reporterঅনলাইন ডেস্ক
  ২৮ নভেম্বর, ২০২২

রাশিয়ান কৌশলে বিপর্যস্ত ইউক্রেন

ছবি : সংগৃহীত

ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভে ভারী তুষারপাত হবে বলে শঙ্কা করা হচ্ছে। এ সময় সেখানকার দিন ও রাতের তাপমাত্রা হিমাঙ্কের নিচে নেমে যাচ্ছে। কারণ, সেখানে পর্যাপ্ত বিদ্যুৎ এবং তাপের ব্যবস্থা নেই। রাশিয়া এখনও সমগ্র ইউক্রেনজুড়ে ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা অব্যাহত রেখেছে। তারা চায় এ শীতের মধ্যেই ইউক্রেনীয়দের বিপর্যস্ত করতে। যাতে করে বিদ্যুৎ এবং তাপের অভাবে তারা রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনা করতে বাধ্য হয়।

রোববার (২৭ নভেম্বর) কিয়েভ শহরে তুষারপাত হয়েছে। এখানে যুদ্ধের আগে ২৮ লাখ মানুষ বাস করত। এখন ভয়াবহ যুদ্ধের কারণে অসংখ্য বেসামরিক নাগরিক ওই শহর ছেড়ে পালিয়েছে। এখন ধারণা করা হচ্ছে যে এ শহরের তাপমাত্রা হিমাঙ্কের নীচে থাকবে। এ সপ্তাহের অর্ধেক সময় পর্যন্ত এমন অবস্থা থাকবে।

শনিবার দেশটির বিদ্যুৎ বিভাগের অপারেটর ইউক্রেনারগো বলেছে, বিদ্যুৎ উৎপাদনকারীরা সারা দেশে বিভিন্ন বিধি-নিষেধ এবং ব্ল্যাকআউটের কারণে মাত্র তিন-চতুর্থাংশ মানুষের চাহিদা মেটাতে সক্ষম হয়েছে।

রাজধানী কিয়েভে জ্বালানি শক্তি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান ইয়াসনো-এর প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা সের্গেই কোভালেনকো বলেছেন, শহরের পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে, কিন্তু এখনও সেখানকার অবস্থা অনেক নাজুক। তিনি ইঙ্গিত দিয়েছিলেন যে এখানকার বাসিন্দাদের প্রতিদিন কমপক্ষে চার ঘন্টা বিদ্যুৎ থাকতে হবে। যারা এই পরিমাণের চেয়ে কম বিদ্যু পান তাদের তার সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ করা উচিত।

এ বিষয়ে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেছেন, রাশিয়ার সর্বশেষ বোমা হামলার পর শুক্রবার সারাদেশে ৬০ লাখ মানুষ বিদ্যুৎবিহীন হয়ে পড়েছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র অভিযোগ করেছে যে রাশিয়া যুদ্ধক্ষেত্রে জয়লাভ করতে ব্যর্থ হওয়ার কারণে ইউক্রেনকে ঠাণ্ডায় জমিয়ে নতি স্বীকার করাতে চায়।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এন্টনি ব্লিঙ্কেন এই মাসের শুরুতে বলেছিলেন, প্রেসিডেন্ট [ভ্লাদিমির] পুতিন মনে হয় সিদ্ধান্ত নিয়েছেন যে তিনি যদি জোর করে ইউক্রেন দখল করতে না পারেন, তবে তিনি দেশটিকে ঠাণ্ডায় জমিয়ে দেবেন।

গত সপ্তাহে ইউক্রেনের রাষ্ট্র-পরিচালিত পারমাণবিক শক্তি সংস্থা ইনার্গোএটম বলেছিল, দেশজুড়ে রাশিয়ান ক্ষেপণাস্ত্র আঘাত হানছে। এরপর তিনটি ইউক্রেনীয় পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের পাওয়ার ইউনিট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল।

অক্টোবর থেকে রাশিয়া দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র এবং ড্রোন দিয়ে ইউক্রেনের বিভিন্ন জ্বালানি এবং তাপ সরবরাহ ব্যবস্থাকে ধ্বংস করছে। এ বিষয়ে রুশ কর্তৃপক্ষ বলেছে যে তাদের লক্ষ্য ইউক্রেনের লড়াই করার ক্ষমতা হ্রাস করা এবং দেশটিকে (শান্তি) আলোচনায় বাধ্য করা। সূত্র : আল-জাজিরা

প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক/এমএইউ

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
ইউক্রেন,কিয়েভ,ভারী তুষারপাত,হিমাঙ্ক
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close