করোনাভাইরাসের মহাবিপর্যয়েও অপ্রপ্রচার

ই-সিগারেটের বিজ্ঞাপনে গ্রামীণফোন!

প্রকাশ : ১২ এপ্রিল ২০২০, ১৬:২৩ | আপডেট : ১২ এপ্রিল ২০২০, ১৬:৪২

রাজশাহী ব্যুরো

করোনাভাইরাসে বিশ্ব আজ মহাবিপর্যয়ের মুখে। ঠিক এই মুহূর্তে মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোন তাদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নাম-লোগো ব্যবহার করে মানুষের জীবন ও স্বাস্থ্যহানিকর ইলেক্ট্রনিক সিগারেটের (ই-সিগারেট) বিজ্ঞাপন প্রচার করছে। 

গ্রামীণফোনের এমন অপ্রপ্রচারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে উন্নয়ন ও মানবাধিকার সংস্থা ‘অ্যাসোসিয়েশন ফর কম্যুনিটি ডেভেলপমেন্ট-এসিডি’। সংস্থাটির তামাক নিয়ন্ত্রণ প্রকল্প থেকে পাঠানো এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এ নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়। 

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ই-সিগারেট মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। যাতে তামাকসহ ক্ষতিকর নিকোটিন ও রাসায়নিক পদার্থ রয়েছে। এই ই-সিগারেট সেবন করে পৃথিবীতে তাৎক্ষণিক মৃত্যুর ঘটনাও ঘটেছে অহরহ। ফলে ই-সিগারেটের ক্ষতির ভয়াবহ দিক বিবেচনায় নিয়ে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতসহ বিশ্বের প্রায় ২৩টি দেশে এটি নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। 
অথচ দেশের জনপ্রিয় মোবাইল অপারেটর গ্রামীণফোন তাদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে প্রাণহানিকর ই-সিগারেটের বিজ্ঞাপন প্রচার করছে। যা অত্যন্ত দুঃখজনক। পোস্টে গ্রামীণফোন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (
WHO)-এর নাম ও লোগো ব্যবহার করে কৌশলে লিখেছে, ‘কোভিড-১৯ কি বাতাসে ছড়ায় (যেমন—এয়ার কন্ডিশন বা ই-সিগারেটের মাধ্যমে?)’ 

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, করোনাভাইরাস সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করার নামে ‘গ্রামীণফোন’ অপকৌশল হিসেবে ই-সিগারেটের দিকে আকৃষ্ট করার চেষ্টা করছে। যেখানে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা করোনা থেকে বাঁচতে বারবার মানুষকে ধূমপান ছেড়ে দিতে অনুরোধ করছে। যেখানে সংস্থাটি বলছে, তামাক ব্যবহার কিংবা ভ্যাপিংয়ের (ই-সিগারেট) কারণে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। সেখানে গ্রামীণফোন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার লোগো ব্যবহার করে ই-সিগারেটের বিজ্ঞাপন প্রচারের মাধ্যমে ভয়াবহ এই পরিস্থিতিতে মানুষের জীবন ও স্বাস্থ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে। 

এসিডি অতিসত্ত্বর গ্রামীণফোনের এমন স্বাস্থ্যহানিকর প্রচারণা বন্ধ করার আহ্বান জানায়। পাশাপাশি এমন ক্ষতিকর বিজ্ঞাপন প্রচার করায় গ্রামীণফোনের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধও জানায় সংস্থাটি।  

পিডিএসও/হেলাল