করোনা আক্রান্ত নারী চিকিৎসকের অবাক করা তথ্য

প্রকাশ : ১৫ এপ্রিল ২০২০, ২০:২১

অনলাইন ডেস্ক

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মঙ্গলবার পর্যন্ত প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১০ জন। এর মধ্যে জেলার বিজয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক নারী চিকিৎসকও রয়েছেন।

বিজয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স জেলার একমাত্র প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন সেন্টার। বর্তমানে ওই নারী চিকিৎসক ময়মনসিংহে অবস্থান করছেন। সেখানে তিনি আইসোলেশনে রয়েছেন। তবে কীভাবে তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন; সেটি নিশ্চিত না হলেও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত এক ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করেতে গিয়েই আক্রান্ত হয়েছেন বলে ধারণা ওই চিকিৎসকের। পাশাপাশি ওই চিকিৎসকের সঙ্গে নমুনা সংগ্রহে যাওয়া তার এক সহকর্মীও শারীরিক সমস্যায় ভুগছেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

বুধবার দুপুরে মুঠোফোনে ওই নারী চিকিৎসকের সঙ্গে কথা হয়েএক গণমাধ্যমকর্মীর। নমুনা সংগ্রহের সময় যে সুরক্ষা সরঞ্জাম পরেছিলেন সেটি মানসম্মত ছিল না বলে জানিয়েছেন তিনি।

তিনি বলেন, গত ৭ এপ্রিল বিজয়নগর উপজেলার হরষপুরে এক রোগীর নমুনা সংগ্রহে গিয়েছিলাম আমিসহ চারজন। ওই রোগীর করোনাভাইরাস পরীক্ষার রিপোর্ট পজেটিভ এসেছে। আমিই প্রথম ওই রোগীকে ডিল করি। ওই রোগীর রিপোর্ট পজেটিভ আসার পর আমরা চারজন নিজ থেকেই নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠাই। যদিও আমাদের মধ্যে কারও করোনাভাইরাসের লক্ষণ ছিল না। গত শনিবার (১১ এপ্রিল) আমাদের নমুনা পাঠানোর পর মঙ্গলবার আমাদের রিপোর্ট আসে। আমার রিপোর্ট পজেটিভ এবং বাকি তিনজনের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে।

তিনি আরও বলেন, নমুনা সংগ্রহ করার জন্য আমাদের মানসম্মত ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম (পিপিই) ছিল না। এন-৯৫ মাস্কের পরিবর্তে আমরা সাধারণ সার্জিক্যাল মাস্ক, সাধারণ পিপিই, গ্লাভস ও বড় গগলসের পরিবর্তে প্লাস্টিকের গ্লাস পরেছিলাম। আমাদের পিপিই আন্তর্জাতিক মানদণ্ডের ছিল না। সরকারিভাবে আমাদের এসব দেয়া হয়নি। এগুলো ছাড়াই আমরা কাজ করেছি। আমি এখন আইসোলেশনে রয়েছি। তবে আমি সুস্থ আছি।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ একরাম উল্লাহ বলেন, চিকিৎসকরা নমুনা সংগ্রহ করবে- বিষয়টি এমন নয়। পিপিই পরে মেডিকেল টেকনোলজিস্টরা নমুনা সংগ্রহ করেন। আমাদের সার্জিক্যাল মাস্ক আন্তর্জাতিক মানদণ্ডের। সবগুলো উপজেলায় যথেষ্ট পিপিই দেয়া হয়েছে।