মেডিকেল বোর্ড গঠন

বিরল রোগে আক্রান্ত শিশু আলিমুনের চিকিৎসা শুরু

প্রকাশ : ১৭ জুলাই ২০১৭, ১৯:৪৪ | আপডেট : ১৭ জুলাই ২০১৭, ১৯:৪৮

মামুন আহম্মেদ, বাগেরহাট

বিরল রোগে আক্রান্ত বাগেরহাটে কচুয়া উপজেলার সোনাকান্দর গ্রামের শিশু আলিমুনের চিকিৎসা শুরু করা হয়েছে। ইতি মধ্যেই তার চিকিৎসায় জন্য ৩ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছে। বাগেরহাটের সিভিল সার্জান ডা: অরুন চন্দ্র মন্ডলের নির্দেশে বাগেরহাট সদর হাসপাতালের মেডিসিন কনসালটেন্ট ডা: সাইদ আহমেদকে প্রধান করে এই মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়। বোর্ডের অন্য দুই সদস্য হলেন স্ক্রিন ডিভি কনসালটেন্ট  ডা: সাদী ও  বাগেরহাট সদর হাপসাতালে আরএমও ডা: মোশারেফ হোসেন।

সিভিল সার্জন ডা: অরুন চন্দ্র মন্ডল জানান, আমরা শিশুটির সুচিকিৎসার করতে চাই। সেজন্য মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছে। বিরল রোগে আক্রান্ত শিশুটির পরীক্ষা নিরীক্ষার পর মেডিকেল বোর্ডের চিকিৎসকরা কি রিপোর্ট জমা দেন তা দেখে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে।

এর আগে রবিবার বিকেলে কচুয়া উপজেলার গজালিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শেখ মোহাম্মদ নাসির কচুয়া থেকে বিরল রোগে আক্রান্ত শিশু আলিমুনকে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে নিয়ে আসেন। পরে বাগেরহাট জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. মনির হোসেন তাকে হাসপাতালে ভর্তি করার সকল ব্যবস্থা করেন। এসময় জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক ওশান সরদারসহ ছাত্রলীগের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বাগেরহাট জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. মনির হোসেন জানান, অর্থাভাবে বিরল রোগে আক্রান্ত শিশু আলিমুনের চিকিৎসা হচ্ছে না ফেসবুকে এমন সংবাদ পেয়ে সে আবেদনে সাড়া দেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক এসএম জাকির হোসাইন। তাদের পরামর্শে শিশুটির উন্নত চিকিৎসার ধাপ হিসেবে রবিবার বিকেলে আলিমুনকে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে আলিমুনে চিকিৎসার জন্য ডাক্তাদের পরামর্শ অনুযায়ী তার পরিবারকে সকল ধরনের সহায়তা অব্যহত রয়েছে। মেডিকেল বোর্ডের পরামর্শে শিশু আলিমুনকে বাগেরহাট থেকে ঢাকায় নেওয়ার প্রয়োজন হলে সে প্রস্ততিও তাদের রয়েছে বলে দাবী করেন এ ছাত্র নেতা।

প্রসংঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার বাগেরহাট জেলার কচুয়া উপজেলার গজালিয়া ইউনিয়নের সোনাকান্দর গ্রামের ৯ বছর বয়সী অসহায় আলিমুন বিরল রোগে আক্রান্ত তার চিকিৎসা প্রয়োজন এমন আবেদন করে সোনাকান্দর গ্রামের পল্লী চিকিৎসক জাহিদুল ইসলামের দুটি ছবি সম্বলিত একটি পোস্ট সামাজিক গনমাধ্যমে দেন। তার এই পোস্টটি ফেসবুকে ভাইরালে পরিনত হয়। এক পর্যায়ে বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক এসএম জাকির হোসাইন অসহায় এই শিশুর চিকিৎসার ব্যয়ভার বহন করার আগ্রহ প্রকাশ করেন।

 


পিডিএসও/রানা