করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা দিতে চসিকের আইসিইউ স্থাপন

প্রকাশ : ১২ এপ্রিল ২০২০, ২০:০৫ | আপডেট : ১২ এপ্রিল ২০২০, ২০:১২

চট্টগ্রাম ব্যুরো

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) পরিচালিত একটি হাসপাতালকে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) রোগীদের জন্য শয্যা প্রস্তুত করা হচ্ছে। নগরীর সদরঘাট থানার কালীবাড়ি রোডে অবস্থিত চসিক জেনারেল হাসপাতাল বা মেমন-২ নামে পরিচিত হাসপাতালকে। প্রথম পর্যায়ে হাসপাতালে ৬টি আইসিইউ শয্যা প্রস্তুত করা হবে। দুয়েক দিনের মধ্যে এর কাজ শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। হাসপাতালের বাকি ৫০ শয্যা করোনাভাইরাস (কোভিড) শয্যাগুলো আইসোলেশন শয্যা হিসেবে ব্যবহার হবে।

চসিকের স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা যায়, শনিবার দামপাড়াস্থ চসিকের একটি কার্যালয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠক করেন চসিক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। জেনারেল হাসপাতালে আইসিইউ শয্যা স্থাপনে নির্দেশনা দেন মেয়র। পরে মেয়র হাসপাতালও পরিদর্শন করেন মেয়র।

জানা গেছে, করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসায় চট্টগ্রামে সরকারি জেনারেল হাসপাতাল এবং ফৌজদারহাটের বিআইটিআইডি হাসপাতাল নির্ধারিত করেছেন করোনা মোকাবিলা ও প্রতিরোধের বিভাগীয় কমিটি। এরমধ্যে চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের ১ শত টি আইসোলেশন এবং বিআইটিআইডি হাসপাতালের ৫০টি শয্যা প্রস্তুত রয়েছে। সেখানে করোনা শনাক্ত হওয়া রোগীরা চিকিৎসাদীন রয়েছে। যদিও দুটির একটিতেও বর্তমানে আইসিইউ সুবিধা নেই। তবে জেনারেল হাসপাতালে ১০টি আইসিইউ বেড স্থাপনের কাজ গত বৃহস্পতিবার (৯ এপ্রিল) থেকে কাজ শুরু হয়েছে।

এছাড়া বেসরকারিভাবে খুলশিস্থ হলি ক্রিসেন্ট হাসপাতালে ১২টি আইসিইউ স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে বেসরকারি হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার মালিক সমিতি। এছাড়া আইসিইউ সমৃদ্ধ চট্টগ্রামের ১২টি বেসরকারি হাসপাতালকে চিকিৎসা দেয়ার জন্য প্রস্তুত রেখেছে চট্টগ্রাম জেলা করোনা মোকাবিলা ও প্রতিরোধ কমিটি। 

চসিকের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সেলিম আখতার চৌধুরী প্রতিদিনের সংবাদকে জানান, করোনাভাইরাস(কোভিড-১৯) রোগীদের চিকিৎসা দেওয়ার জন্য সিটি করপোরেশন জেনারেল হাসপাতালে আইসিইউ শয্যার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছিল। চট্টগ্রামে তো আইসিইউ শয্যার সংকট রয়েছে। কোনো সংকট তৈরি হলে রোগীরা যেন যথাযথ চিকিৎসা পান তার প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে আইসিইউ শয্যার স্থাপনের সিদ্ধান্তও গ্রহণ করেছেন মেয়র। দুয়েকদিনের মধ্যে ৬টি আইসিইউ স্থাপনের কাজ শুরু হবে আশা করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার (৩ এপ্রিল) চট্টগ্রামে প্রথম করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয় নগরের চকবাজার থানার দামপাড়ায়। এর দুদিন পরেই (৫ এপ্রিল) শনাক্ত হয় প্রথম করোনা আক্রান্ত ওই রোগীর ছেলের। গত বুধবার(৮ এপ্রিল) নগরীরর সাগরিকা, হালিশহর ও সীতাকুন্ড উপজেলায় তিনজন করোনা রোগী শনাক্ত হয়। গত বৃহস্পতিবার নরগরীর ফিরিঙ্গীবাজার ও আকবরশাহ’তে আরও ২ জন করোনার রোগী শনাক্ত হয়। ফৌজদারহাটে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজে (বিআইটিআইডি) হাসপাতালে গতকাল রোববার দুপুর পর্যন্ত করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) ৫ শত ৮৭ জনের নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। তার মধ্যে ১০ জনের পজেটিভ এসেছে। তার মধ্যে চট্টগ্রামের ৯ জন। নগরীর ৭ জন ও জেলার সীতাকুন্ড ও সাতকানিয়া উপজেলা ১ জন করে।

পিডিএসও/মা