শোক বইয়ে রাহাত খান

প্রকাশ : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২১:০৪ | আপডেট : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২১:১১

নিজস্ব প্রতিবেদক
ছবি : মুঈদ খন্দকার

সদ্য প্রায়ত প্রতিদিনের সংবাদ পত্রিকার সম্পাদক এবং বরেণ্য কথাসাহিত্যিক রাহাত খানের স্মরণে বৃহস্পতিবার বিকালে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রয়াতের সর্বশেষ কর্মস্থল প্রতিদিনের সংবাদ পত্রিকা অফিসে এ স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম, রাহাত খানের স্ত্রী ও সাংবাদিক নেতারা উপস্থিত ছিলেন। শোক বই থেকে বিশিষ্টজনের মন্তব্য এখানে তুলে ধরা হলো-

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। তিনি লিখেছেন, ‘রাহাত খানের আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। তার আত্মা পরকালে শান্তিতে থাকুক।’

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়েনের সাবেক সভাপতি মিডিয়া ব্যক্তিত্ব মনজুরুল আহসান বুলবুল। তিনি লিখেছেন, ‘রাহাত ভাই, আপনাকে স্মরণ করি, প্রতি ভোরে, প্রতিদিনের কাজে, প্রতিদিনের সাহিত্যপাঠে।’

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ লিখেছেন, ‘কথাসাহিত্যের লিজেন্ড রাহাত খানকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করি। শান্ত-স্বভাবের কৃর্তীমান এই মহান ব্যক্তিত্বকে আমরা কখনো ভুলব না।’

প্রয়াত সম্পাদক ও বরেণ্য কথাসাহিত্যিক রাহাত খানের সহধর্মিণী অপর্ণা খান। এই সংস্কৃতিকসেবী লিখেছেন, ‘সাংবাদিক ও কথাসাহিত্যিক রাহাত খানকে শ্রদ্ধা জানিয়ে প্রতিদিনের সংবাদ পত্রিকার এই আয়োজনের জন্য সবাইকে ধন্যবাদ।’

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি ও দৈনিক যুগান্তরের সম্পাদক সাইফুল আলম। তিনি লিখেছেন, ‘রাহাত খান তার কর্মের মধ্যে বেঁচে থাকবেন। আমরা অনেক দিন তাকে মনে রাখব।’

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু লিখেছেন, ‘রাহাত খান বেঁচে থাকবেন প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে।’

প্রতিদিনের সংবাদ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক এস এম মাহ্বুবুর রহমান। তিনি লিখেছেন, ‘রাহাত খান একজন নির্বিবাদী, শান্ত ও বিজ্ঞ মানুষ ছিলেন। দৈনিক ইত্তেফাক থেকে শুরু করে সর্বশেষ প্রতিদিনের সংবাদ পত্রিকার সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তার মতো মানুষকে সম্পাদক হিসেবে পেয়ে আমার আনন্দিত ও গর্বিত ছিলাম। তার স্মৃতিধন্য এই পত্রিকার অগ্রগতির মধ্য দিয়ে তাকে স্মরণ ও শ্রদ্ধা জানাব আমরা।’

প্রতিদিনের সংবাদের সিনিয়ন সাব-এডিটর মো. শহীদুল্লাহ লিখেছেন, ‘কথাসাহিত্যিক রাহাত খান ছিলেন প্রগতিশীল মনের মানুষ। মানবতাবাদের পূজারি।’