অনলাইন ডেস্ক
  ২৪ জানুয়ারি, ২০২১

ঢাকার বায়ুদূষণ ঠেকানো আজ সময়ের দাবি

বায়ুদূষণের মাত্রা বাড়ছেই। কোনোভাবেই লাগাম টেনে ধরে রাখা যাচ্ছে না। পৃথিবীতে সবচেয়ে বিপজ্জনক অবস্থায় রয়েছে রাজধানী ঢাকা। গবেষণা বলছে, বিপজ্জনক মাত্রার কারণে মানুষের গড় আয়ু কমছে, ঢাকা শহরের গাছপালায় প্রতিদিন ৪৩৬ টন ধূলিকণা জমে। তথ্যানুসারে বলতেই হয়, কেবল গাছপালায় যদি এই পরিমাণ ধূলিকনা জমে তাহলে ঢাকার বাতাসের অবস্থা কী! সরকার নানা উদ্যোগের কথা বললেও, অবস্থার তেমন কোনো পরিবর্তন নেই। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক বিশ্বের বায়ুমান যাচাইবিষয়ক প্রযুক্তি-প্রতিষ্ঠান ‘এয়ার ভিজুয়াল’ এর বায়ুমানসূচক (একিউআই) অনুযায়ী, গত বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত ঢাকা ঢাকার অবস্থান ছিল ১ নম্বরে আর দূষণের মানমাত্রা উঠেছিল ৩২৬ পর্যন্ত। এর আগের দিনও একই সময়ে ঢাকা ছিল শীর্ষে। চলতি সপ্তাহে দিনের কোনো না কোনো সময়ে দূষণের ১ নম্বরে ছিল ঢাকা। গত ১০ জানুয়ারি দূষণের মানমাত্রা ছিল ৫০২। বায়ু বিশেষজ্ঞদের মতে, সূচক ৩২৬ মানেই দুর্যোগপূর্ণ। বায়ু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এখনই দূষণ কমাতে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করা জরুরি। এটা কেবল মানব শরীর বা পরিবেশের ক্ষতি করছে না মানুষের গড় আয়ুতেও আঘাত হানছে।

বায়ুদূষণের ক্ষেত্রে অনেকেই একতরফা সরকারকেই দায়ী করে থাকে। এই দায়ী করাকে আমরা অর্ধসত্য হিসেবে গণ্য করি। এর মানে এই নয় যে, সরকারের কোনো দায়-দায়িত্ব নেই। সরকারের দায়িত্ব আছে, এ কথা যেমন সত্য- একইভাবে ঢাকাবাসীর দায়িত্বও কম নয়। ঢাকা মহানগরকে পরিচ্ছন্ন রাখার ক্ষেত্রে সর্বাগ্রে ঢাকাবাসীকে সচেতন হতে হবে। তাদের অসচেতনতার কারণে ঢাকার পরিবেশ অনেকটা অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে। ময়লা আবর্জনা বেরিয়ে যাওয়ার রাস্তা বন্ধ হবার উপক্রম হয়েছে। সরকার পরিচ্ছন্ন করার চেষ্টা চালালেও আমাদের অপরিচ্ছন্ন চিন্তা সেই চিন্তাকে বাধাগ্রস্ত করছে। এখান থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য সর্বাগ্রে ঢাকাবাসীর মস্তিষ্কের আবর্জনাকে পরিষ্কার করতে হবে। দায়িত্ব নিতে হবে পরিচ্ছন্ন রাখার। ব্যক্তিস্বার্থকে বিসর্জন দিয়ে সে দায়িত্ব¡ পালন করতে পারলে ঢাকাকে সব ধরনের দূষণ থেকে মুক্ত করা সম্ভব। তবে সচেতন করার ক্ষেত্রে সরকারকেই প্রথম উদ্যোক্তা হিসেবে এগিয়ে আসতে হবে।

আন্তর্জাতিক জার্নাল কার্ডিওভাসকুলার রিসার্চে প্রকাশিত একটি গবেষণায় বলা হয়, বায়ুদূষণের কারণে সারা বিশ্বে মানুষের গড় আয়ু তিন বছর কমেছে। অকালে মারা যাচ্ছে ৮৮ লাখ মানুষ। জনস্বাস্থ্যের ওপর বায়ুদূষণের প্রভাব ধূমপানের চেয়েও ক্ষতিকর। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) এক প্রতিবেদনে বলছে, বর্তমানে দেশের মানুষের গড় আয়ু ৭২ দশমিক ৬ বছর। এক বছর আগে একই সময়ে এ গড় আয়ু ছিল ৭২ দশমিক ৩ বছর। তবে বায়ু দূষণ অব্যাহত থাকলে বাড়তির দিকে থাকা এই গড় আয়ু এক লাফে নেমে যেতে পারে ৬৭ বছরে। বিশ্বের এক চতুর্থাংশ মানুষ দক্ষিণ এশিয়ার চার দেশ- বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান ও নেপালে বসবাস করে। এ চার দেশে বায়ুদূষণের মাত্রাও বেশি। প্রতিবেদন বলছে, কেবল বায়ুদূষণের কারণে এই চার দেশের মানুষের গড় আয়ু ৫ বছর কমে যেতে পারে। সুতরাং এখন আমাদের সামনে একটি মাত্র পথই খোলা আছে, নিজেদের সুন্দর ও সুস্থভাবে বাঁচিয়ে রাখার স্বার্থে আমাদের চিন্তা ও চেতনাকে জাগ্রত করতে হবে। মস্তিষ্কের আবর্জনা দূর করতে পারলে সমাজও দূষণমুক্ত হবে। ফিরে পাব হারিয়ে যাওয়া আমাদের প্রাচ্যের ভেনাস ঢাকাকে।

পিডিএসও/ জিজাক

সময়ের দাবি,ঢাকা,বায়ু দূষণ
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close