রাজবাড়ীর যৌনকর্মীদের পাশে জেসিআই ঢাকা ইয়াং

প্রকাশ : ৩০ জুন ২০২০, ১০:০১ | আপডেট : ৩০ জুন ২০২০, ১০:০৯

অনলাইন ডেস্ক

রাজবাড়ীর দৌলতদিয়ায় যৌনপল্লীতে যৌনকর্মীদের মধ্যে প্রয়োজনীয় খাদ্য বিতরণ করার সাহসী চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেছে বিশ্ব জুড়ে স্বেচ্ছাসেবী যুব সংগঠন জেসিআই বাংলাদেশ এর জেসিআই ঢাকা ইয়াং চ্যাপ্টার। রোববার জেসিআই ইয়াং তাদের 'মানুষ মনুষের জন্য' প্রকল্পের আওতায় এই খাদ্যসামগ্রী বিতরণ কর্মসূচি শুরু করে।

কোভিড-১৯  আঘাত হানার শুরুর দিকেই মার্চ মাসে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে দেশের  সর্ববৃহত্তম এই পতিতালয়টি। এরপর থেকেই ঐ এলাকার প্রায় দুই হাজার যৌনকর্মীদের দুর্দশা চরমে উঠে। দেশের অন্যান্য খাতের শ্রমিকদের মতো রাজবাড়ীর যৌনকর্মীরাও মারাত্মক ঝুঁকির সম্মুখীন হয়। যথারীতি তারা এই মহামারি ও দূর্যোগে মূল সমাজ ব্যবস্থা থেকে সহানুভূতি, সহায়তা পেতে ব্যর্থ হয়। এখানকার অধিকাংশ যৌনকর্মী ক্ষুধা ও দারিদ্র্যের মাঝে শিশু সন্তান এবং নিজেকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য লড়াই করে যাচ্ছে। তাই করোনাকালীন এই কঠিন সময়ে, জেসিআই ঢাকা ইয়াং  সকল নিয়ম মেনেই এই সাহসী উদ্যোগ নিয়েছে এবং রোববার ওই অঞ্চলে যৌনকর্মীদের মাঝে প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছে।

গোয়ালন্দ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আশিকুর রহমানের সহায়তায় জেসিআই ঢাকা ইয়ংয়ের এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট নাজমুল হোসেন এবং জেনারেল লিগ্যাল কাউন্সিলর সামিয়া রহমান ব্যক্তিগতভাবে উপস্থিত থেকে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে।  বিতরণ করা প্রতিটি প্যাকেটে ১০ কেজি চাল,২ কেজি মসুর,২ কেজি ময়দা,১ কেজি চিনি এবং ১ লিটার তেল ছিল যা ২৩০ জন যৌনকর্মীকে বিতরণ করা হয়েছিল।

এই প্রকল্পটি সংগঠিত ও বাস্তবায়নের ধারণাটি জে.সি.আই ঢাকা  ইয়ং-এর ভাইস-প্রেসিডেন্ট সানজিদা শারমিনের। তিনি এই কঠিন সময়ে অসুবিধা হওয়া যৌনকর্মীদের ভয়াবহতা সম্পর্কিত বেশ কয়েকটি সংবাদ দেখেছিলেন এবং অশান্ত ছিলেন। তিনি এ বিষয়ে জেসিআই ঢাকা  ইয়াংয়ের প্রেসিডেন্ট  জনাব ইমতিয়াজ চৌধুরীসহ অন্যান্য সদস্যদের সাথে আলোচনা করেন, এবং সানজিদা শারমিনের নেতৃত্বে দ্রুত এই পরিকল্পনাটি তৈরি এবং কার্যকর করা হয়।

উল্লেখ্য, সেদিন মোহাম্মদপুরও ২০ টি একই রকমের খাদ্যসামগ্রী প্যাকেজ বিতরণ করা হয়েছে অভাবগ্রস্থদের মাঝে। ওইদিন তারা সর্বমোট ২৫০ টি পরিবারকে খাদ্যসামগ্রী প্যাকেজ বিতরণ করেন। জেসিআই ঢাকা ইয়াং তাদের সদস্যদের পরিবার, দেশ ও বিদেশের শুভাকাঙ্ক্ষীদের কাছ থেকে অনুদানের মাধ্যমে বাংলাদেশে  কোভিড ১৯- সংকট  শুরুর সময় থেকেই  বিপদগ্রস্ত লোকদের সহায়তা করছে।

উল্লেখ্য, ইতোমধ্যে “মানুষ মানুষের জন্য ” প্রকল্পটি থেকে জেসিআই ঢাকা ইয়ং  ঢাকার মিরপুর দুয়ারীপাড়া বস্তিতে ১০০টি রিকশাচালক পরিবারের মাঝে প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছে। রায়েরবাজারে ২২৫টি অভাবগ্রস্ত পরিবারের মধ্যে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের সহযোগিতায় খাদ্য সামগ্রীর প্যাকেজ বিতরণসহ নানা কার্যক্রম গ্রহণ করে।

এছাড়াও চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের সহায়তায় চট্টগ্রামে ১১২টি শ্রমিক পরিবারকে খাদ্য সামগ্রীর প্যাকেজ বিতরণ করে জেসিআই ঢাকা ইয়াং।

এই মহামারি চলাকালীন সময়ে জেসিআই ঢাকা ইয়ং সমাজের অভাবী, অসহায়, দুর্বল, দুস্থদের সহায়তা কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার ব্যাপারেও প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।