reporterঅনলাইন ডেস্ক
  ১৬ জুলাই, ২০২১

মুখের মাস্ক নেমে গেল পায়ের বুড়ো আঙুলে!

ছবি : ইন্টারনেট

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বিস্তার রোধে মুখে মাস্ক পরার ওপর জোর দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু গত দেড় বছরে দেখা গেছে, এত বলার পরও মুখের মাস্ক অনেকের মুখে থাকছে না। পকেটে, থুতনিতে, নাকের নিচে, কখনো হাতের বাজু হয়ে ঝুলে থাকছে মাস্ক। এমনকি মাস্ক দিয়ে ন্যাড়া মাথার চাঁদি ঢাকা বা রুমাল বানানোর মতো ঘটনাও দেখা গেছে। এ নিয়ে দেশি–বিদেশি সংবাদমাধ্যমে খবরও এসেছে।

তবে সব কিছু ছাড়িয়ে গেলেন ভারতের উত্তরাখণ্ড রাজ্যের এক মন্ত্রী। রাজ্যের গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে পায়ের ওপর পা তুলে আয়েশ করে বসে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা করছিলেন তিনি। হয়তো মনের ভুলেই মাস্কটি চলে গিয়েছিল পায়ের বুড়ো আঙুলে। সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া ছবিতে দেখা যাচ্ছে, গেরুয়া পায়জামা–পাঞ্জাবি পরিহিত মন্ত্রীর ধবধবে পরিষ্কার মাস্কটি ঝুলছে বাম পায়ের ওপর ভাঁজ করে রাখা ডান পায়ের বুড়ো আঙুলের ভাঁজে!

জানা গেছে, ওই মন্ত্রীর নাম স্বামী জাতিশ্বরানন্দ। উত্তরাখণ্ডের বিজেপি সরকারের মন্ত্রী তিনি। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, বাকি চারজনের মুখেও মাস্ক নেই। এর মধ্যে আবার দুজন মন্ত্রীও (বিশান সিং ও সুবোধ উন্যাল) আছেন।

এ নিয়ে টুইটারে তীব্র সমালোচনা করে পোস্ট দিয়েছেন কংগ্রেসের মুখপাত্র গরিমা দাসুনি। ‘এই হলো ক্ষমতাসীন দলের সিরিয়াসনেসের নমুনা। অথচ এরাই মাস্ক না পরার কারণে গরিব মানুষকে পেটাচ্ছে।’ বলেন গরিমা।

আরেক কংগ্রেস নেতা পঙ্কজ পুনিয়া ব্যঙ্গ করে বলেছেন, এটাই হলো মাস্ক পরার আসল তরিকা! একই রকম মন্তব্য করেছেন আম আদমি পার্টির নেতা দীপ প্রকাশ পান্ত। এই নির্লিপ্ততার জন্য স্বামী জাতিশ্বরানন্দকে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন আম আদমির আরেক নেতা।

উল্লেখ্য, ভারতে কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউয়ে বিপর্যস্ত রাজ্যগুলোর মধ্যে অন্যতম উত্তরাখণ্ড। দুই মাস আগেও রাজ্যটির পুরো স্বাস্থ্যব্যবস্থা ভেঙে পড়েছিল। সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় গত সপ্তাহেই কানবার যাত্রা বাতিল করেছে উত্তরাখণ্ড সরকার। বার্ষিক এই ধর্মীয় উৎসবে হাজার হাজার ভক্ত হেঁটে অথবা নদীপথে হরিদ্বারে গঙ্গা থেকে পানি সংগ্রহ করেন। সেই পানি নিয়ে যান পার্শ্ববর্তী শিবমন্দিরে।

পিডিএসও/ইউসুফ

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
করোনাভাইরাস,সংক্রমণ,মুখের মাস্ক,পায়ের বুড়ো আঙুল
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close