দেশে এসব হচ্ছেটা কি?

প্রকাশ : ২৫ আগস্ট ২০২০, ২০:৪৫ | আপডেট : ১৩ অক্টোবর ২০২০, ১৯:২১

১৯৭১ সালে ৩০ লক্ষ প্রাণ ও ২ লক্ষ মা-বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে স্বাধীনতা পেয়েছিল বাংলাদেশ। কাগজে ও মুখে প্রতিষ্ঠিত এই স্বাধীন দেশে জন্ম নিয়ে আমরা কি আধৌ পেয়েছি স্বাধীনতা? যদি স্বাধীনতা শব্দটি থেকেই থাকে তবে কেন আজ স্বাধীন দেশের মাটিতে মা-বোনদের ইজ্জতের নিরাপত্তা নেই।

প্রতিদিনই খবরের কাগজ, টেলিভিশন ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে চোখ পড়লেই দেখা যায় দেশের বিভিন্ন স্থানে ঘটছে অনাকাঙ্খিত অদ্ভুত সব ঘটনা। আজও (মঙ্গলবার) সকালে ফেসবুকে দেখলাম প্রকাশ্যে প্যান্ট খুলে ‘উলঙ্গ’ (নেংটা) হয়ে একটি মেয়েকে যৌন হয়রানি করছে বাবলু নামের এক তরুণ। সূত্রে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, ঘটনার সময় বাবলুর মা জোসনা ও ভাবি সানজিদাকেও তার পেছনে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। ঘটনাটি চট্টগ্রামের সদরঘাট থানার পশ্চিম মাদারবাড়ির টং ফকির মাজার লাইন এলাকার।

যদিও ফেসবুকে ভাইরাল এ ছবিতে ভুক্তভোগী মেয়েটির পরিচয় জানা যায়নি। তবে প্রশ্ন হলো- একটি মেয়ের জন্য এর চেয়ে ভয়ঙ্কর সময় আর কিছু হতে পারে কি? একটি স্বাধীন দেশের মাটিতে প্রকাশ্য দিবালোকে একটি মেয়েকে এভাবে যৌন হয়রানি করা হতে পারে তা ভাবতেও কষ্ট হয়!

এমন অসামাজিক দৃশ্য কীভাবে বন্ধ হবে, রাস্তায় নারীরা কীভাকে নিরাপদ হবে, সেই নিরাপত্তা দেয়ার বুঝি কেউ নেই। বাংলাদেশের নারীরা, এমনকি স্কুল-কলেজের ছাত্রীরা পর্যন্ত সমাজের এই নোংরা বলয় থেকে মুক্তি পাচ্ছে না।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাজের পরিধি হয়তো কখনোই সে পর্যন্ত গিয়ে পৌঁছায় না। এভাবে পুরুষের দৈহিক নির্যাতন সহ্য করেই নারীদের জীবন চালাতে হয়, চলতে হয় নিত্যদিন।

সত্যি কথা বলতে ধসে পড়া সমাজবোধের নির্লজ্জ উদাহরণ এটি। পাশাপাশি মা আর ভাবি যারা নিজেরাও নারী, কীভাবে পারেন এরকম অপরাধে পরিবারের ছেলেকে উৎসাহ দিতে? আর বাবলু নামের যে কুলাঙ্গার এমন অপকর্ম করছে তার কি শাস্তি হবে, বা হওয়া উচিত?

বিবেক অনেক সময় প্রশ্ন করে দেশে আইন বলে কিছু আছে কি? যদি থেকেই থাকে তবে কীভাবে দেশের বিভিন্ন স্থানে এরূপ অপকর্ম করে সমাজে স্বাভাবিক জীবন-যাপন করছে ঐসমস্ত নরপশুর দল। আর কতো মা-বোন ইজ্জত হারালে জাগ্রত হবে সমাজ?

 

লেখক : সাংবাদিক