ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে এলাকাবাসীর

জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তির দাবীতে মানববন্ধন

প্রকাশ : ১৭ জুন ২০১৭, ২১:০৬

আব্দুল আলীম, নারায়ণগঞ্জ

নারায়ণগঞ্জ মহানগরের সিদ্ধিরগঞ্জে জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তির দাবীতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছে এলাকাবাসী। শনিবার (১৭ জুন) সকাল ১১টায় নাসিক ৩নং ওয়ার্ডের চিটাগাং রোডের খান্কা জামে মসজিদ মার্কেট, হক সুপার মার্কেট, ওয়াজউদ্দিন সুপার মার্কেট ও নিবির মার্কেটের ব্যবসায়ীসহ নয়াআটি মুক্তিনগর এবং দক্ষিন মাদানীনগরের অন্তত দুই শতাধিক এলাকাবাসী মহাসড়কের শিমরাইল মোড় টার্নিংয়ের উত্তর পাশে মানববন্ধন করে। মানববন্ধন শেষে মহাসড়কের উত্তর পাশে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের পানি নিস্কাশন খাল ভরাট করে গড়ে উঠা আজিজ কো-অপারেটিভ শপিং মলের সামনে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে।

মানববন্ধনে ভুক্তভোগী এলাকাবাসী জানায়, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের (নাসিক) ৩নং ওয়ার্ডে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের উত্তর পাশে সড়ক ও জনপথের (সওজ) পানি নিস্কাশন খাল জবর দখল করে মার্কেট নির্মান করছে। অপরদিকে উত্তর পাড় থেকে মহাসড়কের নিচ দিয়ে দক্ষিন পাড়ের ডিএনডি পানি নিস্কাশন খালে স্থাপন করা পাইপটি আহসান উল্লাহ সুপার মার্কেটের পশ্চিম পাশে মুরগি পট্টি তৈরি করে হাবিবুল্লাহ হবুল বন্ধ করে রেখেছে। যার ফলে আজিজ কো-অপারেটিভ শপিং মলের দখল ও হাবিবুল্লাহ হবুলের পানি নিস্কাশন পাইপটি বন্ধ করে দেয়ায় মহাসড়কের উত্তর পাড়ের পানি আটকে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হচ্ছে। আর এ জলাবদ্ধতায় পানি বন্দী হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে নয়াআটি মুক্তিনগর, মাদানীনগরের মার্কেট, কলেজ, টেকনিক্যাল সেন্টার ও অসংখ বাড়ী ঘরের হাজার হাজার মানুষ। এসব এলাকায় কৃত্তিম বন্যায় প্লাবিত হয়ে পানি বন্দী হয়ে নানাবিধ পানিবাহী রোগে আক্রান্তসহ চরম ভোগান্তিতে রয়েছে এলাকাবাসী।

এলাকাবাসী আরো জানায় এ এলাকাটি একটি গুরুত্বপূর্ন এলাকা। মহাসড়কের উত্তর পাশেই রয়েছে খানকায়ে জামে মসজিদ মার্কেট, হক সুপার মার্কেট, ওয়াজ উদ্দিন সুপার মার্কেট, নিবির সুপার মার্কেট, ইকরা কমার্স কলেজ এবং পলিটেকনিক কলেজসহ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ন স্থাপনা। যেখানে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষের পদচারনা রয়েছে। এছাড়াও এসব মার্কেটে অসংখ্য ব্যবসায়ীরা কোটি টাকা বিনিয়োগ করে ব্যবসা বানিজ্য করছে। সম্প্রতি আজিজ কো-অপারেটিভ শপিং মল ও হাবিবুল্লাহ হবুল মুরগি পট্টি তৈরী করে সওজ’র পানি নিষ্কাশন খাল ও পাইপটি ভরাট করে ফেলায় একটু বৃষ্টি হলেই এসব মার্কেট এবং জনবসতি পূর্ন কয়েকটি এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। ফলে ভোগান্তিতে পরতে হয় এসব মার্কেটের ব্যবসায়ীদের। মার্কেটের দোকানে পানি উঠে যাওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে ব্যবসায়ীরা। রাস্তা-ঘাট এবং বাড়ী ঘরে পানি উঠে যাওয়ায় মানবেতর জীবন যাপন করছে হাজার হাজার মানুষ।

এ ব্যাপারে আজিজ কো-অপারেটিভ শপিং মলের সহকারী প্রকৌশলী অমিত চন্দ্র সূত্রধর জানায়, এ বিষয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে সড়ক ও জনপথের পানি নিস্কাশন খালের ভরাট করা মাটি দ্রুত অপসারনে ব্যবস্থা করবো।

 

পিডিএসও/রানা