ব্রেকিং নিউজ

১০০ টাকায় ‘মানুষ মানুষের জন্য’

প্রকাশ : ০৮ এপ্রিল ২০২০, ১৮:৩২ | আপডেট : ০৮ এপ্রিল ২০২০, ২০:৫১

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিপদগ্রস্তদের হাহাকার কি শুনতে পাচ্ছেন কেউ? নিম্নবিত্ত, নিম্ন মধ্যবিত্ত, মধ্যবিত্ত আজ সবাই এক কাতারে। আসুন তাদের দুর্দশা দূর করতে পাশে দাঁড়াই। সবাই মিলে ১০০ টাকা করেও যদি দিই, তাহলে অসহায় মানুষগুলো অনাহারে থাকবে না। বাড়িয়ে দিন মানবতার হাত। এমন শ্লোগানকে সামনে রেখে অনেকটা ঝুঁকি নিয়ে অসহায় মানুষদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে ‘মানুষ মানুষের জন্য’।

বর্তমানে নভেল করোনাভাইরাসের তাণ্ডবে বিপর্যস্ত গোটা বিশ্ব। বাংলাদেশেও এই মরণঘাতী ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে নানান পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। বর্তমানে অঘোষিত লকডাউনে সারাদেশ। এমন অবস্থায় কর্মহীন নিম্নবিত্ত, নিম্ন মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত পরিবার। আর্থিক সংকটের পাশাপাশি খাবার সংকটে বিপর্ষস্ত এইসব পরিবারের মানুষগুলো। মূলত তাদেরই খাদ্য সহায়তা দিতে এগিয়ে এসেছে মানবিক সেবামূলক সংগঠনটি।

কাগজে-কলমে সংগঠন হিসেবে স্বীকৃতি না থাকলেও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘মানুষ মানুষের জন্য’ শিরোনামে গ্রুপ ও পেইজ খুলে তহবিল সংগ্রহের মাধ্যমে অসহায়দের খাদ্য সহযোগিতা করে যাচ্ছে। গত ২৭ মার্চ অসহায়দের জন্য কিছু করা- এই ধারণা থেকে ‘মানুষ মানুষের জন্য’ এর যাত্রা শুরু। এ পর্যন্ত প্রায় ২৫০ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংগঠনের উদ্যোক্তারা। অন্তরালে থেকে মানুষ মানুষের জন্য নামকরণে মানবিক সেবা করে যাচ্ছেন একজন স্থপতি কিন্তু পেশায় শিক্ষিকা রুমানা আক্তার ও সাংবাদিক, নাট্যকার ও সাহিত্যিক রিহাব মাহমুদ। সম্পর্কে তারা স্বামী-স্ত্রী।

নিজেদেরকে এতদিন সামনে না আনার কারণ সম্পর্কে জানতে চাইলে প্রতিদিনের সংবাদকে সাংবাদিক রিহাব মাহমুদ বলেন, এমন একটা সময় অতিবাহিত করছি আমরা, এই সময়ে নিজেদের ফটোসেশন করার চেয়ে বিপদগ্রস্তদের সহায়তা করা অনেক বেশি জরুরি। আমরা তাই করেছি। আমরা যাদের সহযোগিতা করছি তাদের অনেকেই আমাদের চেহারা দেখেননি। আমরা তা চাইও না। সাহায্য পেলেই হলো।

তিনি বলেন, আসলে আমার স্ত্রীই এটার মূল উদ্যোক্তা। সেই আমাকে নিজ থেকে অর্থ দিয়ে অসহায়দের জন্য কিছু করার কথা প্রথম বলেন। তারপর থেকে আমরা আমাদের আত্মীয়স্বজন, বন্ধু-বান্ধব ও পরিচিত মহলে যোগাযোগ করে তহবিল সংগ্রহ করি। এতে আমরা ভালোই সাড়া পেয়েছি। এ পর্যন্ত প্রায় দুই শতাধিক অসহায় পরিবারের কাছে আমরা খা্দ্যদ্রব্য পৌঁছাতে সক্ষম হয়েছি।

রুমানা আক্তার বলেন, আলহামদুলিল্লাহ, সবার সহযোগিতায় আমরা অসহায়দের সাহায্য করতে পারছি এটাই আমার অনুপ্রেরণা। এছাড়া যারা আমাদের তহবিলে মানবসেবার জন্য দান করেছেন তাদের কাছেও আমরা চির-কৃতজ্ঞ। আমার সত্যিই খুব ভালো লাগে যখন দেখি মানুষ মানুষের জন্য তহবিলে পরিচিত জন ছাড়াও অনেক অপরিচিত শুভাকাঙ্খী মানবতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। তাদের কাছে আমরা সত্যিই কৃতজ্ঞ। আরও ভালো লাগে তখন, যখন কেউ আমাদের কাছে সহায়তা চাইলে আমরা বিভিন্ন মাধ্যমে তাদের কাছে খাবার পৌঁছাতে পারি।

তিনি আরও বলেন, প্রতিদিন আমাদের কাছে খাদ্য সহায়তা চাওয়া হচ্ছে। আমরা আমাদের সাধ্যমতো চেষ্টা করছি এসব বিপদগ্রস্ত মানুষকে সহায়তা করতে। আর যেখানে আমরা খাদ্যদ্রব্য পৌঁছাতে পারছি না, সেখানে নিকটস্থ থানায় যোগাযোগ করে খাদ্য সহায়তার ব্যবস্থা করছি।

এর আগে এমন মানবিক কাজ করেছেন কিনা জানতে চাওয়া হলে প্রতিদিনের সংবাদকে রুমানা জানালেন, তিনি তার কর্ম প্রতিষ্ঠানে তার গৃহকর্মীর কন্যা সন্তানকে দেড় বছর ধরে পড়াশুনার খরচ বহন করে আসছেন এবং বাসায়ও কয়েকজন অসহায় পরিবারের শিক্ষার্থীকে বিনা পারিশ্রমিকে পড়াশুনা করাচ্ছেন। 

বর্তমানে অসহায়দের সহায়তার পাশাপাশি ভবিষ্যতেও ‘মানুষ মানুষের জন্য’ এর মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের মানবিক কাজে সবার পাশে থাকবেন বলে জানিয়েছেন তারা। তাদের সম্পর্কে জানতে ভিজিট করতে পারেন- গ্রুপ লিংক :https://www.facebook.com/groups/748661822168374/ পেইজ লিংক :https://www.facebook.com-158673931182063/ যোগাযোগ : 01612017971