেন, ‘তদন্ত কমিটিতে শুধু যদি বিমানের লোকজনই থাকে, তাহলে আমরা সঠিকভাবে সঠিক তথ্য নাও পেতে পারি।’

কাস্টমস কর্মকর্তাদের কাছে তথ্য ছিল ৪০ কেজি স্বর্ণের, কিন্তু ধরা পড়লে ৮ কেজি। তাহলে বাকি স্বর্ণ কোথায়? এ প্রসঙ্গে সাংবাদিকেরা জানতে চাইলে প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী বলেন, ‘আমি যে তথ্য পেলাম সেটিই জানালাম। কিন্তু এটিই যে সঠিক, তাও নয়। এটি তদন্তের বিষয়। আমরা কেউ এবং বিমানের কর্তৃপক্ষ কেউ চায় না, বিমান সোনা চোরাচালানের সঙ্গে জড়িত থাকুক। জড়িত কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘কাস্টমসের কাছে যদি ৪০ কেজি স্বর্ণের তথ্য থাকে তাহলে কাস্টমস হাউস কর্তৃপক্ষ এখানে ঢুকবে। তারা তদন্ত করবে। এ ছাড়া বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার লোকজনও তদন্ত করবে। আমরাও তদন্ত করব।’

আব্দুল আজিজের বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে তা জানতে চাইলে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘পুলিশ ইনভেস্টিগেশন করবে। পুলিশের তদন্তের পর যদি চার্জশিট দেওয়া হয়, সেটি কোর্টে যায়। কোর্ট বিচার করে। আমরা চাই, দ্রুত যেন এর বিচার হয়। সোনা চোরাচালান বন্ধ হয়। এটিই আমাদের চ্যালেঞ্জ।’

প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে থাকা বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল এম মফিদুর রহমান বলেন, ‘বিমানবন্দরে সিভিল এভিয়েশনের পক্ষ থেকে তল্লাশি ও নিরাপত্তা যাতে বাড়ানো হয় সেটা দেখা হবে। আমরা একটা পরিকল্পনা করব যাতে বিএফসিসির ভেতরে আমাদের তত্ত্বাবধানেও তল্লাশি থাকে।”

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন সচিব মো. মোকাম্মেল হোসেন এসময় উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
সোনা চোরাচালান,বিমান প্রতিমন্ত্রী,পর্যটন মন্ত্রণালয়
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close