৮৩ বছরেও মেলেনি বয়স্ক ভাতার কার্ড

প্রকাশ : ১৫ এপ্রিল ২০২০, ১৬:৩৩

লোহাগাড়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি

বয়স ৮৩ বছর পার হলেও চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলা বড়হাতিয়ার হতদরিদ্র ইসমাঈলের ভাগ্যে আজও জোটেনি বয়স্ক ভাতার কার্ড। এমনকি কেউ তাকে দেয়নি ভিজিডি কার্ডও। যার ফলে ৪ সন্তান ও স্ত্রীকে নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। 

জানা গেছে, উপজেলার বড়হাতিয়া ইউনিয়নের আমের বাপের পাড়া ৮নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা ইসমাঈল। তার ভোটার আইডি কার্ড অনুযায়ী জন্মসাল ৫.২.১৯৩৭। বর্তমানে বয়সের ভারে নুয়ে পড়েছেন। সংসারে ৩ মেয়ে ও ১ ছেলে। ২ মেয়ের বিয়ে হলেও স্বামীর অভাব অনটনের কারণে তারাও তার বাড়িতে থাকে। ছেলে সবার ছোট। একটি স্কুলে পড়ে। ইসমাঈল কোনো কাজ করতে না পারায় তার স্ত্রী অন্যের বাড়িতে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করছেন। পরিবারকে নিয়ে এত কষ্টের মধ্যেও ইসমাঈল কোনো ধরণের ত্রাণ সহায়তা পাননি। স্থানীয় জনপ্রতিনিধির কাছে কাকুতিমিনতি করেও মেলেনি বয়স্ক ভাতার কার্ড। ফলে অভাবের সঙ্গে পাল্টা দিয়ে অর্ধাহারে অনাহারে দিন কাটাচ্ছেন। 

বৃদ্ধ ইসমাঈল দুঃখ করে বলেন, এলাকায় তার ১০/১৫ বছরের ছোটরা বয়স্কভাতা পায়। কিন্তু তিনি বয়স্ক ভাতা পান না। অতি কষ্টে দিনাতিপাত করছি।

বড়হাতিয়া ইউপি চেয়ারম্যান এমডি জুনাইদ চৌধুরী বলেন, ইসমাঈলের বিষয়ে জানতাম না। শীঘ্রই তার নাম বয়স্ক ভাতার আওতায় আনা হবে।

লোহাগাড়া উপজেলা সমাজসেবা অফিসার দেলোয়ার হোসেন জানান, ইসমাঈল বয়স্ক ভাতার আওতায় পড়েননি আমার জানা ছিল না। কিন্তু বয়স্ক ভাতা পেতে আবেদন করলে আগামী অর্থ বছরে তার নাম তালিকায় অর্ন্তভুক্ত করা হবে।

 

পিডিএসও/হেলাল