বাংলার সংস্কৃতি নিয়ে প্রবাসেও নিরলস কাজ করছেন সায়রা

প্রকাশ : ১৭ নভেম্বর ২০২০, ১৯:৫৮ | আপডেট : ১৭ নভেম্বর ২০২০, ২০:৩৯

অনলাইন ডেস্ক

সৈয়দা সায়েরা একজন নৃত্যশিল্পী, নৃত্যশিক্ষক ও নৃত্যপরিচালক। শুরুটা হয়েছিল শৈশবে হিন্দোল-এ শিশু অ্যাকাডেমির হাতে লোকনৃত্য ও সাধারণ নৃত্যের হাতেখড়ি দিয়ে। 

ছিলেন বাংলাদেশ শিল্পকলা এ্যাকাডেমি ও বাংলাদেশ টেলিভিশনের তালিকাভুক্ত শিল্পী। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির হয়ে দেশের বাইরে করেছেন বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব।

২০১০ সাল থেকে নিয়মিতভাবে মেলবোর্নের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানগুলোতে নৃত্য পরিবেশন করছেন। মেলবোর্নে বাংলা কমিউনিটিতে নৃত্যশিক্ষক হিসেবে দীর্ঘদিন যাবৎ কাজ করছেন। তার নিজের নাচের স্কুলের নাম নৃত্যভুবন। নতুন প্রজন্মদের সুস্থ ধারার নৃত্য প্রশিক্ষণের জন্য তিনি অক্লান্ত পরিশ্রম করেন।

‘লকডাউনের ঘরবন্দী জীবনে মেতে উঠুন সুপ্ত প্রতিভা বিকাশে’ এই শ্লোগানে সমগ্র বিশ্বে সাউথ এশিয়ার দেশগুলো নিয়ে “সাউথ এশিয়ান ডান্স কম্পিটিশন" অনলাইন ভিত্তিক নাচের প্রতিযোগিতায় অস্ট্রেলিয়া থেকে সৈয়দা সায়েরা বিচারক ও আয়োজোকের দায়িত্ব পালন করেন। ১০টি দেশের মোট ৫৫,০০০ প্রতিযোগী এ আয়োজনে অংশগ্রহণ করে।

অস্ট্রেলিয়ায় মেলবোর্ন, সিডনি, কুইন্সল্যান্ড থেকে বাংলাদেশ, ইন্ডিয়া, শ্রীলংকার প্রতিযোগীরা অংশগ্রহণ করে। ২৩ নভেম্বর এর ফাইনাল রাউন্ড অনুষ্ঠিত হবে।

 VBCF আয়োজিত আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ২০১৯ উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এই গুনি শিল্পী ও তার শিক্ষার্থীরা পরিবেশন করেছিল একটি মনোমুগ্ধকর গীতিনাট্য, যা কমিউনিটিতে এবং সাংস্কৃতিক অঙ্গনে কুড়িয়েছিল সুনাম।

এছাড়া সোয়ারা আয়োজিত মাল্টিকালটারাল অনুষ্ঠানে তিনি অস্ট্রেলিয়ার লোকাল এমপি থেকে ইন্টারন্যাশনাল ওমেন'স অ্যাওয়ার্ড ২০২০ পান সায়রা।

পহেলা বৈশাখ, আন্তর্জাকিত ভাষা দিবস, বাৎসরিক অনুষ্ঠান, নৃত্যদিবস, বিভিন্ন শিল্পীদের সাথে কোলাবোরেশন, মিউজিক ভিডিও, নৃত্যকথন অনুষ্ঠানটিতে পরিচালনা, মাল্টিকালটারাল প্রোগ্রামে তার ছিল সক্রিয় অবদান। তিনি আনন্দধারা ও ২০১৫ থেকে ভিবিসিফ এর নৃত্যশিক্ষক ছিলেন।

বাংলাদেশেও কথাকলি সংগীত বিদ্যালয়ের নৃত্যশিক্ষক ছিলেন। ছোটবেলা থেকে বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন ও একাধিক পুরুস্কার অর্জন করেন তিনি। তার নৃত্যগুরু সোমা মুমতাজ, আল্পনা মুমতাজ, সিভি চন্দ্যসাকার, শর্মিলী, দীপা, সুলতানা, তামান্না, প্রমুখ।

পিডিএসও/এসএম শামীম