ভালুকায় লোডশেডিং ও লো-ভোল্টেজে চরম ভোগান্তি

প্রকাশ : ০৮ আগস্ট ২০১৭, ১৭:৩০

ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি

ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার সর্বত্রই অব্যাহত লোডশেডিং ও লো ভোল্টেজের শিকার হয়ে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন ছোট বড় শিল্প প্রতিষ্ঠান মালিক,স্কুল কলেজ শিক্ষার্থী ও সাধারণ গ্রাহকরা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, দিনে রাতে অন্তত ৭ থেকে ৮ ঘন্টা বিদ্যুৎ না থাকায় শিল্প প্রতিষ্ঠানের উৎপাদন মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে, রাতে ছাত্র/ছাত্রীরা লেখাপড়া করতে পারছে না এবং গরমে যুবক ও বয়োবৃন্দরা চরম ভোগান্তিতে পরছে। অন্যদিকে লো-ভোল্টেজের কারণে টিভি, ফ্রিজসহ ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী নষ্ট হচ্ছে। সম্প্রতি পিডিবির কতৃপক্ষ গ্রাহকদের কিছু না জানিয়েই ঘন্টার পর ঘন্টা বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করে রাখছে। গত রবিবার রাত তিনটায় বিদ্যুৎ গেলে আসে সকাল ৮টায়, আবার সোমবার রাতে ৮টায় বিদুৎ গিয়ে আসে রাত্র ১টায় ,আবার ঘন্টায় ঘন্টায় লোডশেডিং তো আছেই তারপর নতুন ভোগান্তি লো-ভোল্টেজে ফ্যান,টিভি ,ফ্রিজ কোনকিছুই চলছে না।

মল্লিকবাড়ী এলাকার গ্রাহক মিয়া মোহাম্মদ সোহেল জানান, আমরা বিদ্যুৎতের ভোগান্তিতে আছি চরমে। লোডশেডিং তো আছেই যখন আসে তখন লো-ভোল্টেজে আসে। রাতে ঘুমাতে পারি না। আমার ২টি ফ্যান, টিভি ও ফ্রিজ নষ্ট হয়ে গেছে। তিনি আরও জানান, মল্লিকবাড়ী বাজার ভালুকার একটি বৃহত্তম বাজার, এই বাজারে অন্তত সব সময় বিদ্যুৎ সরবরাহ করা উচিত। আমরা এই ভোগান্তি থেকে পরিত্রাণ চাই। 

ভালুকা পিডিবির নির্বাহী প্রকৌশলী সানোয়ার হোসেন জানান, ভালুকায় পিডিবির চাহিদা ১২ মেগাওয়াট এবং বরাদ্দও তাই। তবে লাইনের বিভিন্ন ত্রুটির কারণে মাঝে মধ্যে লাইন বন্ধ করে কাজ করতে হয়। আর গ্যাস সল্পতার কারণে জাতীয় গ্রিডে ভোল্টেজের সমস্যা। জাতীয়ভাবে সমাধান হলেই ভালুকায় ঠিক হয়ে যাবে।


পিডিএসও/রানা